Scores

টানা পাঁচ জয় প্রাইম ব্যাঙ্কের

প্রাইম ব্যাঙ্কের দুই জয়ের নায়ক
প্রাইম ব্যাঙ্কের দুই জয়ের নায়ক

ব্যাটিংয়ে পাকিস্তানের রাফাতউল্লাহ মোহমান্দের শতক আর বোলিংয়ে ফাস্ট বোলার আল-আমিন হোসেনের পাঁচ উইকেট। সব মিলিয়ে প্রাইম ব্যাঙ্ক ক্রিকেট ক্লাব ছিল অপ্রতিরোধ্য। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে অনেকটা উড়িয়ে দিয়ে টানা পাঁচ ম্যাচে জয় পেয়েছে প্রাইম ব্যাঙ্ক।

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে তৃতীয় ওভারেই উইকেট হারায় প্রাইম ব্যাঙ্ক। মোহাম্মদ শরীফের বলে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন নাহিদুল। আগের ম্যাচে শতক হাঁকানো মেহেদি মারুফ এ ম্যাচে বিদায় নেন ১৭ রান করে। তিনিও ছিলেন শরীফের শিকার। এরপর জাকির হাসানকে নিয়ে রাফাতউল্লাহ ৪৭ রান যোগ করেন। ২৬ রানের ইনিংস খেলে জালাল সাক্সেনার বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন জাকির।

৭৯ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে প্রাইম ব্যাঙ্ক চাপে পড়লেও রাফাতউল্লাহ ও আল-আমিনের ৫৩ রানের জুটিতে খেলায় ফিরে আসে তারা। আসিফ আহমেদকে নিয়ে রাফাতউল্লাহ ৯২ রান যোগ করলে বড় স্কোরের পথে এগিয়ে যায় প্রাইম ব্যাঙ্ক।

Also Read - গাজী গ্রুপের জয়রথ চলছে


অসাধারণ ব্যাটিং করেন ৪০ বছর বয়সী রাফাতউল্লাহ। দলীয় ২২৪ রানের মাথায় আউট হন তিনি। তার উইকেট নেন শরীফ। তবে ফেরার আগে খেলেন ১২৮ রানের ইনিংস। হাঁকান ১০ চার ও ৬ ছক্কা।


আরো পড়ুনঃ গাজী গ্রুপের জয়রথ চলছে 


সালমান হোসেনের সাথে আসিফ ৫৮ রানের জুটি গড়লে বড় স্কোর পায় প্রাইম ব্যাঙ্ক। শেষ ওভারে অর্ধশতক থেকে তিন রান দূরে থেকে সৈয়দ রাসেলের শিকার হন আসিফ। ২৭ বলে ৩৩ রান কয়রে অপরাজিত থাকেন সালমান।

২৮৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। পঞ্চম বলেই আঘাত হানেন আল-আমিন হোসেন। উইকেট রক্ষক জাকিরকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান ইজাজ (৪)। পরের ওভারে নাহিদুল সাজঘরে ফেরান আরেক ওপেনার হাসানুজ্জামানকে। দুই বল পরে মাহমুদুল হাসান তালুবন্দী হন আল-আমিনের হাতে। এক ওভারেই দুই উইকেট নেন নাহিদুল। পরের ওভারেও উইকেট পান আল-আমিন। জালাল সাক্সেনা ফিরে যান জাকিরের হাতে ক্যাচ দিয়ে।

তিন ওভারে চার উইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে যায় রূপগঞ্জ। শুরুতেই দিক হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে তারা। প্রাইম ব্যাঙ্কের বোলিং তোপে দাঁড়াতেই পারেনি রূপগঞ্জের টপ অর্ডার।

পঞ্চম উইকেটে ইয়াসির আলি ও নাঈম ইসলাম ৫৩ রানের জুটি গড়লেও তাতে কাটেনি বিপর্যয়। ২০ রান করে নাজমুল ইসলামের বলে বোল্ড হন ইয়াসির। এরপর মোশাররফ হোসেন রুবেলকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়েন নাঈম ইসলাম। তবে রানের গতি ছিল প্রাইম ব্যাঙ্কের বোলারদের নিয়ন্ত্রণে। ৬৬ রানের জুটি গড়েন দুজন। ৬৩ বলে ৪৩২ রান করেন মোশাররফ। এরপর শরীফকে নিয়ে আরো ৬৪ রানের জুটি গড়েন নাঈম। নাঈমের দৃঢ়তা ও এ দুইটি জুটি রূপগঞ্জকে সম্মানজনক স্কোর এনে দেয়।

শেষে আবারো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেন আল-আমিন হোসেন। ৩৪ রান করা মোহাম্মদ শরীফকে বোল্ড করেন তিনি। নিজের পরের ওভারে বোল্ড করেন ৯৫ রান করা নাঈম ইসলামকে। নাঈমের ১২৭ বলে ৯৫ রানের ইনিংসটিতে ৭ টি চার ও ১ টি ছক্কা ছিল। এক বল পরেই বোল্ড করেন শাহীন হোসেনকে। রূপগঞ্জের শেষ উইকেট তুলে নেন নাজমুল। ৬৬ রানের বড় জয় পায় প্রাইম ব্যাঙ্ক।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ প্রাইম ব্যাঙ্ক ২৮৪/৬, ৫০ ওভার
রাফাতউল্লাহ ১২৮, আসিফ ৪৪, সালমান ৩৩*
শরীফ ৩/৪২, জালাল ১/৩৮

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ২১৮/১০, ৪৯.২ ওভার
নাঈম ৯৫, মোশাররফ ৪২, শরীফ ৩৪
আল-আমিন ৫/৪৯, নাজমুল ২/৩৫

-আজমল তানজীম সাকির, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম ডট কম 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ডিপিএল

লম্বা সময়ের জন্য মাঠের বাইরে ইমরুল কায়েস

সিলেটে দলবদল করলেন জাতীয় দলের ‘১৬’ ক্রিকেটার

‘ভারসাম্যপূর্ণ’ দল নিয়ে রোমাঞ্চিত রুবেল

বড় দলের ‘বড় চ্যালেঞ্জ’ টের পাচ্ছেন আকবর