জাতীয় দলের জন্য দেশি কোচ চান রফিক

বিশ্বের অনেক প্রতিষ্ঠিত ক্রিকেট দল এখন স্থানীয় কোচদের প্রাধান্য দেওয়ার পথে হাঁটলেও বাংলাদেশ এখনও স্বস্তি খুঁজে পায় বিদেশি কোচে। জাতীয় দলের কোচিং স্টাফ বিদেশি-নির্ভর। যদিও সাম্প্রতিক সময়ে একাধিক ক্রিকেটার বেশ কয়েকবার তুলে ধরেছেন দেশি কোচদের গুরুত্ব।

জাতীয় দলের জন্য দেশি কোচ চান রফিক

Advertisment

জাতীয় দলের কোচিং স্টাফে দেশি কোচদের ঠাই হবে কি না সেই প্রশ্নের উত্তর পাওয়া সময়সাপেক্ষ। তবে সাবেক স্পিনার মোহাম্মদ রফিক মনে করেন, ভারত-অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের মত দেশগুলোর মত বাংলাদেশেরও এখন দেশি কোচদের নিয়ে জাতীয় দলের কোচিং প্যানেল সাজানোর সময় এসেছে।

তিনি বলেন, ‘পুরো পৃথিবী এখন স্থানীয় কোচদের নিয়ে কাজ করছে। দেশিদের নিয়ে কাজ করার উদ্দেশ্য কী? একটা বিদেশি কোচ একটা চুক্তিতে আসে, চুক্তি শেষ তার কাজও শেষ। দেশি কোচরা দেশেই কাজ করতে থাকবে। দেশের কোচের সাথে তো চুক্তি থাকবে না, সে আজীবন দেশকে দিতে পারবে। তাই আমি মনে করি দেশি কোচ রাখা খুব গুরুত্বপূর্ণ।’

খেলোয়াড়ি জীবনের সুবাদে ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার রফিকের বন্ধুসম। সেই শচীনের কাছ থেকে স্থানীয় কোচ রাখার যে ব্যাখ্যা পেয়েছিলেন রফিক, তাও শোনালেন, ‘কিছুদিন আগে ভারতে ঘুরে আসলাম। তখন টেন্ডুলকারের সাথে কথা বলেছি। ও বলেছে, প্রত্যেকটা ডিপার্টমেন্টে আমাদের লোক থাকে। আমরা কোনো বিদেশি অনুমোদন করব না। আমি জিজ্ঞেস করলাম, কেন? বলল, দেখো, যখন দক্ষিণ আফ্রিকার কেউ কোচ ছিল আমরা অনেক ঝামেলায় পড়েছিলাম, দল এলোমেলো হয়েছে। এখন আমাদের নিজস্ব কোচ কাজ করছে, যেটা গোছানো যাবে, নিজেরাই চাকরি দিতে পারব। এ কারণেই ভারত এত ভালো ফল করছে।’ 

রফিক মনে করেন, বিদেশি কোচদের চেয়ে নিবেদনের দিক থেকে এগিয়ে থাকেন দেশি কোচরা। দেশি কোচ যেভাবে নিজেকে নিঙরে দেন, বিদেশিরা সেই হিসাব করেন চুক্তি অনুযায়ী।

রফিক বলেন, ‘যদি বাংলাদেশেও নিজস্ব স্টাফ থাকে, ভালোমন্দ যা-ই হোক ভাগাভাগি করা যাবে। বিদেশি তা করবে না। চুক্তি শেষ হলে বিদেশিরা টাকা কামিয়ে চলে যায়।’