এনসিএলে চ্যালেঞ্জিং উইকেট; পারফর্ম পর্যবেক্ষণ করবেন নির্বাচকরা

0
229

প্রায় এক বছর পরে বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেট মাঠে গড়াবে যাচ্ছে। চলতি মাসেই শুরু হবে জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) খেলা। প্রথম শ্রেণির এই টুর্নামেন্টে দুইরকম উইকেটের আশা করছেন মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। টুর্নামেন্টটির পারফর্ম থাকবে জাতীয় দল গঠনের বিবেচনায়ও।

নান্নুর বাসায় চোরের হানা

Advertisment

ধীরেধীরে বাংলাদেশে ক্রিকেট ফিরতে শুরু করে। যা পুরোদ্যমে পুরু হতে যাচ্ছে আগামী ২২ মার্চ। জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) ২২তম আসর শুরু হবে আগামী ২২ মার্চ, চলবে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত। চারদিনের এই টুর্নামেন্টের ২৩তম আসরও চলতি বছরেই মাঠে গড়াবে। উক্ত আসরটি শুরু হবে ১৫ অক্টোবর, চলবে ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত।

দীর্ঘ বিরতি দিয়ে ঘরোয়া ক্রিকেট ফেরায় এবার সবার জন্যই চ্যালেঞ্জিং হবে বলে মনে করেন প্রধান নির্বাচক নান্নু, ‘এবার আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং বিষয়। এক বছর পর ক্রিকেটাররা ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরবে। আমার মনে হয় প্রতিযোগিতাপূর্ণ ক্রিকেট খেলে নিজেদের প্রস্তুত করতে পারবে।’

সাধারণত বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের উইকেট নিয়ে অভিযোগ থাকে যে উইকেটগুলো কেবলই স্পিন কিংবা ব্যাটিং সহায়ক হয়। পেস বোলারদের জন্য উইকেটে তেমন কিছুই থাকে না এবং স্পোর্টিং উইকেটও দেখা যায় না। এবার প্রধান নির্বাচক আশা করছেন অন্তত দুইরকমের উইকেট হবে যা ম্যাচগুলোকে চ্যালেঞ্জিং করে তুলবে।

তার ভাষ্যমতে, ‘সবকিছু, সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দিয়ে আমরা যেন সেরা ক্রিকেটটা বের করে আনতে পারি। এক বছর কোনো ঘরোয়া ক্রিকেট হয়নি, সব মাঠেই কিন্তু নতুন করে খেলা শুরু হচ্ছে। সেই হিসেবে আমরা অবশ্যই ভালো উইকেট চাচ্ছি। আশা করছি যে ভালো উইকেট পাব। আশা করছি এনসিএলের চারটি ভেন্যু থেকে অন্তত দুটো ভেন্যুতে দুই রকমের খেলা হবে। যেন একটা দল দুই ভেন্যুতে দুই রকম উইকেট পায়। সবাই যেন সব ধরনের উইকেটে অভ্যস্ত হয়। আশা করছি চ্যালেঞ্জিং উইকেটই পাব।’

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে পুরোনো লাল বলের টুর্নামেন্ট হলো জাতীয় ক্রিকেট লিগ। বাংলাদেশ দল শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার আগে টুর্নামেন্টটির বেশকিছু ম্যাচ খেলা হয়ে যাবে। জাতীয় দল গঠনের জন্য এই ম্যাচগুলোও পর্যবেক্ষণে রাখবেন নির্বাচকরা তবে সাদা পোশাকে অভিজ্ঞতাকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে। এই বিষয়ে নান্নু বলেন,

‘টেস্ট ক্রিকেটটা এমন একটা খেলা যেখানে অভিজ্ঞতার মূল্যায়ন গুরুত্বপূর্ণ। তবে এনসিএলে ভালো করবে অবশ্যই বিবেচনায় আসবে। হাই পারফরম্যান্স আমরা চারদিনের ম্যাচে বেশ কিছু ভালো পারফর্মার পেয়েছি। ওয়ানডেতেও শামিম ভালো করেছে। ব্রিলিয়ান্ট ইনিংস আছে। সেঞ্চুরি আছে। বোলিংয়েও ভালো করেছে। ওভারঅল আমরা ওদের প্রস্তুত করছি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য। ওইভাবে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। কিছু ক্রিকেটার আমাদের নজর কেড়েছে।’

নিউজিল্যান্ডে সাদা বলের ম্যাচ খেলে ফিরেই শ্রীলঙ্কায় লাল বলে খেলতে যাওয়াকে কঠিন কিছু মনে করছেন না তিনি, ‘লাল বল সাদা বলের ক্রিকেটটা সম্পূর্ণ আলাদা। তারপরও শ্রীলঙ্কা গিয়ে যথেষ্ট সময় পাবে। আমরা যদি একটা তিনদিনের ম্যাচ খেলতে পারি এবং লাল বলে যথেষ্ট অনুশীলন করতে পারি, তাহলে মানিয়ে নিতে সমস্যা হবে না।’