এবার ‘মানকাড’ করে বিতর্ক উস্কে দিলেন দৌলত

0
683

নিয়মে থাকলেও মানকাডিংকে ঠিক ক্রিকেটীয় সুলভ বলেন না অনেকেই। গতবছর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের করা মানকাড আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দেয়। আসন্ন আইপিএলকে সামনে রেখে যখন আবার মানকাড ইস্যুতে সরব ক্রিকেট বিশ্ব, ঠিক তখনই বিতর্ক উস্কে দিলেন দৌলত জাদরান।

Advertisment

২০১৯ আইপিএলের এক ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল রাজস্থান রয়্যালস ও কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। সেই ম্যাচে অশ্বিন বল ছোড়ার আগেই ক্রিজ থেকে বের হয়ে যান জস বাটলার। মুহূর্তেই বেল ফেলে দিয়ে বাটলারকে মানকাড করেছিলেন অশ্বিন। সেই ঘটনা বহু বিতর্কের জন্ম দেয়।

আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে আইপিএলের নতুন মৌসুম শুরু হওয়ার আগে আবার ঘুরেফিরে আলোচনায় মানকাড। টুর্নামেন্টটির দল দিল্লি ক্যাপিটালসের হেড কোচ রিকি পন্টিং প্রস্তাব দিয়েছেন, নন-স্ট্রাইক প্রান্তের ব্যাটসম্যান আগেই বেরিয়ে গেলে ব্যাটিং দলকে ১০ রান পেনাল্টি করা হোক।

এনিয়ে যখন আলোচনা তুঙ্গে, তখন নতুন করে বিতর্ক উস্কে দিলেন আফগানিস্তানের পেসার দৌলত জাদরান। দেশটির ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট লিগ শাপেগিজা টুর্নামেন্টের এক ম্যাচে কাবুলে মুখোমুখি হয়েছিল দুই দল মিস আইনক নাইটস এবং কাবুল ঈগল। এই ম্যাচেই এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন দৌলত।

ম্যাচে আগে ব্যাট করে ১৬৩ রানের সংগ্রহ পায় আইনক নাইটস। জবাবে কাবুলের জয়ের জন্য যখন ২৭ বলে ৩৩ রান প্রয়োজন, তখন নন-স্ট্রাইক প্রান্তে থাকা ব্যাটসম্যান নূর আলী জাদরানকে মানকাড আউট করেন দৌলত। যদিও শেষপর্যন্ত ম্যাচটা জিততে পারেনি আইনক নাইটস।

এই ঘটনার পর নতুন করে বিতর্ক ডালপালা মেলেছে। ক্রিকেটের নিয়মে থাকলেও অনেকেই এমন আউটকে মেনে নিতে নারাজ। আবার অনেকেই মানকাড আউটকে ‘লজ্জাজনক’ বলে আখ্যায়িত করছেন। দাবি উঠেছে, ক্রিকেটীয় নিয়ম থেকে মানকাড তুলে দেওয়া হোক।

তবে এর পক্ষেও মত দিয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অনেকেই। বলছেন, ক্রিকেটীয় নিয়ম না মানলে খেসারত দিতে হবে ব্যাটসম্যানকে। অনেকেই আবার কপিল দেবের করা মানকাডকে উদাহরণ হিসেবে টেনে দাওলাতের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।