এনসিএলে রংপুর ও রাজশাহীর রানের পাহাড়

বগুড়ায় জাতীয় ক্রিকেট লিগের প্রথম রাউন্ডের ম্যাচে রানের পাহাড় গড়েছে রংপুর বিভাগ। ৫ উইকেটে ৩০০ রান নিয়ে প্রথম দিন শেষ করা রংপুর নিজেদের প্রথম ইনিংস শেষ করেছে ৫০২ রানে। জবাবে ১ উইকেট হারিয়ে ৯১ রান সংগ্রহ করে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে বরিশাল বিভাগ।

এনসিএলে রংপুর ও রাজশাহীর রানের পাহাড়
দলকে স্বস্তি এনে দেওয়ার দিনে উজ্জ্বল ছিলেন রংপুরের আরিফুল ও রাজশাহীর মিজানুর।

রংপুরের পক্ষে দুর্দান্ত এক শতক হাঁকিয়েছেন আগের দিনই সেঞ্চুরি পূর্ণ করা আরিফুল হক। ৩২৫ বলের মোকাবেলায় ২৩১ রান করার পর তাকে সাজঘরে ফেরান সোহাগ গাজী। তার দৃঢ় ব্যাটিংয়েই এত বড় সংগ্রহ পায় রংপুর। এছাড়া নাঈম ইসলামের ব্যাট থেকে আসে ৯২ রান। বরিশালের বোলারদের ১৪৫.২ ওভার খাটানোর পর ৫০২ রানে থামে দলটির ইনিংস।

বরিশালের পক্ষে সোহাগ গাজী ও মনির হোসেন খান তিনটি এবং কামরুল ইসলাম রাব্বি একটি উইকেট লাভ করেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে রাফসান মাহমুদের দৃঢ়তায় ১ উইকেটে ৯১ রান নিয়ে দিনের খেলা শেষ করেছে বরিশাল। রাফসান অপরাজিত রয়েছেন ৫৩ রানে। তার সঙ্গী ১২ রান করা ফজলে রাব্বি। ওপেনার শাহরিয়ার নাফিসের উইকেট তুলে নিয়ে এখন পর্যন্ত রংপুরের একমাত্র শিকারি মাহমুদুল হাসান লিমন।

Also Read - যে কারণে মুশফিককে দলে রাখেনি রাজশাহী কিংস

সংক্ষিপ্ত স্কোর (২য় দিন শেষে)

রংপুর বিভাগ প্রথম ইনিংস- ৫০২; আরিফুল ২৩১, নাঈম ৯২; মনির ১২৮/৩, গাজী ১৪২/৩

বরিশাল বিভাগ প্রথম ইনিংস- ৯১/১; রাফসান ৫৩*, নাফিস ২৪; মাহমুদুল ২৫/১

বরিশাল বিভাগ ৪১১ রানে পিছিয়ে।

টায়ার-১ এর অন্য ম্যাচে চালকের আসনে রয়েছে রাজশাহী বিভাগ। খুলনা বিভাগকে ২১০ রানে অলআউট করে ১ উইকেটে ১২২ রান নিয়ে প্রথম দিনের খেলা শেষ করা দলটি দ্বিতীয় দিন পর্যন্ত সংগ্রহ করেছে ৪৪৬ রান, ৬ উইকেট হারিয়ে।

শতক হাঁকানোর পর সাজঘরে ফিরেছেন দলের ওপেনার মিজানুর রহমান। তার ব্যাট থেকে আসে ১১৫ রান। দিনের শুরুতে অপরাজিত ব্যাটসম্যান জুনায়েদ সিদ্দিকী সাজঘরে ফিরলেও ফরহাদ হোসেনের ৮৩, এবং জহুরুল ইসলামের অপরাজিত ৯১ রানের সুবাদে পথ হারায়নি রাজশাহী। দ্বিতীয় দিন শেষে জহুরুলের সাথে অপরাজিত রয়েছেন ৪০ রান করা সানজামুল ইসলাম। খুলনার পক্ষে আফিফ হোসেন ধ্রুব একাই শিকার করেছেন তিনটি উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (২য় দিন শেষে)

খুলনা বিভাগ ১ম ইনিংস- ২১০; তুষার ১০৪, বিজয় ২৬; শফিউল ৪৩/৫, সানজামুল ২৫/২

রাজশাহী বিভাগ প্রথম ইনিংস- ৪৪৬/৬; মিজানুর ১১৫, জহুরুল ৯১*; আফিফ ৫৭/৩

রাজশাহী বিভাগ ২৩৬ রানে পিছিয়ে।

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের হারে সেমিফাইনালে বাংলাদেশ