কোচের মতে, ‘অসাধ্য সাধন’ করেছে মেয়েরা!

0
3122

অঞ্জু জৈন নিজেই একটা সময় খেলেছেন এই ভারতীয় দলের হয়ে। শুধু খেলেনইনি, করিয়েছেন কোচিংও। ২০১২ সালে তার অধীনে থেকেই টি-২০ বিশ্বকাপ ও পরের বছর ওয়ানডে বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছিল ক্রিকেট বিশ্বের পরাশক্তি দলটি।

কোচের মতে, ‘অসাধ্য সাধন’ করেছে মেয়েরা!
বাংলাদেশ নারী দলের কোচ অঞ্জু জৈন, যখন খেলতেন ভারতের হয়ে। ছবিঃ সংগৃহীত

সেই অঞ্জুই এবার জয় পেয়েছেন ভারতের বিপক্ষে! অর্থাৎ, তার চোখের সামনেই হেরে গেছে ভারত। না, তাতে অঞ্জুর কোনো আক্ষেপ নেই! পেশাদার কোচের অর্জন বরং ভারতের হেরে যাওয়াই!

Advertisment

গত ২১ মে বাংলাদেশ দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন অঞ্জু। ভারতের সাবেক এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটারের অধীনে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে হয় সালমাদের ভরাডুবি। তাতেও নিরাশ হননি এই অভিজ্ঞ কোচ। জ্বেলে রেখেছিলেন প্রত্যাশার আলো। সেই আলোই পথ দেখিয়েছে বাংলাদেশকে, পৌঁছে দিয়েছে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বে।

এশিয়া কাপ জয়ের পর ভারতের প্রভাবশালী দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়াকে অঞ্জু জৈন বলেন, এটা বাংলাদেশের জন্য যেমন বিশাল অর্জন, তেমনি আমার জন্যও অনেক কিছু

বাংলাদেশে কাজ করার প্রস্তাব পেয়ে খুব একটা ভাবেননি অঞ্জু। শীঘ্রই দলের সাথে যোগ দিয়েছেন, এরপর দলের দুর্বলতাগুলো খুঁটে খুঁটে করে চলেছেন সমাধান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ দলে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে বেশি চিন্তাভাবনা করিনিবাংলাদেশ দলে যোগ দিয়েই দ্রুত একটা উন্নতি করার চাহিদা ছিলদলটি একটি খারাপ অবস্থায় ছিলআমি চেষ্টা করেছি তাদের মনোবল দৃঢ় করতে

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ওয়ানডে সিরিজে ৫-০ ও টি-২০ সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর বাংলাদেশের মেয়েদের মনোবল হয়ে গিয়েছিল নড়বড়ে। এশিয়া কাপকে সামনে রেখে সেই মনোবলকে মেরামত করেছেন অঞ্জু, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ফেরার পর দলের সমস্যা সমাধানে জোর দিয়েছি আমার সামনে বিশাল চ্যালেঞ্জ ছিলমেয়েদের জন্যও টুর্নামেন্টটা ছিল চ্যালেঞ্জিং

পরিশেষে তিনি শিষ্যদের প্রশংসাই করছেন সাফল্যের ছায়াতলে। অঞ্জু বলেন, ওদের প্রশংসা করতেই হবেযেসব সমস্যা ধরিয়ে দিয়েছিলাম সেগুলোর সমাধান করে মেয়েরা অসাধ্য সাধন করেছে

আরও পড়ুনঃ সালমাদের পুরস্কারের তালিকায় আছে আইফোনও