Scores

“গায়ানার কন্ডিশন কীভাবে যেন মানিয়ে গেছে”

‘কন্ডিশন’- উইন্ডিজ সফরে বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পেছনে এই কন্ডিশনকেই দোষারোপ করেছিলেন বেশিরভাগ ক্রিকেটবোদ্ধা।

তবে গায়ানায় অনুষ্ঠিত তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ঠিক উল্টো ব্যাপার। সফরকারী দল হয়েও কন্ডিশন যেন ছিল বাংলাদেশের পক্ষেই। বাংলাদেশ দলের নির্বাচক ও সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমনের মতে, যেভাবেই হোক- গায়ানায় সবসময় কন্ডিশন মানিয়ে নিতে পারে বাংলাদেশ।

Also Read - হেরাথের বোলিং জাদুতে সিরিজ জয় শ্রীলঙ্কার


২০০৭ বিশ্বকাপে এই ভেন্যুতেই বাংলাদেশ হারিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকাকে। ঐ ম্যাচে বাংলাদেশের নেতৃত্বে ছিলেন বাশার। গায়ানা সম্পর্কে তাই ভালোই ধারণা আছে তার। তবে দ্বিতীয় ম্যাচের ভেন্যু হিসেবে থাকছে না গায়ানা। আর তাই সবকিছু বিশ্লেষণ করে বাশারের অভিমত, সিরিজ জয় নিশ্চিত করতে হলে বাংলাদেশকে এই ম্যাচের চেয়েও ভালো খেলতে হবে।

আর এক্ষেত্রে দ্বিতীয় ম্যাচকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখছেন এই সাবেক ক্রিকেটার। সোমবার সংবাদমাধ্যমের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, দ্বিতীয় ম্যাচটা খুবই গুরুত্বপূর্ণতবে সিরিজ জেতার কথা চিন্তা করে মাঠে নামা ঠিক হবে নাএটাকে সাধারণ ম্যাচ হিসেবেই দেখতে হবেযে কোনও সিরিজে প্রথম ম্যাচে বিজয়ী দল মানসিকভাবে অনেক এগিয়ে থাকেসেই হিসেবে বাংলাদেশের সাফল্যের সম্ভাবনা যথেষ্ট।’

উইন্ডিজ যে ভালো দল, এ নিয়ে কোনো সংশয় নেই বাশারের। যদিও টেস্টের চেয়ে ওয়ানডে ফরম্যাটে প্রতিপক্ষ থেকে এগিয়ে বাংলাদেশই; অন্তত সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বিচারে। তবুও দ্বিতীয় ম্যাচে আরও ভালো পারফরম্যান্স আশা করছেন টাইগারদের সিরিজ জয় দেখতে উদগ্রীব এই নির্বাচক, মনে রাখতে হবে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ (উইন্ডিজ) অনেক ভালো দলপরের ম্যাচ জিততে হলে আমাদের আরও উন্নতি করতে হবে. প্রথম ম্যাচের চেয়েও ভালো খেলতে হবে।’

বাশারের চোখে রোববারের এই জয় স্বস্তির। আফগানিস্তানের কাছে টি-২০ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ ও উইন্ডিজের কাছে টেস্ট সিরিজে উড়ে যাওয়ার পর তা হওয়াটাই অবশ্য স্বাভাবিক। আগামী বছর অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপের আগে এসব ওয়ানডে জয় দলকে জোগাবে প্রেরণা।

বাশারের ভাষ্য, অবশ্যই এটা স্বস্তির জয়টেস্ট সিরিজটা আমাদের ভালো যায়নিআমি খুব খুশিকারণ, যে ফরম্যাটে আমরা ভালো খেলি, সেই ফরম্যাটে আমাদের কাছ থেকে ম্যাচটা ছিনিয়ে নিতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজবিশ্বকাপের আগে আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে নিতে যত বেশি সম্ভব ওয়ানডে জয়ের বিকল্প নেই।’

বাংলাদেশের এই জয়ে বড় অবদান ছিল তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানের। ব্যাটিংয়ের জন্য উইকেট কঠিন হলেও দুজনের দায়িত্বশীল ব্যাটিং গড়ে দেয় বাংলাদেশের সম্মানজনক সংগ্রহের ভিত। দলের অন্যতম সেরা দুই ব্যাটসম্যানের এই দারুণ পারফরম্যান্সে রীতিমত মুগ্ধ হাবিবুল বাশার। স্বভাববিরুদ্ধ ধীরগতিতে খেলে তাদের ব্যাটেই প্রাণ পেয়েছে বাংলাদেশের ইনিংস।

বাশার বলেন, পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে সাকিব-তামিম ব্যাটিং করেছেওরা শুরুতেই মারতে গেলে আউট হয়ে যেতোএরপর নতুন ব্যাটসম্যান এসে হয়তো মারতে পারতো নাসাকিব-তামিম দুজনই স্ট্রোক খেলতে পছন্দ করেআমি খুশি, কারণ তারা কেউই অযথা মারতে গিয়ে আউট হয়নি।’

বাশারের অভিমত, শুরুতে সাকিব-তামিম ধরে না খেললে সম্মানজনক যে সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে বাংলাদেশ তা জড়ো করা সহজ হত না। আর এর কারণ, প্রথমদিকে ব্যাট করতে গেলে উইকেট থাকে না ব্যাটসম্যানের পক্ষে। সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, এই উইকেটে শুরুতে রান না হলেও শেষ দিকে রান করা সহজসাকিব-তামিম ৪০ ওভার পর্যন্ত টিকতে না পারলে এত রান হতো নাপরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে পারাই প্রথম ওয়ানডে থেকে আমাদের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি।’

ব্যাটিংয়ের পর বোলিংয়েও এদিন দুর্দান্ত ছিল টাইগাররা। কন্ডিশন মানিয়ে নেওয়া প্রসঙ্গে বাশারের ভাষ্য, কন্ডিশন অনুযায়ী আমরা ভালো বল করেছিগায়ানার কন্ডিশন আমাদের সঙ্গে কীভাবে যেন মানিয়ে গেছে২০০৭ সালেও আমরা ওখানে জিতেছিকাল বোলাররা কন্ডিশন খুব ভালোভাবে ব্যবহার করতে পেরেছে।’

আরও পড়ুন: বোলিংয়ের চেয়েও দুরূহ ছিল ব্যাটিং

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

পরিত্যক্ত উইন্ডিজ-ভারত প্রথম ওয়ানডে

সব ম্যাচ হেরে বিশ্বকাপ শেষ করলো আফগানরা

আফগানিস্তানের ম্যাচে পুলিশ মোতায়েন!

শাস্তি পেল শ্রীলঙ্কা ও উইন্ডিজ

পুরানের শতকের পরও পারল না ক্যারিবীয়রা