Scores

ইমার্জিং টিমস এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে বাংলাদেশ

ইমার্জিং টিমস এশিয়া কাপে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে পাকিস্তান অনূর্ধ্ব–২৩ দলের সঙ্গে ম্যাচ টাই করেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব–২৩ দল। পাকিস্তানের ২৩৩ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশও ২৩৩ রান করে।

বাংলাদেশের বিপক্ষে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পাকিস্তান

কক্সবাজার শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে ইমার্জিং এশিয়া কাপে ‘বি’ গ্রুপের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশকে ২৩৪ রানের টার্গেট দেয় পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-২৩ দল। জয়ের জন্য ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক মুমিনুল হকের ৭৫ রানে ভর করে পাকিস্তানকে ভালোই জবাব দিচ্ছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল।

Also Read - টাইগারদের সেরাটা দেয়ার তাগিদ দিলেন কোচ হাথুরুসিংহে


তার আগে জবাব দিতে নেমে বাংলাদেশের শুরুটাও ভালো হয়নি। দলীয় ২৪ রানের মধ্যেই সাইফ হাসান (১০) ও আজমির আহমেদ (১২) ফিরে যান। পরে শান্ত ও মুমিনুল দলের হাল ধরেন। তাদের জুটিতে আসে ৬৩ রান। এরপর ফিরে যান শান্ত (৩০)। শান্তর পর দ্রুতই ফিরে যান নাসির হোসেন (৬)। তবে মোহাম্মদ মিঠুনকে সঙ্গে নিয়ে ৭৩ রানের জুটি গড়েন মুমিনুল। তবে মুমিনুল হককে (৭৫) সরাসরি বোল্ড করেন হুসাইন তালাত। মুমিনুলের পর দ্রুতই ফিরে যান আফিফ হোসেন (১)।

বাংলাদেশের হয়ে আশার আলো দেখানো মিঠুন (৫৩) ফিরে গেলে জয়ের স্বপ্ন দেখা বাংলাদেশ শংকায় পড়ে। তবে শেষ দিকে সাইফউদ্দিনের (১৮) ব্যাটে ম্যাচ টাই করে বাংলাদেশ। শেষ ওভারে জয়ের জন্য বাংলাদেশের ৭ রানের প্রয়োজন ছিল। তবে বাংলাদেশ ৬ রান করলে ম্যাচটি টাই হয়।


আরও দেখুন- বাংলাদেশের ব্যাপারে স্মিথদের ডিন জোন্সের হুঁশিয়ারি


এদিন ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিং নিয়েছিল পাকিস্তান। তাদের লক্ষ্য ছিল, বাংলাদেশের সামনে বড় লক্ষ্য ছুড়ে দেবে। কিন্তু বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ২৩ দলের বোলাররা তাদের চাওয়াটা পুরোপুরি পূরণ হতে দেয়নি। পাকিস্তান অনূর্ধ্ব ২৩ দল ৮ উইকেটে করেছে ২৩৩।

সাইফউদ্দিনের বলে এলবিডব্লু হয়ে ২০ রানের মধ্যে ফিরেছেন পাকিস্তানের দুই ওপেনার ইমরান বাট ও ইমাম-উল-হক। এরপর ১১তম ওভারে অফ স্পিনার নাঈম হাসানের শিকার হয়ে পাকিস্তান অধিনায়ক মোহাম্মদ রিজওয়ান (১২) সাজঘরে ফিরে যান। পরের ওভারে বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদের বলে কোনো রান না করেই জাহিদ আলী বোল্ড।

৩৫ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে কাঁপতে থাকা পাকিস্তানকে লড়াইয়ে ফেরান হারিস সোহেল। আবুল হাসান যদি তার ফিরতি ক্যাচটা হাতে জমাতে পারতেন, ২২ ওয়ানডে ও ৪ টি-টোয়েন্টি খেলা পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান আউট হতে পারতেন ৪ রানেই।

হারিসকে দারুণ সঙ্গ দেন হাম্মাদ আজম। দুজনের পঞ্চম উইকেট জুটি যোগ করে ৮৬ রান। আজমকে ফিরিয়ে এই জুটি ভাঙেন আবুল হাসান। শর্ট মিডউইকেটে মুমিনুল হকের দুর্দান্ত ক্যাচ হওয়ার আগে আজমের রান ৩০। হারিস অবশ্য টিকে ছিলেন আরো কিছুক্ষণ।

ধৈর্যশীল ব্যাটিংয়ের পর ২৮ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান আউট হয়েছেন হঠাৎই ধৈর্য হারিয়ে। নাসুম আউট হওয়ার আগে করেছেন ১০৬ বলে ৬৩ রান। হারিস ফেরার পর পাকিস্তানের অলআউট হওয়া সময়ের ব্যাপার মনে হচ্ছিল। কিন্তু সাতে নামা হোসাইন তালাতের ৪৬ বলে অপরাজিত ৫৭ রানের সুবাদে, পাকিস্তান স্কোর বোর্ডে জমা করে ২৩৩-রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-২৩: ৫০ ওভারে ২৩৩/৮ (ইমাম ২৩, ইমরান ১, সোহেল ৬৩, রিজওয়ান ১২, জাহিদ ০, হাম্মাদ ৩০, তালাত ৫৭*, বিলাল ১১, গোহার ২২, উসামা ১*; সাইফুদ্দিন ৩/৫৪, আবুল হাসান ২/৪০, নাঈম ১/৩০, নাসুম ২/৫৭, নাসির ০/৪৭)।

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩: ৫০ ওভারে ২৩৩/৮ (সাইফ ১০, আজমির ১২, মুমিনুল ৭৫, শান্ত ৩০, নাসির ৬, মিঠুন ৫৩, আফিফ ১, সাইফুদ্দিন ১৮*, আবুল হাসান ৯, নাঈম ৪*; তালাত ২/৪১, মুদাসসর ১/৩০, বিলাল ১/৩০, হাম্মাদ ০/১৪, গোহার ২/৪০, উসামা ২/৫৮, সোহেল ০/১৬)।

ফল: ম্যাচ টাই

ম্যান অব দা ম্যাচ: হুসাইন তালাত

  • মাকসুদুল হক, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম।

Related Articles

এশিয়া কাপের আয়োজক আরব আমিরাত

পাকিস্তানকে হারিয়ে ইমার্জিং কাপের শিরোপা শ্রীলঙ্কার

ইমার্জিং কাপের সেমিতে টাইগারদের প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা

বাংলাদেশের বিপক্ষে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পাকিস্তান

গ্রুপ সেরার লড়াইয়ে পাকিস্তানের মুখোমুখি আজ বাংলাদেশ