Scores

করোনাকালে বাড়তি সতর্কতায় বিসিবি সভাপতি

করোনা আবারো গ্রাস করেছে ঘরোয়া ক্রিকেটকে। একের পর এক করোনা আক্রান্তের খবরে বন্ধ হয়ে গেছে এনসিএল। করোনার কারণে খানিক অনিশ্চয়তা জেগেছে শ্রীলঙ্কা সফর নিয়ে। এদিকে সিনিয়র ক্রিকেটারদের চমকপ্রদ সব বক্তব্যে খানিক অস্থির ক্রিকেট পাড়ার বাতাস। এতসব ইস্যু যখন সামনে, তখন নীরব বিসিবি সভাপতি।

কোয়ারেন্টিন নয়, আইসোলেশনে থাকতে বলেছিল শ্রীলঙ্কা পাপন
দীর্ঘদিন ধরে গণমাধ্যমের সামনে আসছেন না বিসিবি সভাপতি। ফাইল ছবি

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন সর্বশেষ মিরপুরের ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এসেছিলেন গত ১৭ মার্চ, জাতির জনকের জন্মবার্ষিকীর আয়োজনে। এরপর হঠাৎ গুটিয়ে নিয়েছেন নিজেকে। একবারও মুখোমুখি হননি গণমাধ্যমের। নানা সময়ে প্রাণবন্ত সংবাদ সম্মেলনের জন্ম দেওয়া বিসিবি সভাপতির সাড়া নেই মিডিয়া পাড়ায়।

পাপনের এই নীরবতা নিয়ে অনেকের মনেই নানা প্রশ্ন জাগছে। সেসব প্রশ্নের উত্তর- করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় নিজ বাড়িতে সতর্ক অবস্থানে আছেন দেশের ক্রিকেট অভিভাবক, একইসাথে যিনি দেশের ওষুধশিল্প খাতেও আছেন বড় ভূমিকায়।

Also Read - ডি কক আসলে কী করেছিলেন- খোলাসা করলেন শামসি


সাকিব আল হাসানের বেফাঁস মন্তব্যের পর বোর্ড পরিচালকদের নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়েছিল বিসিবি সভাপতির বাসভবনেই। সেই বৈঠকের পর নাঈমুর রহমান দুর্জয়, আকরাম খানরা মুখ খুললেও কোনো প্রতিক্রিয়া জানাননি পাপন। অন্তরালে থাকা বিসিবি সভাপতি নীরব থাকলেও মহামারীকালে সুস্থ আছেন, একটু বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করে চলছেন।

করোনার কারণে বাসা থেকে খুব একটা বের হচ্ছেন না পাপন। বিসিবি পরিচালক ও বোর্ডের অর্থনৈতিক কমিটির প্রধান ইসমাইল হায়দার মল্লিক বিডিক্রিকটাইমকে জানালেন, ‘না, আমাদের সভাপতি সাহেব ভালো আছেন। করোনা পরিস্থিতি ভালো নয়। তাই প্রয়োজন ছাড়া বাইরে যাচ্ছেন না। বলতে পারেন বাড়তি সতর্কতা।’

মল্লিক ছাড়াও বিসিবির মিডিয়া বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুসও জানিয়েছেন একই তথ্য। তিনি বলেন, ‘না, উনি ভালো আছেন। এমন নিয়মে তিন বের হন না, প্রয়োজন হলেই শুধু বাইরে যান। এখন হয়ত তেমন কিছু নেই, তাই বাসাতেই আছেন। আর এটাও তো সত্য এখন যে এই পরিস্থিতিতে বাসায় থাকাটাই ভালো।’

বিসিবি সভাপতি কার্যালয়ে না এলেও থেমে নেই তার কোনো কাজ। প্রযুক্তির সহায়তায় ভার্চুয়ালি সর্বক্ষণ বোর্ডের সবার সাথে যোগাযোগ রাখছেন। নিউজিল্যান্ড সফরে টাইগারদের সাথেও ছিল যোগাযোগ।

বিসিবির সভাপতির ঘনিষ্ট এক সূত্র জানায়, ‘আমাদের যোগাযোগ ফোন ও ভার্চুয়ালে। মানে অনলাইনেই তার সঙ্গে যোগাযোগ হয় প্রয়োজন হলে। তাকে আমরা আমাদের কাজের অগ্রগতি জানাই। তিনিও প্রয়োনীয় নিদের্শনাগুলো আমাদের ফোনের মাধ্যমেই দিয়ে থাকেন। আরেকটা বিষয় হলো তিনি বেশ কিছুদিন হলো প্রয়োজন ছাড়া খুব একটা বের হন না। কারণ করোনা পরিস্থিতির কারণে সতর্ক থাকার তো কোন বিকল্প নেই।’

Related Articles

প্রিমিয়ার লিগ মাঠে গড়ানোর সম্ভাবনা ক্ষীণ, বলছেন পাপন

টেস্ট ক্রিকেটে দুর্বলতার কথা স্বীকার করলেন পাপন

ম্যাচ হারলে বেশি কষ্ট না পাবার পরামর্শ পাপনের

একাদশ কী হচ্ছে, টস জিতে বোলিং নিবে নাকি ব্যাটিং- এখন সেটা জানি : পাপন

সাকিব-মাশরাফির অভিমত, বেশি গুরুত্ব দেওয়ার কিছু দেখছেন না সুজন