“জাতীয় দলে আসতে হলে অসাধারণ পারফর্ম করতে হবে”

0
1425

জাতীয় দলের নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাকের মতে, জাতীয় ক্রিকেট লিগে প্রতি বছরই আগের চেয়ে উন্নতি হচ্ছে এবং প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে অসাধারণ খেলেই জাতীয় দলে আসতে হবে- এটাও উল্লেখ করেছেন রাজ্জাক।

জাতীয় দলে আসতে হলে অসাধারণ পারফর্ম করতে হবে (2)
আব্দুর রাজ্জাক

গত কয়েক আসর ধরেই ঘরোয়া ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করতে হলে ফিটনেস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয় ক্রিকেটারদের। ঘরোয়া ক্রিকেট প্রতিবছরই নতুন নতুন নিয়ম যুক্ত হওয়ায় এসব উন্নতির লক্ষণ বলেই মনে করেন রাজ্জাক।

Advertisment

তিনি বলেন, “এক এক করে সিস্টেম যুক্ত হচ্ছে। এখন যেমন ফিটনেস পরীক্ষা। তার আগে হোটেলে রিপোর্টিং করতে হত। এখন প্রত্যেক বিভাগে আলাদা ক্যাম্প হচ্ছে। এগুলো প্রক্রিয়ার মধ্যেই আছে। আমার কাছে মনে হয় সুন্দর প্রক্রিয়াতেই এগোচ্ছে। বৃষ্টির কারণে কোনো সমস্যা না হলে যথেষ্ট প্রতিযোগিতা হবে। প্রত্যেক বছরই কিছু না কিছুতে উন্নতি হচ্ছে।”

ম্যাচের ফলাফল এবং খেলোয়াড়দের ভালো পারফরম্যান্সও উন্নতির লক্ষণ। সব খেলোয়াড়দের মধ্যেই ভালো খেলার প্রবণতাকেও ইতিবাচক দিক হিসেবে দেখছেন তিনি।

রাজ্জাক বলেন, “আগে বেশি ড্র হত। এখন প্রায় ম্যাচেই ফলাফল বের হয়। তার মানে প্রতিযোগিতা বেড়েছে। প্রত্যেক খেলোয়াড় চায় একশ রান করতে, পাঁচ উইকেট পেতে। এটা উন্নতির লক্ষণ। আগে এক-দুইজন ছিল। এখন ১১ জনের সাথে বাইরের ওরাও ভালো করতে চায়। ২০০-৩০০ করা, ৫-৬ উইকেট পাওয়ার সাহস হয়েছে।”

জাতীয় দলের জায়গাটি কারো জন্যই স্থায়ী না রাজ্জাক
আব্দুর রাজ্জাক

ঘরোয়া ক্রিকেটের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করা হয় কিনা এই প্রশ্নের জবাবে রাজ্জাক বলেন, এনসিএল, বিসিএল, ডিপিএল ও বিপিএল- এসব টুর্নামেন্টের পারফরম্যান্সই মূল্যায়ন করা হয়। তবে জাতীয় দলের আসার জন্য দেখাতে হয়, অসাধারণ পারফরম্যান্স। তাছাড়া সব খেলোয়াড় জাতীয় দলের দৃষ্টিতে থাকে বলেও খোলসা করেন তিনি। উদাহরণ হিসেবে দেখান, তুষার ইমরানকে।

রাজ্জাকের ভাষায়, “আমাদের পারফরম্যান্স দেখাই হয় এই ২-৩টি খেলায়- এনসিএল, বিসিএল, ডিপিএল আর এখন বিপিএল। এখানে যারা পারফর্ম করে সাধারণত তারাই থাকে। তারপরও সন্দেহ থাকার কথা না। এমন কিছু হতে পারে- কিছু খেলোয়াড় থাকে, যারা প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটেই শুধু খেলছে। তুষার ইমরানের কথা ধরুন, ভালো খেলছে, কিন্তু এখন কি ওকে নেওয়া সম্ভব?”

“এসব অভিযোগ থাকবে। এ নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। মূল ব্যাপার হল- যাদের নিয়ে জাতীয় দল চিন্তা করছেন তাদের ঠিক পথে নিতে পারছি কি না। আমরা চাই সব খেলোয়াড় টুর্নামেন্টগুলো খেলুক। বেশি খেললে নিজের কাছেও পরিস্কার থাকবে। জাতীয় দলে কিছু জায়গা থাকে একদম পাকাপোক্ত। ঐ জায়গাতে কাউকে আসতে হলে অসাধারণ পারফরম্যান্স করে আসতে হবে। এটা খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। যদি অভিযোগ করে থাকে, হয়ত এরকম ব্যাপার।”

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।