গিবসনের সাথে দেশি কোচদের পার্থক্য দেখেন না হাসান

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পেস বোলিং কোচ হিসেবে বিগত এক বছর ধরে কাজ করছেন ওটিস গিবসন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রধান কোচ হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে গিবসনের, একসময় ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রধান কোচ। ক্যারিবীয় এই ক্রিকেট তারকা বাংলাদেশের উঠতি পেসারদের নিয়েও কাজ করছেন। চলতি ক্যারিবীয় সিরিজে তিনি নিজের সাবেক দলেরই প্রতিপক্ষ। 

গিবসনের সাথে দেশি কোচদের পার্থক্য দেখেন না হাসান
হাসান মাহমুদ। ফাইল ছবি

হাসান মাহমুদ, শরিফুল ইসলামের মত যে তরুণরা সাম্প্রতিক সময়ে এসেছেন জাতীয় দলের রাডারে, তাদের নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন গিবসন। তবে তরুণ পেসার হাসান মাহমুদ দেশি কোচদের সাথে গিবসন বা অন্যান্য বিদেশি কোচদের খুব একটা পার্থক্য দেখেন না। তার মতে, প্রত্যেক কোচই একই কৌশল নিয়ে কাজ করেন।

Advertisment

তবে গিবসনের দিকনির্দেশনা বাধ্য ছাত্রের মত শুনছেন চলমান ক্যারিবীয় সিরিজে ওয়ানডে অভিষেক ঘটানো হাসান। তিনি বলেন, ‘সবারই কোচিং থিম আসলে একইরকম হয়। ঘরোয়া কোচ বলেন আর বাইরের যে কোচরা থাকেন, খুবই মিল। এখানে ও (গিবসন) ভালো ভালো দিকনির্দেশনা দিচ্ছে। লাইন, লেন্থ, ইয়র্কার, স্লোয়ার এগুলো নিখুঁত করার জন্য যা বলছে তা করছি।’ 

হাসানের ওয়ানডে অভিষেক হল এমন একটি দলের বিপক্ষে, যে দলের এক ঝাঁক মূল ক্রিকেটার স্কোয়াডেই নেই। বাংলাদেশ তাই হেসে-খেলেই জিতেছে ইতোমধ্যে মাঠে গড়ানো দুটি ওয়ানডেতে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের দ্বিতীয় সারির এই দল না হয়ে যদি অস্ট্রেলিয়া বা ভারতের মত দলের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হত, হাসান কি সেই প্রস্তুতি রেখেছিলেন?

এমন প্রশ্নের জবাবে ২১ বছর বয়সী পেসার বলেন, ‘জি অবশ্যই। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে খেলতে হবে ঐরকম মানসিক দৃঢ়তাই দরকার।’ ক্যারিয়ারের পুরো সময়েই হাসানের এক মন্ত্র- প্রতিপক্ষ যে-ই হোক, যেমনই হোক, পারফরম্যান্সের সাথে কোনো আপোষ নেই। ‘অবশ্যই চেষ্টা থাকবে- আন্তর্জাতিক হোক ঘরোয়া হোক, লাইন অ্যান্ড লেন্থের সাথে কখনো আপোষ করা যাবে না। সাথে গতিও।’– বলেন তিনি।