চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি নিয়ে আইসিসির সঙ্গে দ্বন্দ্ব ভারতের

0
1307

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআইয়ের সঙ্গে আইসিসির দ্বন্দ্ব নতুন কিছু নয়। এর আগেও লভ্যাংশ ভাগ নিয়ে দ্বন্দ্ব জড়িয়েছিল এই দুই সংস্থা। তবে সেটি কাটিয়ে উঠে ফের আলোচনায় এসেছে আইসিসি ও বিসিসিআই। তবে এবারেরটি আগের চেয়ে ভিন্ন। ওয়ানডে বিশ্বকাপের পরেই আইসিসির বড় ইভেন্ট চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি নিয়ে আইসিসির সঙ্গে দ্বন্দ্ব ভারতের

Advertisment

এই দুই আসর থেকে বড় ধরণের আয় করে থাকে আইসিসি। তবে বর্তমানে টি-টোয়েন্টির চাহিদা অনেক বেশি। এখন অনেক দেশেই অধিক লাভের আশায় ঝুকছে টি-টোয়েন্টির দিকে। গত বছর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হলেও ২০২১ সালে টুর্নামেন্টটির আয়োজক ভারত। সেখানেই বেঁধেছে বিপত্তি।

টি-টোয়েন্টির জনপ্রিয়তার কথা মাথায় রেখে আইসিসি ৫০ ওভারের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিকে ২০ ওভারে আনার প্রস্তাব দিয়েছে বিসিসিআইকে। তবে সেটার বিরোধিতা করেছে বোর্ডটি। আর আইসিসিও চলতি অর্থনৈতিক চক্রে প্রস্তাবিত রাজস্ব ভাগ করে দিতে চায় সদস্য দেশগুলোর মাঝে। সেই ক্ষতির পুষিয়ে নেয়াও ফরম্যাট পরিবর্তন প্রস্তাবের অন্যতম একটি কারণ হতে পারে।

আইসিসির এই প্রস্তাব কোন ভাবেই মেনে নেয় নি দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। শুধু চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি নয়, আগামী ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপও অনুষ্ঠিত হবে ভারতে। বোর্ডের এক কর্তা জানিয়েছেন বিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি জাগমোহন ডালমিয়ার স্বপ্নের একটি অংশ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। তাই তারা কোন মতেই আইসিসির দেওয়া প্রস্তাবটি মেনে নিবে না।

‘ফরম্যাট কোনভাবেই পরিবর্তিত হবে না। আমাদের সাবেক সভাপতি জাগমোহন ডালমিয়ার স্বপ্নের একটা অংশ হিসেবে শুরু হয়েছিল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। ভারতে এই টুর্নামেন্টটি চলাকালীন সময়ে পড়বে তার পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী। প্রস্তাবিত পরিবর্তনটি বিসিসিআইয়ের নজরে এসেছে। আইসিসি অন্যথায় কিছু করলে ভারত শক্ত বিরোধিতা করবে।’

অন্যদিকে এই টুর্নামেন্টের জন্য ভারতীয় সরকারকে কর-মুক্তির দাবি করেছে আইসিসি। কেননা এই করের জন্য ২০১৬ সালে বিপুল আর্থিক অঙ্কের টাকার লোকসান গুনতে হয়েছে আইসিসিকে। এছাড়াও ২০০৬ সালেও একই পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছিলো আইসিসি। তাই এবারে আর কোন ভুল করতে চায় না ক্রিকেটের এই সর্বোচ্চ সংস্থা। ফেব্রুয়ারিতে এক বোর্ড মিটিংয়ে আইসিসি জানিয়েছে কর-মুক্তি না করা হলে ভারতকে সরিয়ে দেওয়া হবে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আয়োজক থেকে এবং একই টাইম-জোনের কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে এই মিনি বিশ্বকাপ ইভেন্টির।

আরও পড়ুনঃ এবারও অভিজ্ঞদের ছাড়াই ‘এ’ দল