SCORE

সর্বশেষ

টি-টোয়েন্টিকে অবজ্ঞা করে বিপাকে শাস্ত্রী

টি-২০ ফরম্যাটকে তুচ্ছজ্ঞান বা অবজ্ঞা করে ভক্তদের রোষানলে পড়েছেন ভারত জাতীয় দলের কোচ রবি শাস্ত্রী।

প্রধান নির্বাচকের সোহানকে দলে না রাখার কারণ ব্যাখ্যা

সম্প্রতি শ্রীলঙ্কাকে টি-২০ সিরিজে দাপটের সাথে হোয়াইটওয়াশ করে চলতি বছরে নিজেদের ক্রিকেটীয় ক্যালেন্ডারের ইতি ঘটিয়েছে ভারত। তাতে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা দলটির সমর্থকরা যখন তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলবেন, তখনই টি-২০ ক্রিকেট নিয়ে বেফাঁস এক মন্তব্য করে বসেন রবি শাস্ত্রী।

Also Read - ডিপিএল নয় বিসিএল আয়োজনের পথে বিসিবি

সম্প্রতি শাস্ত্রী টি-২০ ক্রিকেটকে অবজ্ঞা করে বলেন, টি-২০’কে গুরুত্বই দেন না তারা! শাস্ত্রীর ভাষ্য ছিল, টিটোয়েন্টি? আমরা কেয়ার করি না হার কিংবা জয়ে কোনো কিছু যায়আসে না তবে তরুণদের এখানে সুযোগ দিলে ২০১৯ সালে (বিশ্বকাপ) কারা থাকতে পারবে, সেটা বোঝা যাবে

শাস্ত্রীর এমন বক্তব্যে ফুঁসে উঠেছে ভারতীয় সমর্থকরা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে রীতিমতো প্রতিবাদের ঝড় তুলেছেন তারা। বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ক্রিকেট বোর্ডের অধীনস্থ কোচ হয়ে তিনি কীভাবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের স্বীকৃত একটি ফরম্যাটকে অবজ্ঞা করেছেন, সেই প্রশ্ন তুলছেন দেশটির ক্রিকেট-প্রেমীরা।

টি-২০’তে ভারতের অবস্থান চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানেরও পরে। এক ভক্ত সেদিকে ইঙ্গিত করে বলেন,  ‘সে কথা কীভাবে বলতে পারেটিটোয়েন্টি কেয়ার করি না! ফরম্যাটে আমরা পাকিস্তানের পরই র‍্যাংকিংয়ে দ্বিতীয় দল, আর সে বলছে কেয়ার করি না! তা, যদি কেয়ার না করো, তাহলে হেড কোচের পদ ছেড়ে দিয়ে বয়সভিত্তিক দলের দায়িত্ব নাও ভারতের জন্য সব সংস্করণই গুরুত্বপূর্ণ

আরেক ভক্ত তো রীতিমতো শাস্ত্রীকে বের করে দেওয়ার দাবি তুলেছেন! টুইটারে তিনি লিখেছেন, টিটোয়েন্টি কেয়ার করেন না? এই লোকটাকে (শাস্ত্রী) যত দ্রুত সম্ভব বের করে দাও

অবশ্য কিছু কিছু সমর্থক আছেন শাস্ত্রীর পক্ষেই। তারা বলছেন, টি-২০’র চেয়ে শাস্ত্রীর টেস্ট ও ওয়ানডেতে বেশি মনোযোগ দেওয়া সময়োপযোগী এক সিদ্ধান্তই! তবে তাদের এমন সমর্থনও দুয়োর হাত থেকে বাঁচাতে পারছে না বিতর্ককে উসকে দেওয়া শাস্ত্রীকে।

আরও পড়ুনঃ প্রধান নির্বাচকের সোহানকে দলে না রাখার কারণ ব্যাখ্যা

Related Articles

“ভারত খেলছে না, শুধু কফিই খাচ্ছে”

লর্ডস টেস্টেও হারল ভারত

মুরালি বিজয়ের তিক্ত রেকর্ড

ইমরানের আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দিলেন গাভাস্কার

লিডের পাহাড় গড়ছে ইংল্যান্ড