SCORE

করুনারত্নে ১৫৮ তবু শ্রীলঙ্কা ২৮৭

গলেতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে স্বাগতিকদের ওপেনার দিমুথ করুনারত্নে ছাড়া সকলেই ছিলেন নিস্প্রভ। প্রথম দিনেই অলআউট হয়ে গিয়েছে শ্রীলঙ্কা। তাদের ২৮৭ রানের মধ্যে ১৫৮ রানই এসেছে দিমুথ করুনারত্নের ব্যাট থেকে। একাই লড়েছেন তিনি। ছিলেন অপরাজিত।করুনারাত্নে ১৫৮ তবু শ্রীলঙ্কা ২৮৭

টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় শ্রীলঙ্কা। দুই ওপেনারের হাত ধরে শ্রীলঙ্কার সূচনাটা ভালই হয়েছিল। রানের গতিও ছিল দারুণ। তাদের ৪৪ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন কাগিসো রাবাদা। ৪ চারের সাহায্যে ৩১ বলে ২৬ রান করে বিদায় নেন দানুশকা গুনাথিলাকা। বেশিক্ষণ টিকেননি ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। মাত্র ১১ রান করে বিদায় নেন চায়নাম্যান বোলার তাবরাইজ শামসির বলে।

এরপর কুশল মেন্ডিস হাল ধরেন। ওপেনার করুনারত্নেকে নিয়ে যোগ করেন ৪৫ রান। অন্যদের মতো কুশল মেন্ডিসও থিতু হয়েও সক্ষম হননি বড় স্কোর গড়তে। ২৪ রান করে ডেল স্টেইনের শিকার হন কুশল মেন্ডিস। স্টেইনের বলে তিনি ক্যাচ তুলে দেন রাবাদার হাতে।

Also Read - সেমিফাইনালে লড়াকু সংগ্রহ বাঘিনীদের

কুশল মেন্ডিসের বিদায়ের পর দ্রুত ফিরে যান অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস এবং রোশেন সিলভা। ১ রান করে রাবাদার বলে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দেন ম্যাথিউস। এক বল পরে রোশেন সিলভাকেও সাজঘরে পাঠান কাগিসো রাবাদা। এক ওভারে দুই উইকেট হারালে যেন শ্রীলঙ্কার বড় স্কোরের আশা নিভে যায়। ২ উইকেটে ১১৫ রান থেকে ১১৯ রান তুলতে ৫ উইকেট হয়ে যায় শ্রীলঙ্কার।

ষষ্ঠ উইকেটে নিরোশান ডিকওয়েলা এবং ওপেনার দিমুথ করুনারত্নে যোগ করেন ৪২ রান। ১৮ রান করেন ডিকওয়েলা। ১৬১ রানের মাথায় বিদায় নেন শামসির বলে। পরের ওভারে দিলরুয়ান পেরেরাকে (১) ফিরিয়ে দেন ভারনন ফিলান্ডার। ১ রান করে রান আউট হন রঙ্গনা হেরাথ।

এরপর সুরাঙ্গা লাকমলের সাথে দিমুথ করুনারত্নের জুটিতে ভর করে দুইশ’ রানের চৌকাঠ পার করে শ্রীলঙ্কা। নবম উইকেটে দুজন মিলে যোগ করেন ৪৮ রান। তাদের জুটি ভাঙেন কাগিসো রাবাদা। লঙ্কান অধিনায়ক লাকমল ১০ রান করে বিদায় নেন। শেষ উইকেটে লক্ষণ সান্দাকান ও দিমুথ করুনারত্নে মিলে যোগ করেন ৬৩ রান। ওপেনার ও ইনিংসের শেষ ব্যাটসম্যানের এ জুটিই ছিল শ্রীলঙ্কার ইনিংসের সবচেয়ে বড় জুটি। দলীয় ২৮৭ রানের মাথায় সান্দাকানকে ফিরিয়ে দিয়ে শ্রীলঙ্কার ইনিংসের সমাপ্তি টানেন শামসি। ২৪ রান করেন সান্দাকান।

ওপেনিংয়ে নামা দিমুথ করুনারত্নে ছিলেন অপরাজিত। ২২২ বলে ১৫৮ রানের এক দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। তার ইনিংসে ছিল ১৩ চার ও ১ ছক্কা। নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারের অষ্টম শতক তুলে নেন করুনারত্নে।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে চার উইকেট শিকার করেন পেসার কাগিসো রাবাদা। তিন উইকেট নেন স্পিনার তাবরাইজ শামসি। একটি করে উইকেট লাভ করেন ভারনন ফিলান্ডার এবং ডেল স্টেইন।

বোলিংয়ে কাজটা দারুণভাবে করলেও ব্যাটিংয়ে শুরুটা মোটেও ভাল হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার। শেষ বিকেলে ব্যাটিংয়ে নেমেই উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা। দলীয় চার রানের মাথায় বিদায় নেন প্রোটিয়া ওপেনার এইডেন মারক্রাম। রানের খাতা খোলার আগেই তাকে ফিরিয়ে দেন স্পিনার রঙ্গনা হেরাথ। হেরাথের বলে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন মারক্রাম। এরপর নাইটওয়াচম্যান  হিসেবে মাঠে নেমেছেন কেশব মহারাজ।

প্রথম দিনের খেলাশেষে ২৮৩ রানে পিছিয়ে আছে দক্ষিণ আফ্রিকা। স্বাগতিক লঙ্কানদের অল্প রানেই বেঁধে রাখতে সক্ষম হয়েছে প্রোটিয়ারা। তবে ব্যাটিংয়ে শুরুতেই ধাক্কা খেয়ে যেন কিছুটা চাপ মাথায় নিয়েই দ্বিতীয় দিনে মাঠে নামবে দক্ষিণ আফ্রিকা। ওপেনার ডিন এলগার এবং কেশব মহারাজ মিলে শুরু করবেন দ্বিতীয় দিনের খেলা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ১ম ইনিংস ২৮৭/১০, ৭৮.৪ ওভার
করুনারত্নে ১৫৮*, গুনাথিলাকা ২৬, সান্দাকান ২৫
রাবাদা ৪/৫০, শামসি ৩/৯১, ফিলান্ডার ১/২৮

দক্ষিণ আফ্রিকা: ১ম ইনিংস ৪/১, ৪ ওভার
এলগার ৪*
হেরাথ ১/১


আরো পড়ুনঃ বোলিংয়ে বাংলাদেশ, একাদশে এক পরিবর্তন


 

Related Articles

এশিয়া কাপ থেকে শ্রীলঙ্কার বিদায়

বড় জয় দিয়ে শুরু পাকিস্তানের

অনন্য তামিমে মুগ্ধ সবাই

বিশ্বকাপের টিকিটের আবেদন ছাড়িয়েছে পঁচিশ লক্ষ

ইংল্যান্ডের জয়েই কুকের ক্যারিয়ারের ইতি