জয়ের জন্য ৩৩২ রানের পাহাড় টপকাতে হবে বাংলাদেশকে

লাহিরু থিরিমান্নেকে আউট করে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের উল্লাস। যদিও ম্যাচে মাত্র একবারই এমন উল্লাসের সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশ
লাহিরু থিরিমান্নেকে আউট করে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের উল্লাস। যদিও ম্যাচে মাত্র একবারই এমন উল্লাসের সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশ

মোঃ সিয়াম চৌধুরী

মেলবোর্নে বিশ্বকাপের ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে বাংলাদেশকে ৩৩৩ রানের বিশাল টার্গেট দিয়েছে শ্রীলঙ্কা। নির্ধারিত ৫০ ওভারে মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে শ্রীলঙ্কা সংগ্রহ করেছে ৩৩২ রান।

Advertisment

টস জিতে ব্যাট করতে নামা শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভালো শুরু করতে পারত বাংলাদেশ, কিন্তু প্রথম দিকে লাহিরু থিরিমান্নের সহজ ক্যাচ ফেলে দেন এনামুল হক বিজয়। মাশরাফির নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে দিলশানের আরেকটি ক্যাচ ছুটে যায় উইকেটরক্ষক ও স্লিপ ফিল্ডারের মাঝখান দিয়ে। এর একটু পরই উইকেটে সেট হয়ে মারমুখো হয়ে উঠেন দুই ওপেনার দিলশান ও থিরিমান্নে।

হাফ সেঞ্চুরির পর থিরিমান্নে ফিরে যান প্যাভিলিয়নে। ৭৮ বলে ৫২ রানের ধীরগতির ইনিংস খেলার পর রুবেল হোসেনের বলে তাসকিনের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিণত হন তিনি। কিন্তু একপ্রান্ত আগলে রেখে বোলারদের উপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকেন দিলশান।

দ্বিতীয় উইকেটে সাঙ্গাকারা মাঠে নামলে রানের গতি বেড়ে যায় লঙ্কানদের। দিলশানের সাথে সমানতালে চার-ছক্কা হাঁকাতে থাকেন অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান। ইনিংসের শেষ ওভারে মাত্র ৭৩ বলে সেঞ্চুরি তুলে নেন কুমার সাঙ্গাকারা। এর একটু আগে সেঞ্চুরি পূর্ণ করা দিলশান পৌঁছে যান দেড়শ রানের ঘরে। ২২০ মিনিট উইকেটে টিকে থেকে ১৪৬ বলে ১৬১ রান করেন দিলশান। কোনো ছক্কা না মারলেও হাঁকিয়েছেন ২২টি চার। মাত্র ৭৬ বল মোকাবেলা করে সাঙ্গাকারা খেলেন ১০৫ রানের ঝড়ো ইনিংস। ইনিংসের একমাত্র ছক্কার পাশাপাশি তিনি হাঁকিয়েছেন ২৩টি চার।

বাংলাদেশের বোলাররা শুরুতে ভালো বল করলেও ইনিংসের শেষ অর্ধে রানের লাগাম আটকে রাখতে পারেননি। সবচেয়ে খরুচে ছিলেন তাসকিন আহমেদ, ১০ ওভার বল করে ১টি মেডেন পেলেও দিয়েছেন ৮২ রান। একমাত্র উইকেটটি শিকার করা রুবেল ৯ ওভারে দিয়েছেন ৬২ রান। তুলনামূলক ভালো বল করেছেন অধিনায়ক মাশরাফি, ১০ ওভারে দিয়েছেন ৫৩ রান, যদিও শুরুতে ইকোনোমি রেটটা ছিল বিস্ময়কররকম ভালো।

এই ম্যাচ জিতলে কোয়ার্টার ফাইনাল অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে বাংলাদেশের। কিন্তু জিততে হলে টপকাতে হবে ৩৩২ রানের পাহাড়। শঙ্কা আরেকটা- এবারের আসরে রান তাড়া করে জিতেছে খুব কম দলই, আজ তো আবার লক্ষ্য ৩০০ রানেরও বেশী।

জয় পেতে হলে এখন তাকিয়ে থাকতে হবে ব্যাটসম্যানদের দিকে।