Scores

এক রানের জয় প্রাইম ব্যাঙ্কের

৭০ রানের ইনিংস খেলেন ইশ্বরন।
ডিপিএলে শ্বাসরূদ্ধকর ম্যাচে প্রাইম ব্যাঙ্ক ক্রিকেট ক্লাব এক রানের জয় পেয়েছে। ৪৩ ওভারের ম্যাচে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে ২৫০ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় প্রাইম ব্যাঙ্ক। জবাবে ব্রাদার্স ইউনিয়ন করে ২৪৮।

বৃষ্টির কারণে প্রতি ইনিংসের খেলা সাত ওভার কমিয়ে দেওয়া হয়। প্রথমে বাট করতে নেমে দুই ওপেনার মেহেদি মারুফ ও শানাজ আহমেদ দলকে ৭০ রানের ভিত গড়ে দেন। ২৯ বলে ২১ রান করে অলক কাপালির বলে এলবিডব্লিউ হন শানাজ। শানাজ বিদায়ের পর বেশিক্ষণ টেকেননি মেহেদি মারুফ। ৭০ বলে ৫৮ রানের ইনিংস খেলেন মারুফ। দলীয় ৮৫ রানের মাথায় মারুফের বিদায়ের পরের ওভারে আল-আমিনকে বোল্ড করেন কাপালি।

প্রাইম ব্যাঙ্কের হয়ে হাল ধরেন অভিমন্যু ইশ্বরন ও জাকির হাসান। ১১২ রানের জুটি গড়েন দুজন। তাদের জুটিতে শক্ত অবস্থানে চলে যায় প্রাইম ব্যাঙ্ক। ৬ চারে ৫০ বলে ৫২ রানের ইনিংস সাজান জাকির। ৫ চার ও ১ ছক্কায় ৬৮ বলে ৭০ রান করে অভিমন্যু। শেষদিকে আরিফুল হক আর সালমান হোসেনের ছোট্ট ছোট্ট অবদানে দলের রান দাঁড়ায় ২৪৯।

Also Read - আয়ারল্যান্ডে মাশরাফিদের বিড়ম্বনা

৪৩ ওভারের ম্যাচে ২৫০ রানের লক্ষ্য মোটেও সহজ নয়। তবে ব্রাদার্স ছিল সঠিক পথেই। দুই ওপেনার মিজানুর রহমান ও জুনায়েদ সিদ্দিকী ৪১ রানের জুটি গড়েন। অষ্টম ওভারে আসিফ ফেরান মিজানকে। ২৩ বলে ১২ রান করেন তিনি। প্রথম উইকেট নেওয়ার পর রানের গতিও চেপে ধরে প্রাইম ব্যাঙ্কের বোলাররা। দলীয় ৫২ রানের মাথায় স্টাম্পিং হন ফরহাদ হোসেন (৪)। এরপর অলক কাপালিকে নিয়ে ৬৭ রানের জুটি গড়ে দলকে খেলায় টিকিয়ে রাখেন জুনায়েদ সিদ্দিকী।

৬৭ বলে ৫১ রান করে জুনায়েদ রান আউট হলে এ জুটি ভাঙে। অর্ধশতক থেকে ৪ রান দূরে থেকে দলীয় ১৩৯ রানের মাথায় বিদায় নেন কাপালি। এরপর হাল ধরেন মানভিন্দর বিসলা। বিসলার ব্যাটে আশা জাগে ব্রাদার্স ইউনয়নের। মাইশুকুরকে নিয়ে ৬৬ রানের জুটি গড়েন তিনি। ৪৭ বলে ৫৭ রান করে বিদায় নেন বিসলা। দলীয় ২২৬ রানের মাথায় আউট হন মাইশুকুর (৩৫)।

শেষ ১৩ বলে জয়ের জন্য দরকার ছিল ২৪ রান। ধীমান ঘোষ ও মোহাম্মদ সাদ্দাম মিলে চেষ্টা চালান। ৪ বলে ৬ রান করে আউট হন সাদ্দাম। সাদ্দামের বিদায়ের পর ৮ বলে ১৬ রান প্রয়োজন ছিল। ধীমান ঘোষ ও নিহাদুজ্জামান ছিলেন ক্রিজে।

শেষ ওভারে ব্রাদার্সের দরকার ১১ রান। প্রথম বলে এক রান প্রান্ত বদল করেন ধীমান ঘোষ। দ্বিতীয় বলে নিহাদুজ্জামান ছক্কা হাঁকালে ম্যাচ ঝুঁকে পড়ে ব্রাদার্সের দিকে। শেষ চার বলে চার রান প্রয়োজন ছিল ব্রাদার্সের। তৃতীয় বল ডট হলেও চতুর্থ বলে দুই রান নিয়ে  হাতে বাকি বল আর রান সমান রাখেন। কিন্তু পঞ্চম বল আবারো ডট। শেষ বলে আরিফুল হকের ডেলিভারি উড়িয়ে মারতে গিয়ে তাইবুরের হাতে ক্যাচ দেন নিহাদুজ্জামান। এক রানের নাটকীয় জয় পায় প্রাইম ব্যাঙ্ক।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ প্রাইম ব্যাঙ্ক ২৪৯/৬, ৪৩ ওভার
ইশ্বরন ৭০, মারুফ ৫৮, জাকির ৫২
নিহাদুজ্জামান ৩/৪৯, কাপালি ২/৩৩

ব্রাদার্স ইউনিয়ন ২৪৮/৮, ৪৩ ওভার
বিসলা ৫৭, জুনায়েদ ৫১, কাপালি ৪৬
আল-আমিন ২/৪৪, আরিফুল ২/৫০

-রাইয়ান কবির, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম ডট কম 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন


Related Articles

প্রথম বাংলাদেশি পেসার হিসেবে মাশরাফির চারশো

নাসিরের বোলিং তোপে বিপর্যস্ত আবাহনী

আগামীকাল মাঠে ফিরছেন তাসকিন

বৃষ্টি আইনে খেলাঘরের জয়ে বিফলে ফজলের শতক

দারুণ বোলিংয়ের পরও মুস্তাফিজদের হার