SCORE

এফটিপিতে বাংলাদেশের যত ম্যাচ

বুধবার প্রকাশিত হয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের আগামী পাঁচ বছরের ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম (এফটিপি)। এ সূচি অনুসারেই আগামী পাঁচ বছর আয়োজিত হবে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ এবং আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট।

২০১৯ এবং ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিত হবে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ২০২৩ সালের আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপের বাছাইয়ের জন্য আয়োজিত হবে ওয়ানডে লিগ। ২০২০ ও ২০২১ সালে আয়োজিত হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ের প্রথম নয় দল নিয়ে আয়োজিত হবে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ।

আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভ রিচার্ডসন বলেন, “এফটিপির এ চুক্তির অর্থ হলো আমাদের দ্বিপাক্ষিক সিরিজগুলোর ব্যাপারে স্বচ্ছতা, নিশ্চয়তা আছে এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো গঠন। আগামী বছর থেকে চালু হতে যাচ্ছে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। ২০২০ সালে ২০২৩ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের অংশ হিসেবে ওয়ানডে লিগ শুরু হবে।”

Also Read - স্কটল্যান্ড-আয়ারল্যান্ডের কাছে ক্ষমা চেয়েছে আইসিসি

২০২০ সালের ১ মে থেকে ২০২২ সালের ৩১ মার্চ চলবে ওয়ানডে লিগ। টেস্ট খেলুড়ে বারো দল এবং নেদারল্যান্ডসকে নিয়ে আয়োজিত হবে ওয়ানডে লিগ। এ সময়ের মধ্যে অংশগ্রহণকারী প্রত্যেক দল হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে খেলবে আটটি সিরিজ। বিশ্বকাপের স্বাগতিক ভারত এবং ২০২২ সালের ৩১ মার্চ ওয়ানডে লিগের সেরা সাত দল- এই আট দল সরাসরি খেলবে বিশ্বকাপ। তলানির বাকি পাঁচ দল পাবে দ্বিতীয় সুযোগ।

এক নজরে ২০১৮ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম (এফটিপি) অনুসারে বাংলাদেশের ম্যাচগুলো

 

২০১৮

জুলাইয়ে ক্যারিবিয়ানদের মাটিতে উইন্ডিজের বিপক্ষে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। এরপর তাদের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে লড়বে টাইগাররা।

এরপর সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে ২০১৮ এশিয়া কাপ। ওয়ানডে ফরম্যাটে অনুষ্ঠিত হবে ২০১৮ সালের এশিয়া কাপ।

বছরের শেষ মাসে উইন্ডিজকে আতিথেয়তা দিবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে উইন্ডিজ। তার পাশাপাশি রয়েছে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ও একটি টি-টোয়েন্টি।

২০১৯

বিশ্বকাপের বছরের শুরুতে বাংলাদেশ সফর করবে জিম্বাবুয়ে। জানুয়ারিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে জিম্বাবুয়ে খেলবে তিন টেস্ট ও তিন ওয়ানডে। এরপর নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে বাংলাদেশ। ব্ল্যাকক্যাপসদের বিপক্ষে টাইগাররা লড়বে তিন টেস্ট ও তিন ওয়ানডেতে।

বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ড সফর করবে বাংলাদেশ। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে রয়েছে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। এরপর আয়ারল্যান্ডের মাটিতে আয়োজিত হবে বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড-আফগানিস্তান নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ।

জুনে শুরু হবে ২০১৯ বিশ্বকাপ। সেখানে গ্রুপ পর্বে নয়টি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা।

অক্টোবরে বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে তারা। এরপর বাংলাদেশে আসবে আফগানিস্তান। আফগানদের বিপক্ষে একটি টেস্ট ও তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ।

নভেম্বরে শুরু হবে বাংলাদেশের ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচ। ভারতের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে দুই টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। সাথে রয়েছে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। ডিসেম্বরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। স্বাগতিক হবে শ্রীলঙ্কা।

২০২০

২০২০ সালে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় সিরিজ খেলবে পাকিস্তানের বিপক্ষে। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ আর তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ- এ দুইটি অ্যাওয়ে সিরিজ দিয়ে বছর শুরু হবে বাংলাদেশের। ফেব্রুয়ারিতে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সিরিজে বাংলাদেশে আসবে অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশের মাটিতে দুই টেস্ট খেলবে অজিরা।

মার্চে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এক টেস্ট ও পাঁচটি টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ। জুনে আয়ারল্যান্ড সফর করবে বাংলাদেশ। আইরিশদের বিপক্ষে খেলবে এক টেস্ট, তিন ওয়ানডে আর তিন টি-টোয়েন্টি।

জুলাই-আগস্টে শ্রীলঙ্কার মাটিতে তিনটি এবং ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। সেগুলোও ডব্লিউটিসির অংশ।

সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে ২০২০ এশিয়া কাপ। এ এশিয়া কাপ হবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে। তারপর নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কিউইদের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। অক্টোবর-নভেম্বরে অংশ নিবে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে।

ডিসেম্বরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঘরের মাঠে তিন ওয়ানডে খেলবে বাংলাদেশ।

২০২১

২০২১ সালে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের শেষ টেস্ট সিরিজে উইন্ডিজদের বিপক্ষে ঘরের মাঠে তিন ম্যাচের সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। এর সাথে থাকবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও দুই ম্যাচের টি-২০ সিরিজ।

এরপর নিউজিল্যান্ড সফর করবে টাইগাররা। কিউইদের বিপক্ষে তিন ওয়ানডে ও তিন টি-২০ খেলবে বাংলাদেশ।

জুনে হবে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। এরপর জিম্বাবুয়ে সফর করবে বাংলাদেশ। তাদের বিপক্ষে দুই টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিন টি-২০ রয়েছে বাংলাদেশের। অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে খেলবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে এবং তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ। অক্টোবরে আয়োজিত হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

নভেম্বরে পাকিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে দুই টেস্ট, তিন টি-টোয়েন্টি এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ডিসেম্বরে দুই টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। এরপর যাবে নিউজিল্যান্ড সফরে। তাদের বিপক্ষে দুই টেস্ট এবং তিন টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ।

২০২২-২৩

নিউজিল্যান্ড সফর থেকে দেশে ফিরে মার্চে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে তিন ওয়ানডে ও দুই টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে দুই টেস্ট ও তিন ওয়ানডে খেলবে টাইগাররা।

জুনে যাবে উইন্ডিজ সফরে। তাদের বিপক্ষে লড়বে দুই টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিন টি-টোয়েন্টিতে। সেই সফর শেষ করার পরেই জিম্বাবুয়ে সফর। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও দুই টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিন টি-টোয়েন্টিতে লড়বে বাংলাদেশ। এরপর সেপ্টেম্বরে হবে ২০২২ সালের এশিয়া কাপ। এ এশিয়া কাপ হবে ওয়ানডে টুর্নামেন্ট।

এশিয়া কাপ শেষে ঘরের মাঠে আয়ারল্যান্ড ও ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। আইরিশদের বিপক্ষে অক্টোবরে এক টেস্ট, তিন ওয়ানডে আর তিন টি-টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ। ভারতের বিপক্ষে রয়েছে দুই টেস্ট ও তিন ওয়ানডে। ভারতের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে বছর শেষ করবে বাংলাদেশ। এরপর জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে উইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে ২০২৩ সাল শুরু করবে বাংলাদেশ।

 

আরো পড়ুন ঃ বাংলাদেশের কোচ হতে পেরে উচ্ছ্বসিত রোডস

Related Articles

এশিয়া কাপ থেকে শ্রীলঙ্কার বিদায়

বড় জয় দিয়ে শুরু পাকিস্তানের

অনন্য তামিমে মুগ্ধ সবাই

বিশ্বকাপের টিকিটের আবেদন ছাড়িয়েছে পঁচিশ লক্ষ

ইংল্যান্ডের জয়েই কুকের ক্যারিয়ারের ইতি