SCORE

মাঝে রশিদ ও আমার ওভারগুলো টার্নিং পয়েন্ট : সাকিব

আইপিএলের দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ১৩ রানে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট পেয়েছে সাকিব আল হাসানের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো ফাইনাল খেলতে যাচ্ছেন সাকিব। কলকাতা নাইট রাইডার্স ব্যাট হাতে উড়ন্ত সূচনা করলেও মাঝের ওভারে রশিদ খান ও তার ওভারগুলোই ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে বলে মনে করেন সাকিব।

 

মাঝে রশিদ ও আমার ওভারগুলো টার্নিং পয়েন্ট : সাকিব
ছবি : বিসিসিআই

এখন পর্যন্ত দলের সব ম্যাচেই একাদশে ছিলেন সাকিব। তার ওপর আস্থা রাখার জন্য ধন্যবাদও জানিয়েছেন তিনি। সব মিলিয়ে দলের জন্য দারুণ টুর্নামেন্ট বলে মনে করেন সাকিব। সাকিব বলেন, “তৃতীয়বারের মতো আমি আইপিএল ফাইনাল খেলতে যাচ্ছি। আমাকে সব ম্যাচে খেলানোর জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিকে ধন্যবাদ। কিছু ম্যাচে আমরা আমাদের সেরাটা দিতে পারিনি। তবে সব মিলিয়ে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের জন্য একটা ভালো টুর্নামেন্ট।” 

Also Read - 'স্টাইলিশ প্লেয়ার অব দ্যা ম্যাচ' জিতলেন সাকিব

প্রথম কোয়ালিফায়ারে চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে হাতের মুঠোয় থাকা ম্যাচ হেরে যায় সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। শেষ তিন ওভারে ৪৩ রান প্রয়োজন ছিল চেন্নাই সুপার কিংসের। পাঁচ বল হাতে রেখেই জিতে যায় তারা। টি-টোয়েন্টিতে শেষ দুই-তিন ওভারে এভাবে হেরে যাওয়াকে অস্বাভাবিক মনে করেন সাকিব। অন্যান্য দিনের অভিজ্ঞতাকে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে কাজে লাগিয়েছেন বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, “আমরা সবসময় জানতাম যে টি-টোয়েন্টিতে শেষ দুই-তিন ওভারেই হেরে যেতে পারেন। মোমেন্টাম বদলে যায়। তাই আমাদের স্নায়ুকে ধরে রাখতে হতো। অন্যান্য দিনের অভিজ্ঞতাকে আমরা কাজে লাগিয়েছি।”  

চেন্নাই সুপার কিংসের যখন তিন ওভারে প্রয়োজন ৪৩, তখন এক ওভারেই ২০ রান দিয়েছিলেন কার্লোস ব্র‍্যাথওয়েট। কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে শেষ ওভারে ১৯ রান পুঁজি নিয়ে বল করতে এসে কার্লোস রান দেন মাত্র ৪। শিকার করেন দুই উইকেট। কার্লোসের এমন ঘুরে দাঁড়ানো দেখে তার প্রশংসা করতে ভুলেননি সাকিব। সাকিব বলেন, “কার্লোস খুব খুশি হবে। আমরা ঐদিন যেভাবে হেরেছিলাম, সে ভেবেছিল তার কারণে হেরেছিলাম। আজ সে যেভাবে ঘুরে দাঁড়ালো তা অসাধারণ।”  

বেশ দারুণ ও উপভোগ্য ফাইনাল হবে বলে মনে করেন সাকিব। তিনি বলেন, “চেন্নাই খুব শক্ত দল। দারুণ একটা ফাইনাল হবে।” 

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ১৭৪ রানের লক্ষ্যে ঝড়ো ব্যাটিং করছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। ওপেনার ক্রিস লিন আর সুনিল নারাইনের ঝড়ের পর নিতিশ রানার আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের সুবাদে পাওয়ারপ্লেতে মাত্র এক উইকেটের বিনিময়ে ৬৭ রান করে ফেলে কলকাতা নাইট রাইডার্স। শুরুতে কলকাতা নাইট রাইডার্সের ব্যাটসম্যানরা যেন বসেছিলেন চার-ছক্কার পসরা সাজিয়ে। তাদের দমিয়েছেন সাকিব আল হাসান আর রশিদ খান।

মাঝের ওভারে রশিদ খান ও সাকিব আল হাসান এসে লাগাম ধরেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের রানের গতির। দুজন মিলে নিয়মিত বিরতিতে শিকার করতে থাকেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের উইকেট। সাকিবের বলে বোল্ড হন দীনেশ কার্তিক। রশিদ খান ফিরিয়ে দেন রবিন উথাপ্পা, ক্রিস এবং আন্দ্রে রাসেলের মতো তিন মারকুটে ব্যাটসম্যানকে।

সাকিব ও রশিদ দুজনই ছিলেন বেশ কিপ্টে। তাদের করা ৭ ওভারে মাত্র ৩৫ রান করেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। হারিয়েছে মহামূল্যবান চার উইকেট। এ সাত ওভারে ডট বল হয়েছে ১৮ টি। তিন ওভারে মাত্র ১৬ রান দিয়েছেন সাকিব। তার ইকোনমি ছিল ৫.৩৩। অন্যদিকে রশিদ খান ৪ ওভারে দিয়েছেন মাত্র ১৯। তার ইকোনমি ৪.৭৫। দুজন মিলে দারুণভাবে চেপে ধরেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের ব্যাটসম্যানদের। তাদের এমন দুর্দান্ত বোলিংকেই ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন সাকিব।

সাকিব বলেন, “মাঝের ওভারগুলোতে রশিদ ও আমি বোলিং করেছিলাম। আমরা ম্যাচটাকে চেপে রেখেছিলাম। এটাই ছিল টার্নিং পয়েন্ট।” 

আগামী ২৭ মে অনুষ্ঠিত হবে আইপিএলের ফাইনাল। চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে মোকাবেলা করবে সাকিবের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় শুরু হবে শিরোপা নির্ধারণী এ ম্যাচ।


আরো পড়ুন : রশিদ-সাকিবে ভর করে ফাইনালে হায়দরাবাদ


 

Related Articles

‘চুলে নয়, বলে তাকাও’

বরখাস্ত হলেন ভেট্টোরি

ভারতছাড়া হচ্ছে আইপিএল!

বিগ ব্যাশকেও বিদায় বললেন জনসন

দুই বছর বিদেশি লিগে খেলবেন না মুস্তাফিজ