টাইগারদের অনুশীলন-বিভ্রান্তি

0
1389

নিদাহাস ট্রফির ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে কৃত্রিম আলোতে। দিনের ভাগ শেষ হয়ে যাওয়ার পর টি-২০ ম্যাচ শুরুর এই রেওয়াজ অবশ্য বহুল ব্যবহৃত। সেক্ষেত্রে এটি অস্বাভাবিক নয়। তবে অস্বাভাবিক অন্য কিছু ঘটেছে কলম্বোয়।

টাইগারদের অনুশীলন-বিভ্রান্তি

Advertisment

বৃহস্পতিবার ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে নিদাহাস ট্রফির মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ। নিজেদের প্রথম ম্যাচকে সামনে রেখে দুই দিন অনুশীলন করেছে টাইগাররা। অথচ এ দুই দিনের একদিনও কৃত্রিম আলোতে অনুশীলন করা সম্ভব হয়নি।

প্রখর রোদে অনুশীলন করা বাংলাদেশ দল তাই যথাযথ প্রস্তুতি নিতে পেরেছে কি না, সেই প্রশ্ন থাকছেই। দলের পক্ষ থেকে অবশ্য এসএলসির কাছে ফ্লাডলাইটে অনুশীলনের সুযোগ চাওয়া হয়েছিল। প্রথমে এই সুবিধা দেওয়ার কথা বললেও শেষ পর্যন্ত কথা রাখেনি শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড। ফলে ‘রাতের আলোতে’ অনুশীলন ছাড়াই বৃহস্পতিবার ভারতের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ, ফ্লাডলাইটের নিচে।

এ প্রসঙ্গে মুশফিকুর রহিম বলেন, ‘আমাদের অনুশীলন হওয়ার কথা ছিল বিকেলে। বিকেলে অনুশীলন করলে সেন্টার উইকেটে নেট ব্যবহার করা যাবে না। সেন্টার উইকেটে নেট না করতে পারলে বিকেলে অনুশীলন করে লাভ নেই। আমাদের গতরাতেই (মঙ্গলবার) জানানো হয়েছে বিষয়টা।’

দলের সাথে থাকা নির্বাচক হাবিবুল বাশারও জানালেন একই কথা। তার দাবি, ফ্লাডলাইটে প্রস্তুতি করলে সেন্টার উইকেট ব্যবহার করা যাবে না। আর এজন্যই পাল্টেছে অনুশীলনের সূচি। অন্য কোনো কারণ থাকার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘ফ্লাডলাইটে ব্যাটিং ও ফিল্ডিং করাটা দরকার ছিল। মাঝ উইকেটে যেহেতু নেট করা যাবে না, আমরা তাই সকালে এসেছি। এখানে মনে হয় না অন্য কিছু আছে।’

অবশ্য প্র্যাকটিস নিয়ে এমন টানাপড়েনে কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না বলে বিশ্বাস অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ্‌ রিয়াদের। তার ভাষ্য, ‘গত কিছুদিনে আমরা ফ্লাডলাইটে অনেক খেলেছি। আমরা তো শ্রীলঙ্কান কন্ডিশন জানিই। অনেকটা আমাদের মতোই। মনে হয় না এতে কোনো সমস্যা হবে।’

আরও পড়ুনঃ ম্যাচ প্রিভিউঃ বাংলাদেশ বনাম ভারত