কোর্টনি ওয়ালশকে কোচ হিসেবে পেয়ে উচ্ছ্বসিত পেসাররা

হিথ স্ট্রিক পরবর্তি বাংলাদেশের বোলিং কোচ নিয়ে অনেক জল্পনা-কল্পনার পর নিয়োগ দেয়া হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক পেসার কোর্টনি ওয়ালশকে। আর বাংলাদেশের পেস বোলিং এর দায়িত্ব নিতে শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় এসেছেন কোর্টনি ওয়ালশ। একদিনের বিশ্রাম নিয়ে সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকালেই বাংলাদেশের পেসারদের নিয়ে অনুশীলনে নেমে পড়েন ওয়ালশ। এদিকে ওয়ালশকে পেয়ে উচ্ছ্বসিত বাংলাদেশের পেসাররা।

2016_02_19_20_05_21_dvvbfafodvvgqw9mv8hmvlgumoxhs8_original

Advertisment

ইংল্যান্ড ও আফগানিস্তান সিরিজের জন্য ঘোষিত প্রাথমিক স্কোয়াডে পেসার আছেন ৮ জন। ইঞ্জুরীর কারণে আপাতত দলের বাইরে মুস্তাফিজ। এদিকে বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা দিতে রাতেই অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশ্যে যেতে হবে বলে ওয়ালশের অধীনে প্রথম দিনের অনুশীলনে ছিলেন না তাসকিন আহমেদ। অধিনায়ক মাশরাফিসহ বাকি পাঁচ পেসার  আল-আমিন হোসেন, রুবেল হোসেন, শফিউল ইসলাম, মোহাম্মদ শহীদ ও কামরুল ইসলাম রাব্বী প্রথম দিনের অনুশীলনে ছিলেন। এছাড়াও ছিলেন তরুণ পেসার আবু হায়দার রনি।

ওয়ালশ কোচ হবার পরেই নিজের অভিজ্ঞতা জানিয়ে অধিনায়ক মাশরাফি বলেছিলেন, “এটা একটি বড় খবর। উনি (কোর্টনি ওয়ালশ) আমার আদর্শ ছিলেন এবং তিনি ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত চুক্তিবদ্ধ হওয়ায় এটা ভাল খবর। তার বিশাল ক্যারিয়ার অভিজ্ঞতা এবং লেভেল তিন কোচিং কোচিং ডিগ্রি আমাদের টেস্ট, ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি সব ফরম্যাটের বোলিং অ্যাটাককে শক্তিশালী করবে। তার বিশাল অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে আমাদের। ড্রেসিংরুমে তার উপস্থিতি অনেক গুরুত্বপূর্ণ হবে।”

এবার প্রথম দিনের অনুশীলন শেষে বাংলা ট্রিবিউনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পেসাররা নিজেদের উচ্ছ্বাসের কথা জানান। রুবেল হোসেন এতো বড় তারকার সাথে কাজ করতে পেরে রোমাঞ্চিত। তিনি বলেন, “এত বড় কিংবদন্তি ক্রিকেটারকে কাছে পেয়ে আমরা প্রত্যেকেই খুব রোমাঞ্চিত ছিলাম। হিথ স্ট্রিকও ছিলন বড় তারকা। যদিও তার চেয়ে অনেক বড় তারকা কোর্টনি ওয়ালশ। আমরা খুব সৌভাগ্যবান এমন একজন কিংবদন্তিকে পেয়েছি।”

কোর্টনি ওয়ালশের কাছ থেকে শেখার অপেক্ষায় রুবেল। এই প্রসঙ্গে এই পেসার বলেন, “চেষ্টা করবো তার কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার। আমি আমার সামর্থ্য অনুযায়ী চেষ্টা করছি নতুন কিছু করার। একটা স্লোয়ার নিয়ে আমি তো চেষ্টা করছিই। এটা নিয়ে তার সঙ্গে কাজ করবো। সঙ্গে আমার শক্তিশালী ও দুর্বল দিকগুলো নিয়ে কথা বলবো। তারপর তার পারমর্শ অনুযায়ী কাজ করবো।  সবমিলিয়ে আশা করছি আমাদের পেসারদের জন্য কোর্টনি ওয়ালশ দারুণ কিছুই করবেন।”

পেসারদের নিয়ে এই অনুশীলনের পরের দিনেই টাইগারদের প্রস্তুতি ম্যাচ। আর সেই প্রস্তুতি ম্যাচে নিজেদের স্বাভাবিক বোলিংটাই করতে বলছেন কোর্টনি ওয়ালশ। এমনটাই জানিয়ে পেসার শফিউল ইসলাম বলেন,  “তিনি বিশ্বমানের বোলার। তার কাছ থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে। আমি ব্যক্তিগত ভাবে তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে চাই। আমার বিশ্বাস বাংলাদেশের ক্রিকেট তার কাছ থেকে অনেক উপকৃত হবে। আজকে ওয়ালশ আমাদের আলাদা করে কিছু করতে বলেননি। কালকে প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য নিজেদের স্বাভাবিক বোলিংটাই করতে বলেছেন। কালকের প্রস্তুতি ম্যাচে আমাদের ভালো করে দেখার সুযোগ পাবেন হয়তো।”

প্রথম দিনের অনুশীলনে আলাদা করে কাউকে কিছু শেখায় নি কোচ। তবে সবাইকে পর্যবেক্ষন করেছেন কোর্টনি ওয়ালশ। এ প্রসঙ্গে জাতীয় দলের পেসার আল-আমিন বলেন, “আজ আমাদের নতুন কোন কিছু শেখায় নি কোচ। আমরা সেন্টার উইকেটে স্পট বোলিং করেছি। উনি আমাদের বোলিং দেখেছেন। জীবন্ত কিংবদন্তির পাশে দাঁড়িয়ে থেকে অনুশীলন করেছি। অন্যরকম অনুভূতি হয়েছে সবার, সবাই ভীষণ রোমাঞ্চিত। আমরা সবাই বোলিং করছি, সবাই আশা করছিলাম তিনি হয়তো কোনও কিছু বলবেন। তার কথায় আমার কিছু জিনিস হয়তো বদলে যাবে। যা কিনা ভবিষ্যতে কাজে দেবে। আমার লক্ষ্য কিভাবে বোলিং করলে সব সময় বলে বাউন্স পাওয়া যাবে। সুইংটা আরও কিভাবে বাড়ানো যাবে এই সব।”
অন্যদিকে জাতীয় দলের আরেক পেসার মোহাম্মদ শহিদ যেন ভাবতেই পারেন নি ওয়ালশ বাংলাদেশের কোচ হবেন! নিজেদের ভাগ্যবান দাবী করে এই পেসার বলেন, “কখনো ভাবিনি তিনি আমাদের বোলিং কোচ হবেন।  আমরা আসলেই খুব সৌভাগ্যবান।  স্ক্রিনে যখন তাকে দেখতাম, খুব ইচ্ছা হতো এই বোলারটাকে যদি দেখতে পেতাম সামনে। আমি খুব রোমাঞ্চিত সামনে থেকে তাকে দেখতে পেরেছি। আশা করি তার অভিজ্ঞতা কাছে লাগিয়ে আমরা আমাদের বোলিংয়ের অনেক উন্নতি করতে পারবো।”

এদিকে কামরুল ইসলাম রাব্বি তো কিছুদিন থেকে কোর্টনি ওয়ালশের বোলিং এর ভিডিও দেখছিলেন, সেটিই উল্লেখ করে এই পেসার বলেন, “আমি শেষ কিছুদিন ধরে ইউটিউবে উনার (কোর্টনি ওয়ালশ) বোলিং দেখছিলাম।  তিনি তো আসলে অনেক বড় লিজেন্ড। ওয়ালশ যখন খেলেন, তখন আমরা অনেক ছোট ছিলাম। আজকে আসার পর বুঝলাম তিনি বেসিক অনেক পছন্দ করেন।  যদিও আজকে তেমন কিছু নিয়ে কাজ করেননি। আমরা সবাই তাকে পেয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত ছিলাম। আশা করি তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারবো।”

ইংল্যান্ড সিরিজে প্রাথমিক স্কোয়াডে না থাকলেও অনুশীলনে ছিলেন তরুণ পেসার আবু হায়দার রনি। ওয়ালশের সাথে কাজ করতে পেরে নিজের উচ্ছ্বাস জানিয়ে রনি বলেন, “শুরু থেকেই আমি খুব রোমাঞ্চিত ছিলাম। একজন কিংবদন্তি আমাদের এখানে আসছে। তার কাছ থেকে আমি কিছু শিখতে পারবো বলে খুবই রোমাঞ্চিত ছিলাম। আমি যেহেতু জুনিয়র, উনার সঙ্গে কাজ করলে অনেক কিছুই শিখতে পারবো। তিনি বলেছেন, প্রথমে কয়েকটা দিন দেখবেন, তারপর আমাদের সমস্যাগুলো নিয়ে কাজ করবেন।”

উল্লেখ্য, আজ (মঙ্গলবার) টাইগারদের শেষ অনুশীলন ম্যাচ। এই ম্যাচে পেসারদের আরো ভালো ভাবে পর্যবেক্ষন করবেন কোর্টনি ওয়ালশ।