Scores

এক হাতে বীরত্বমাখা আখ্যান

স্কোরকার্ডে চিরকাল লেখা থাকবে ২৬১ রানে অলআউট হওয়া বাংলাদেশের ওপেনার তামিম ইকবাল ৪ বলে ২ রান করে অপরাজিত।  তামিম ইকবাল যে সাহসী মানসিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে দিয়ে গিয়েছিলেন সেটাও ইতিহাসে থাকবে অপরাজেয় কোনো বীরের রূপকথার মতো উজ্জ্বল হয়ে।

এক হাতে বীরত্বমাখা আখ্যান

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের ১ রানে নেই ২ উইকেট। দ্বিতীয় ওভারে সুরাঙ্গা লাকমলের বাউন্সারে পুল করতে গিয়ে কব্জিতে আঘাত পেয়ে আহত তামিম। প্রথম ওভারে দুই উইকেট হারানো দলের আরেকজন ব্যাটসম্যান চোট পেয়ে মাঠ ছেড়ে যাচ্ছেন- মরার ওপর খাঁড়ার ঘা যেন।

Also Read - কোভিড-১৯ পরীক্ষায় ক্রিকেটারদের থেকে টাকা নিচ্ছে পিসিবি


সেখান থেকে হাল ধরেছিলেন মুশফিকুর রহিম আর মোহাম্মদ মিঠুন। ব্যাট হাতে দৃঢ়তা দেখিয়ে এক প্রান্ত আগলে রেখেছিলেন মুশফিকুর রহিম। ৪৭তম ওভারে মুস্তাফিজুর রহমানের রান আউটটাও দেখেছেন মুশফিক। মুস্তাফিজ ফিরে যাওয়ার পর ব্যাট হাতে আবার প্রবেশ করলেন তামিম।
এক হাতে বীরত্বমাখা আখ্যান

ইনিংসের শুরুতে যাকে প্রবেশ করতে দেখা যায় সব সম তিনি ব্যাট হাতে ঢুকছেন নবম উইকেট পতনের পর। অবাক পুরো গ্যালারি। টিভি ক্যামেরায় যখন ধরা পড়ল এক বিশেষ কায়দায় গ্লাভস কেটে পরে আছেন তামিম যার ফাঁক দিয়ে দেখা  যাচ্ছে সাদা ব্যান্ডেজ তখন অবাক হয়েছে ক্রিকেট দুনিয়া। তামিমের বুক ভরা সাহস চোখ ভরা  বিস্ময় এনে দেয় সবাইকে।

আহত হয়ে গিয়েছিলেন হাসপাতালে। হাসপাতাল থেকে ফেরার পর ছিলেন ড্রেসিং রুমে। নবম উইকেটের পর ক্যাপ্টেন মাশরাফি বলেছিলেন ব্যাটিং করতে নামতে। তামিমের ওপরও ভর করে পাগলামি। সিদ্ধান্তটাও নিয়ে নেন। মাঠে গিয়ে এক হাতেই মোকাবেলা করেন সেই সুরাঙ্গা লাকমলরই বল।

তামিমের মনের শক্তি যেন ভর করেছিলেন অপর পাশে থাকা মুশফিকের গায়ে। একের পর এক বাউন্ডারি,  ১৫ বলে রান হলো ৩২।

তবু দিনশেষে সবকিছু ছাপিয়ে পাদপ্রদীপের আলো ছিল তামিমের ওপর। স্লিং ঝোলানো একজন নেমে পড়েছেন ব্যাট হাতে, সেই দৃশ্য অনেকের মনে জন্ম দিয়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। এক হাতে খেলা সেই একটা বল করেছে রোমাঞ্চিত-শিহরিত। সেই ম্যাচটিই ছিল ঐ এশিয়া কাপে তামিমের শেষ। কিন্তু যে বীরত্বগাঁথার জন্ম তিনি রচনা করেছিলেন তার রোমন্থন শেষ হবে না কখনো।

Related Articles

তামিম-লিটনদের ব্যর্থতা নিয়ে চিন্তিত নন ডমিঙ্গো

ডমিঙ্গোর আশা ভালো ‘দলনেতা’ হবেন তামিম

আমরা ফাইনালে খেলার যোগ্যতা রাখি না : তামিম

হেরে বিদায় তামিম একাদশের, ফাইনালে মাহমুদউল্লাহরা

দ্রুত বিজয় ফিরে গেলেও ভালো শুরু তামিমের