কেভন কুপারের বোলিং অ্যাকশন নিয়ে অভিযোগ

বোলিং অ্যাকশন প্রশ্নবিদ্ধ কেভন কুপারের! ক্যারিবীয় অলরাউন্ডারের বোলিং নিয়ে এমন প্রশ্নই তুলেছেন শ্রীলঙ্কান আম্পায়ার রানমোর মার্টিনেজ। বিপিএলের শুরুর দিকে চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে ম্যাচে কুপারের বোলিং নিয়ে ম্যাচ রেফারির কাছে অভিযোগ তুলেন আম্পায়ার মার্টিনেজ।
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোনো বোলার প্রশ্নবিদ্ধ হলে দুই সপ্তাহের মধ্যে বাধ্যতামূলক অ্যাসিসমেন্ট থাকে। বিপিএল ঘরোয়া ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্টে এমন বাধ্যবাধকতা না থাকায় অ্যাকশনে পরিবর্তন না এনেই বোলিং করতে পারবেন কুপার। সে সুযোগেই খেলা চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে কুপার ও তার দল খুলনা টাইটানস।
1479554982
সোমবার কুপারের বোলিং প্রসঙ্গে এমনটাই জানান খুলনার অলক কাপালি। একইসঙ্গে চলতি বিপিএলে বোলিং অ্যাকশন আর পরিবর্তন করছেন না কুপার এমনটাও জানিয়ে দেন। এর আগে ২০১১ সালে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে এবং ২০১৪ সালে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) রাজস্থান রয়্যালসে খেলার সময় কুপারের বোলিং নিয়ে প্রশ্ন তোলেন আম্পায়াররা। পরে পরীক্ষা দিয়ে আবারো আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ফিরে আসেন তিনি।

এবারো যেহেতু প্রশ্ন তোলা হয়েছে বিপিএল শেষে আবারো বোলিং পরীক্ষা দেবেন কুপার। এ ব্যাপারে কাপালি আরো বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা কোনো চিন্তা করছি না। আমার মনে হয় কুপার নিজেও চিন্তিত নন।’ নিয়ম অনুযায়ী বোলিং অ্যাকশন প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ করার কথা আইসিসির।

কাপালি যোগ করেন, ‘বোলিং নিয়ে অভিযোগ অনেকবার হয়েছে। সুনীল নারিনের ব্যাপারে হয়েছে। এ নিয়ে আসলে কিছু বলার নেই। তারা পেশাদার ক্রিকেটার, এটা নিয়ে চিন্তা করবে না।’

Advertisment

তবে বিপিএল যেহেতু আইসিসির কোনো সিরিজ বা টুর্নামেন্ট নয় সে কারণে এই নিয়ম এখানে প্রযোজ্য হবে না। অবশ্য কুপারের বিষয়ে বিসিবি ইতিমধ্যে ক্যারিবীয় ক্রিকেট বোর্ডকে অবহিত করেছে। তবে বিপিএল আইনে অভিযুক্ত বোলারদের কেউ দ্বিতীয়বার অভিযুক্ত হলে তাকে খেলানোর ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা থাকবে এমন একটি আইন করার ব্যাপারে ভাবছে বিপিএল টেকনিক্যাল কমিটি।

বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান জালাল ইউনুস বলেন, ‘গত ১২ নভেম্বর চিটাগং ভাইকিংসের ম্যাচে কুপারের অ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ওর দেশের ক্রিকেট বোর্ডকে আমরা বিষয়টি জানাচ্ছিও। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিযুক্ত হলে দুই সপ্তাহের মধ্যে অ্যাসেসমেন্ট করার বাধ্যবাধকতা থাকে। কিন্তু বিপিএল ঘরোয়া টুর্নামেন্ট বলে ও খেলে যেতে পারবে।’

যদিও তিনি মনে করেন বিপিএল আইনে অভিযুক্ত বোলারদের নিয়ে কিছু নীতিমালা থাকা উচিত, ‘হয়তো পরেরবার আমরা এরকম কোনো শর্ত জুড়ে দিতে পারি যে দ্বিতীয়বার কেউ অভিযুক্ত হলে খেলতে পারবে না। এরকম কিছু আইন রাখা জরুরিও।’

 

  • মাকসুদুল হক , বিডিক্রিকটিম।