জয়ের সুবাস পাচ্ছে বাংলাদেশ

নেপালের বিপক্ষে বড় জয়ের সুবাস পাচ্ছে বাংলাদেশ। এসএ গেমসের পুরুষ ক্রিকেট ইভেন্টের অষ্টম ম্যাচে জয়ের জন্য নেপালের প্রয়োজন ১৫৬ রান। তবে টাইগারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে নেপাল কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। 

Advertisment

এই প্রতিবেদন লেখার সময় ১৪ ওভার ব্যাট করে ৮০ রান জড়ো করতেই নেপাল ৬টি উইকেট হারিয়ে ফেলেছে। বাংলাদেশের পক্ষে তানভীর ইসলাম ও মেহেদী হাসান দুটি এবং সুমন খান ও সৌম্য সরকার একটি করে উইকেট শিকার করেছেন।





দলীয় ১১ রানেই ওপেনার পরশ খাড়কাকে হারায় নেপাল। বল হাতে উজ্জ্বল পরশ ব্যাট হাতে ছিলেন মলিন। এরপর দলীয় ১২ রানে পবন সরফ ও ১৪ রানে আরিফ শেখকেও হারায় স্বাগতিক দল। দিপেন্দ্র (১৬) প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেই ব্যর্থ হন। তবে অধিনায়ক জ্ঞানেন্দ্র মাল্লা ৩৪ রান করে অপরাজিত রয়েছেন।

এর আগে টস জিতে নেপাল প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। নেপালের সিদ্ধান্ত যে ভুল ছিল তার প্রমাণ করতে সময়ক্ষেপণ করেননি আলোচিত অলরাউন্ডার পরশ খাড়কা। দলীয় ৭ রানেই তিনি সাজঘরে ফেরান ওপেনার নাইম শেখকে। এরপর সৌম্য সরকারকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন শান্ত। অবশ্য উইকেটে সৌম্যও উইকেটে থিতু হতে পারেননি। তাকেও শিকার করেন পরশ, তিনিও নাইমের সমান ৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন।






২ ওপেনারকে হারিয়ে দল যখন চাপে, তখন প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি সাইফ হাসানও। দলকে হতাশ করে তিনি কোনো রান না করেই আউট হয়ে যায়। এতে সব চাপ বর্তায় শান্তর কাঁধে। শান্ত অবশ্য দেখেশুনেই খেলতে থাকেন। যদিও তাকে সঙ্গ দেওয়া ইয়াসির আলী ধরেন প্যাভিলিয়নের পথ। তার আগে ১৪ রান করেছেন ১৫ বলের মোকাবেলায়। তবে আফিফ হোসেন ধ্রুবকে সঙ্গে নিয়ে শান্তর দায়িত্বশীল ব্যাটিং দলের বিপর্যয় সামাল দেয়। ইনিংসের শেষ পর্যন্ত অবশ্য তাদের জুটি অবিচ্ছিন্ন ছিল না। তবে দুজনই তুলে নেন অর্ধ-শতক।

সাজঘরে ফেরার আগে শান্ত করেন ৭৫ রান, ৬০ বলের মোকাবেলায়। হাঁকিয়েছেন ৪টি করে চার ও ছক্কা। বিধ্বংসী ছিলেন আফিফ। ২৮ বলে ৫২ রান করেন ৬টি চার ও ১টি ছক্কার সহায়তায়। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে দলীয় সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৫৫ রান। নেপালের পক্ষে পরশ খাড়কা একাই শিকার করেন তিনটি উইকেট। এছাড়া দিপেন্দ্র সিং পান দুটি উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

টস: নেপাল

বাংলাদেশ ১৫৫/৬ (২০ ওভার)
শান্ত ৭৫, আফিফ ৫২
পরশ ১৫/৩

নেপাল ৮০/৬ (১৪ ওভার)
মাল্লা ৩৪, দিপেন্দ্র ১৬, পরশ ৯
তানভীর ২০/২, মেহেদী ৩০/২