Scores

কী এমন করলেন, বুঝতে পারছিলেন না তাসকিন

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের পর বাংলাদেশের জার্সি গায়ে বেশ আলো ছড়াচ্ছিলেন তাসকিন আহমেদ। তবে ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ডানহাতি এই পেসারের ক্যারিয়ারে অন্ধকার নেমে আসে। অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের জন্য নিষিদ্ধ হন তাসকিন। সেই সময়কার পরিস্থিতি কেমন ছিল, সেটাই জানিয়েছেন তিনি।

ম্যাচ না খেলেই দেশে ফিরবেন তাসকিনরা! -

ভারতে হয়ে যাওয়া সেই বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড খেলে মূল পর্বে ওঠে বাংলাদেশ দল। তবে হঠাৎ করেই এলোমেলো হয়ে যায় সবকিছু। বিশ্বকাপ চলাকালীনই আইসিসি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিংয়ে নিষিদ্ধ করে স্পিনার আরাফাত সানি ও তাসকিনকে। কারণ হিসেবে জানানো হয়, বেশিরভাগ ডেলিভারিতে তাদের কনুই সর্বোচ্চ সীমা ১৫ ডিগ্রি ছাড়িয়ে যায়।

Also Read - ঈদের পরেই ডিপিএল ফেরাতে আবেদন






এই ঘটনার পর ভেঙে পড়েন তাসকিন। শুক্রবার (৮মে) তামিম ইকবালের সাথে সরাসরি ভিডিও আড্ডায় সেই সময়ের স্মৃতিচারণ করে তাসকিন বলেন,পাকিস্তান ম্যাচের পরের ম্যাচটাই ছিল ভারতের সাথে। ঐ ম্যাচের আগেই আমাকে নিষিদ্ধ করলো। সেটা ব্যাঙ্গালোরে, ভারতের বিপক্ষে সবাই ম্যাচ খেলতে গেছে আমি একাই হোটেলে। ম্যাচটা আমরা ১ রানে হেরেছি।’

‘ঐ ম্যাচটা হারের পর আমরা প্রায় সবাই কান্না করেছি। আমার খুব কষ্ট লেগেছিল। একে তো নিষিদ্ধ হলাম, আবার ম্যাচটাও হারলাম। ঐ ম্যাচটার জন্য দোয়া করেছি অনেক। হয়নি। পরে তো একা একা এসে পড়েছি দেশে অস্ট্রেলিয়া ম্যাচের আগেই।’ সাথে যোগ করেন তিনি।






দেশে এসে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন তাসকিন। বুঝতে পারছিলেন না, ঠিক কী কারণে নিষিদ্ধ হতে হলো তাকে। অবস্থা এমন দাঁড়ায় যে, পরীক্ষা দিয়ে তৃতীয়বার একই সমস্যা ধরা পড়লে ক্রিকেট থেকেই আজীবন নিষিদ্ধ হবেন তাসকিন। এরপর টাইগারদের তৎকালীন বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিকের সাথে কাজ শুরু করেন তিনি।

তাসকিন জানান, ‘প্লেনে অনেক কান্না পেয়েছিল। এয়ারপোর্টে, বাসায় আসার পরেও খুব খারাপ লাগতেছিল। কী এমন করলাম আমাকে নিষিদ্ধ করা হল। এরপর ৬ মাস কোন আন্তর্জাতিক খেলা ছিলনা। বিষয়টা এমন ছিল, আমি যদি আবার পরীক্ষা দিয়ে ব্যর্থ হই তবে ১ বছর খেলতে পারবোনা। দ্বিতীয়বার ধরা খেলে ২ বছর খেলতে পারবোনা। আর তৃতীয়বার একই ব্যাপার হলে আজীবন নিষিদ্ধ।’

পরীক্ষা দিয়ে ফেরার আগে কোন প্রক্রিয়ার ভিতর দিয়ে গেছেন জানিয়ে তাসকিন বলেন, ‘যখন সবাই দেশে আসলো, হিথ স্ট্রিক চলে যাওয়ার আগে মাহবুব আলি জাকি স্যার আমার প্রজেক্টটা তার হাতে দিল। আমি দিন-রাত কষ্ট করতাম। অ্যাকাডেমিতে গিয়ে জাকি স্যারের সাথে অনুশীলন করতাম। উনি ঐ সময়টা আমাকে না বলেই বাসায় আসতো দেখার জন্য যে আমি কাজগুলো ঠিকঠাক করছি কীনা।’

‘তখন নামাজ পড়ে আমার একটাই শুধু দোয়া থাকতো আল্লাহ আমাকে তুমি এই বিপদ থেকে উদ্ধার কর। পরে আমি যখন অস্ট্রেলিয়াতে যাই পরীক্ষা দিতে, তার আগেরদিনও রোজা রাখছিলাম। এরপর তো পাশ করলাম।’ সাথে আরও বলেন তিনি।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ভারতের প্রাপ্য অর্থ কেটে নেয়ার হুমকি আইসিসির

ব্রাথওয়েটের প্রশংসায় সেই স্টোকস