Scores

এশিয়া কাপ বাদ দিয়ে হলেও আইপিএল চান ভন!

বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের কারনে সকল ধরনের ক্রিকেট আপাতত বন্ধ। আইসিসিও তাদের বিভিন্ন বাছাইপর্বের খেলা আগামী জুন মাস পর্যন্ত বন্ধ রেখেছে। করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বিশ্বের প্রায় সকল ক্রিকেট খেলুড়ে দেশেরই সূচী পন্ড হয়ে যাচ্ছে।

এশিয়া কাপ বাদ দিয়ে হলেও আইপিএল চান ভন!
ছবি : মাইকেল রডিস, গেটি ইমেজ।

বাংলাদেশের পাকিস্তান, আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ড সফরও বাতিল হয়ে গিয়েছে। ভবিষ্যৎ সিরিজ গুলো সবই হুমকির মুখে। কবে নাগাদ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে তা নিশ্চিত নয়। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পুরো ক্রিকেট সূচী ঠিক করতে আইসিসিকে যে বড় দুশ্চিন্তায় পরতে হবে তা প্রায় নিশ্চিত। আগস্টের পর যদি সব কিছু স্বাভাবিক হয় তাহলে কোন সিরিজ কখন হবে বা না হবে তা নিশ্চিত করা বড় চ্যালেঞ্জ হবে।

Also Read - ক্রিকেটারদের বেতন কাটছে না বিসিবি


এইদিকে শুক্রবার টুইটারে ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক মাইকেল ভন আইপিএল নিয়ে তার মতামত জানান। ভন যে কোনো মূল্যে আইপিএল দেখার পক্ষপাতী। ভন বলেন, ” বিশ্বকাপের আগে সেপ্টেম্বর – অক্টোবরে আইপিএল একটি গা গরমের আসরের মতো কাজ করতে পারে খেলোয়াড়দের জন্য যদি বিশ্বকাপ হয় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে “।

তবে ভন তার এই পরিকল্পনায় রীতিমত এশিয়া কাপকে বাদ দিয়ে দিয়ে দিয়েছেন। ভন হয়তো ভুলেও গেছেন ভারতীয় ভক্তদের কাছে আইপিএল গুরুত্বপূর্ণ হলেও এশিয়ার বাকি ক্রিকেট খেলুড়ে দেশগুলোর জন্য এশিয়া কাপ বিশ্বকাপের পর সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ আসর। এই আসরকে একেবারে বাদ দিয়ে ভনের ভারতে আইপিএল দেখতে চাওয়া মিশ্র প্রতিক্রিয়ার তৈরি করেছে।

যদি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েও যায় প্রশ্ন উঠেছে তাহলে আইপিএল কেনো? পরিস্থিতি যদি স্বাভাবিক হয় ক্রিকেট খেলার মতো তাহলে তো অবশ্যই নির্ধারিত এশিয়া কাপ আয়োজন করা যেতে পারে সেপ্টেম্বর – অক্টোবরে। আইপিএল হলে যদি বিশ্বকাপের আগে এক গা গরমের সুযোগ হয় তাহলে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার খেলোয়াড়রা কি করবে? এইসব দল থেকে তো আইপিএলে খেলোয়াড় খুজে পাওয়াই দুস্কর।

আইপিএলের জন্য সময় পাওয়া গেলে তখন কি আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়দের পাওয়া যাবে? কারন তখনতো লকডাউন শেষ হওয়ার পর সকল দলই তাদের আন্তর্জাতিক সিরিজ গুলো দ্রুত আয়োজনের চেষ্টা করবে। তখন কেনো তারা তাদের খেলোয়াড়দের আইপিএলের জন্য ছাড়বে সেটাও একটা প্রশ্ন। একই সময় সিপিএলও হওয়ার কথা রয়েছে। তারাও কেনো তাদের আসর আইপিএলের জায়গা তৈরি করে দেওয়ার জন্য বাদ দিবে সেটাও একটা প্রশ্ন রয়ে যায়। সেই ক্ষেত্রে শুধু ভারতীয় খেলোয়াড়দের নিয়ে বিসিসিআই আইপিএল আয়োজনের কথা ভাবতে পারে সেই সময়। তখন হয়তো এশিয়ার বাকি দলগুলো নিজেদের জমে থাকা সিরিজ আয়োজন করার কথা ভাবতে পারে। কিন্তু এই সব যদি কিন্তু নির্ভর করবে কখন এই লকডাউন শেষ হয় বিভিন্ন দেশে ও কখন আন্তর্জাতিক ভ্রমণ নিরাপদ হয় তার উপর।

তবে মাইকেল ভনের এইভাবে এশিয়া কাপের কথা বাদ দিয়ে আইপিএল হওয়ার কথা তোলা বেশ আশ্চর্যজনকই হয়ে থাকবে। কারন ক্রিকেট খেলার পরিস্থিতি হলে সকল নিরপেক্ষ ভক্তরাই চাইবে নির্ধারিত সময়ে নির্ধারিত আসরটি আয়োজিত হোক।

Related Articles

কারানের ব্যাটিং ঝড় সত্ত্বেও কলকাতার দাপুটে জয়

আর্চারের অগ্নিঝরা বোলিং, তবুও কলকাতার লড়াকু পুঁজি

কোটি টাকা ক্ষতির পরও বিসিবির সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাচ্ছেন মুস্তাফিজ

আইপিএলে যেতে পারলে এক কোটি টাকা পেতাম : মুস্তাফিজ

বেয়ারস্টো-ওয়ার্নার-উইলিয়ামসনের ব্যাটে হায়দরাবাদের লড়াকু পুঁজি