SCORE

সর্বশেষ

ছয় উইকেটের পরাজয় দিয়ে শুরু বাংলাদেশের

নিদাহাস ট্রফিতে সূচনাটা সুখকর হলো না বাংলাদেশের জন্য। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ছয় উইকেটের পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হলো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদদের। বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেয়া ১৪০ রানের অল্প লক্ষ্য ভারত টপকে ফেলে ছয় উইকেট হাতে রেখে।

অর্ধশতকের পথে ধাওয়ান

রান তাড়া করতে নেমে ভারতের দুই ওপেনার রোহিত শর্মা এবং শিখর ধাওয়ান প্রথম থেকেই খেলতে থাকেন আক্রমণাত্মক মেজাজে। প্রথম তিন ওভারের সবগুলোতেই রান আসে ঠিক ৯ করে। প্রথম ওভার করেন মুস্তাফিজুর রহমান। ওপেনার শিখর ধাওয়ানের বাউন্ডারির সুবাদে প্রথম ওভারে রান হয় ৯। তাসকিন আহমেদের করা দ্বিতীয় ওভারেও রোহিত শর্মার দুই বাউন্ডারিতে ভর করে রান হয় ৯।

বাংলাদেশের হয়ে প্রথম আঘাত হানেন মুস্তাফিজুর রহমান। রোহিত শর্মার ইনসাইড এজ হয়ে বল আঘাত হানে স্টাম্পে। ১৩ বলে ১৭ রান করে আউট হন রোহিত।

Also Read - টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

তৃতীয় ওভারে বোলিংয়ে ভালো বল করে রুবেল হোসেন দিয়েছিলেন নয় রান। অবশ্য ষষ্ঠ ওভারেই পেলেন প্রতিদান। রুবেলের বলে বোল্ড হন রিশাভ প্যান্ট। ৭ রান করে বিদায় নেন তিনি।  তিনি বোল্ড হন ইনসাইড এজ হয়ে।

এরপর হাল ধরেন সুরেশ রায়না ও শিখর ধাওয়ান।  রিশাভ প্যান্টকে ফেরানোর পর ফেরাতে পারতেন রায়নাকেও। কিন্ত ক্যাচ ছাড়েন মেহেদি হাসান মিরাজ।

রোহিত ও প্যান্টকে বোল্ড করে বাংলাদেশ ক্ষীণ আশা জাগিয়ে তুললেও তা শেষ করে দেয় এ জুটি। ৬৮ রানের জুটি গড়েন দুজন। তাদের জুটি ভাঙেন রুবেল হোসেন। ১ চার ও ১ ছক্কায় ২৭ বলে ২৮ রান করে সুরেশ রায়না ফিরে যান রুবেলের বলে।

৫ চার ও ২ ছক্কায় ৪৩ বলে ৫৫ রানের ইনিংস খেলে ফিরে যান শিখর ধাওয়ান। তাসকিন আহমেদের বলে শূন্যে ভাসিয়ে খেলতে গিয়ে ধরা পড়েন লিটন দাসের হাতে। তবে ততক্ষণে ভারতের জয় অনেকটা নিশ্চিত। মনিশ পান্ডে ও দীনেশ কার্তিক মিলে ম্যাচ শেষ করেন। ১৯ বলে ২৭ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন মনিশ। আট বল ও ছয় উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় ভারত।

এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামে বাংলাদেশ। প্রথম দুই ওভারে দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। তৃতীয় ওভারে জয়দেব উনাদকাতের বলে ইনিংসের প্রথম ছক্কা হাঁকান তামিম। তবে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠার আগেই বিদায় নেন। ছক্কা হাঁকানোর ওভারেই ক্যাচ দেন যুজবেন্দ্র চাহালের হাতে।

পঞ্চম ওভারে শার্দুল ঠাকুরের বলে রিভিউ নিয়ে এলবিডব্লিউ থেকে বাঁচেন তামিম। তারপরের দুই বলে হাঁকান দুইটি চার। কিন্তু তার ইনিংসও দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। এরপরের বলেই ফাইন লেগে ক্যাচ দিয়ে বিদায় হয়েছেন ঠাকুরের শর্ট লেন্থ ডেলিভারি হুক করতে গিয়ে। ১৬ বলে ১৫ রান করে বিদায় নেন তামিম।

এরপর হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস। ৩১ রানের জুটি গড়েন দুজন। সপ্তম ওভারে মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস দুইজনই পান জীবন। মুশফিক জীবন পেলেও তা কাজে লাগাতে পারেননি। ১৮ রান করে বিজয় শঙ্করের অফ স্টাম্পের বাইরের বল এক্সট্রা কাভার দিয়ে খেলতে চাইলেও পারেননি। বল কানায় লেগে জমা পরে দীনেশ কার্তিকের হাতে। ভারতের আবেদন আম্পায়ার নাকচ করলেও রিভিউ নিয়ে মুশফিককে ফেরায় ভারত।

অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৮ বল খেলে মাত্র ১ রান করতে সমর্থ হন। বিজয় শঙ্করের অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বল তুলে মারতে গিয়ে ধরা পড়েন শার্দুল ঠাকুরের হাতে।

৩৪ রানের ইনিংস খেলেন লিটন

লিটন দাসকে সাথে নিয়ে হাল ধরেন সাব্বির রহমান। যোগ করেন ৩৫ রান। রানের গতি ইনিংসজুড়েই ছিল ভারতীয় বোলারদের নিয়ন্ত্রণে। দুইবার জীবন পাওয়া লিটন করেন ইনিংস সর্বোচ্চ ৩৪ রান। দলীয় ১০৭ রানের মাথায় যুজবেন্দ্র চাহালের বলে সুরেশ রায়নার হাতে ক্যাচ দেন লিটন।

সাব্বির রহমান ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২৬ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলেন। তবে তা বাংলাদেশকে বড় সংগ্রহে পৌঁছাতে পারেনি।লোয়ার অর্ডারের কেউ তেমন অবদান রাখতে পারেননি। মিরাজ ফিরেন ৩ রান করে। তাসকিন আহমেদ অপরাজিত ছিলেন ৮ রান করে। ১৩৯ রান করে থামে বাংলাদেশ।

পুরো ইনিংস জুড়ে ভারতের বোলাররা দিয়েছেন ১১ টি ওয়াইড এবং ২ টি নো-বল। তবুও বাংলাদেশ থেমেছে ১৩৯ রান করে। তার জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী ডট বল! পুরো ইনিংসে ৫৭ টি ডট বল ছিল বাংলাদেশের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর বাংলাদেশ ১৩৯/৯, ২০ ওভার
লিটন ৩৪, সাব্বির ৩০, মুশফিক ১৮
উনাদকাট ৩/৩৮, শঙ্কর ২/৩২, চাহাল ১/১৯

ভারত ১৪০/৪, ১৮ ওভার
ধাওয়ান ৫৫, রায়না ২৮, মনিশ ২৭
রুবেল ২/২৪, তাসকিন ১/২৮, মুস্তাফিজুর ১/৩১


আরো পড়ুন : টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ 


 

Related Articles

রুবেল হোসেনের সমস্যা কোথায়?

নিদাহাস ট্রফি থেকে ৪৮২ শতাংশ লাভ!

অসুস্থ রুবেল, দোয়া চাইলেন সবার কাছে

যেখান থেকে শুরু ‘নাগিন ড্যান্স’ উদযাপনের

‘খারাপ করছি দেখেই বেশি চোখে পড়ছে’