Scores

গাভাস্কারের ‘১০ হাজার’ এখনকার ‘১৫-১৬ হাজারের’ সমতুল্য

১৯৭১ সালে অভিষেক, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলেছেন ১৯৮৭ সালে। ১৬ বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ব্যাট হাতে অনেক রেকর্ডের সাক্ষী সুনীল গাভাস্কার। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ইনজামাম উল হক মনে করেন, বর্তমান সময়ে খেললে অর্জনের খাতা আরও ভারি হতো গাভাস্কারের।

সৌরভকে নাসেরের অতি প্রশংসা মনে ধরল না গাভাস্কারের

ভারতের জার্সি গায়ে ব্যাট হাতে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় তুলেছেন গাভাস্কার। টেস্টে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ১০ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করে দেখিয়েছিলেন তিনি। পাঁচদিনের ক্রিকেটে স্যার ডন ব্র্যাডম্যানকে টপকে থেমেছিলেন ৩৪টি শতকে। যা ছিল একসময় রেকর্ড। শেষপর্যন্ত ১২৫ টেস্টে ১০,১২২ রানে থামে গাভাস্কারের ক্রিকেট অধ্যায়।

Also Read - এসএসসির চেয়ারম্যানের দায়িত্বে জয়াবর্ধনে


তবে গাভাস্কার যখন বাইশ গজে লড়তেন, তখন ব্যাটসম্যানদের কাজটা সহজ ছিল না বলে মনে করে ইনজামাম। বর্তমান সময়ে ব্যাটিং বান্ধব উইকেটে খেলা হলেও সেই সময় উপমহাদেশের বাইরে ব্যাটসম্যানদের কঠিন পরীক্ষা দিতে হতো।

সেই বিচারে গাভাস্কারের ১০ হাজার রানকে বর্তমান সময়ে ১৫-১৬ হাজার রানের সাথে তুলনা করছেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক। এ প্রসঙ্গে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে ইনজামাম বলেন, ‘‌আমায় যদি প্রশ্ন করেন, তবে বলব যে সুনীলের সেই সময়ের ১০ হাজার রান এখনকার সময়ে ১৫ হাজার বা ১৬ হাজার রানের সমান। অথবা এর থেকেও বেশি হতে পারত। কিন্তু কোনভাবেই কমতো না।’

গাভাস্কারের ১০ হাজার রানের মাইলফলক ছোঁয়াকে বিশেষভাবে মূল্যায়ন করেন ইনজামাম, ‘সেই সময় অনেক গ্রেট খেলোয়াড়রা ছিলেন। তার আগেও ক্রিকেটে অনেক গ্রেটরা এসেছিলেন। জাভেদ মিয়াঁদাদ, ভিভ রিচার্ডস, গ্যারি সোবার্স, ডন ব্র্যাডম্যান। কিন্তু কেউই ১০ হাজারে পৌঁছনোর কথা ভাবেননি।’‌ 

সেই সময় আর এই সময়ের উইকেটের ফারাকটাও তুলে ধরেন ইনজামাম, ‘‌ফর্ম ভাল থাকলে এখন এক মৌসুমে ১০০০ থেকে ১৫০০ রান করা সম্ভব। কিন্তু সুনীল যখন খেলতেন, তখন পরিস্থিতি এখনকার মত ছিল না। বেশি রান পাওয়ার জন্য এখন পুরোপুরি ব্যাটিং উইকেট তৈরি করা হয়।’

‘আইসিসিও চায় যে ব্যাটসম্যানরা রান করুক, যাতে দর্শকরা উপভোগ করেন। কিন্তু আগেকার দিনে উইকেট মোটেই ব্যাটিংয়ের পক্ষে সহজ ছিল না। বিশেষ করে উপমহাদেশের বাইরে খেলার সময়।’‌– সাথে যোগ করেন তিনি।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

Related Articles

আবিদের অপরাজিত দ্বিশতকের পর কোণঠাসা জিম্বাবুয়ে

করোনায় আক্রান্ত হলেন সাকিবের আরেক সতীর্থ

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে বায়োবাবল মোটেও সম্ভব নয় : শোয়েব

নিজ দেশের ভ্যাকসিন নেবেন না কোহলিরা

আজহার-আবিদের শতকে বড় সংগ্রহের পথে পাকিস্তান