Scores

রুশো নাকি সাকিব ? নাকি অন্য কেউ?

 

ফাইনালের মধ্য দিয়ে শুক্রবার পর্দা নামছে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের। ঢাকা ডাইনামাইটস ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স দুই দল লড়াই করবে শিরোপার জন্য শুক্রবারের ফাইনালে। শিরোপার লড়াই ছাড়াও দর্শকদের চোখ থাকবে আরেকটি লড়াইয়ের দিকে। সেটি হচ্ছে ম্যান অফ দ্য টুর্নামেন্ট হওয়ার লড়াইয়ে।

রুশো নাকি সাকিব? নাকি অন্য কেউ?

প্রথম বিপিএলে অসাধারণ অলরাউন্ড নৈপুণ্য দেখিয়ে সেই পুরস্কার পান সাকিব আল হাসান। দ্বিতীয় আসরেও পুনরায় টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার পান সাকিব আল হাসান। ২০১৫ সালে তৃতীয় বিপিএলে পুরস্কারটি জিতে নেন পাকিস্তান বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ খেলোয়াড় আশার জাইদি। জাতীয় দলের আরেক অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ পুরস্কারটি পান ২০১৬ বিপিএলে। সর্বশেষ বিপিএলে এই পুরস্কারের মালিক ছিলেন ক্যারিবীয় তারকা ক্রিস গেইল।

Also Read - নিরানব্বইয়ের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের জয়কে ‘সন্দেহজনক’ দাবি!


২০১৯ বিপিএলে অনেকেই ভালো করেছেন ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের দিক দিয়ে, তবে টুর্নামেন্ট সেরা হিসেবে ২/৩টি নামই আগে আসছে বেশি।

বিপিএল ৬ এ সেরা হওয়ার তালিকায় সবার আগে আছেন ঢাকা ডাইনামাইটসের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। চলমান আসরে বল হাতে যুগ্মভাবে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী সাকিব। তার ও তাসকিন উভয়েরই ঝুলিতেই আছে ২২টি করে উইকেট এই আসরে। সাকিবের সামনে সুযোগ আছে একটি উইকেট পেয়ে এককভাবে এই আসরের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী হওয়ার। ব্যাট হাতেও কম যান নি ঢাকার অধিনায়ক। ১৪ ম্যাচে ২২ গড়ে দুই অর্ধশতকের সাহায্যে করেন ২৯৮ রান। অলরাউন্ড নৈপুণ্যে দলকে যদি ফাইনালে শিরোপা জেতাতে পারেন তবে অনেকটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায় ৩য় বারের মতো এই পুরস্কার জিততে যাচ্ছেন সাকিব।

সাকিবের থেকে বেশি পিছে নেই রংপুর রাইডার্সের ব্যাটসম্যান রাইলি রুশো। এক আসরে বিপিএলের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড ভাঙ্গেন রুশো চলতি বিপিএলে। ২০১২ বিপিএলে বরিশাল বুলসের হয়ে ৪৮৬ রান করেন আহমেদ শেহজাদ। ৫৫৮ রান করে সেই রেকর্ড ভাঙ্গেন রুশো এইবার। ঢাকা যদি চ্যাম্পিয়ন না হয় তবে তার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

ঢাকা ডাইনামাইটসে সাকিবের সতীর্থ সুনীল নারিনেরও যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে এই পুরস্কার পাওয়ার। চলমান আসরে ঢাকার এই ওপেনার ব্যাট হাতে রান করেছেন ২৭৯ ও বল হাতে নিয়েছেন ১৮ উইকেট। ফাইনালে দারুন একটি পারফরম্যান্স দেখাতে পারলে তার উজ্জ্বল সম্ভাবনা তৈরী হবে এই পুরস্কার জয়ের।

তাদের বাইরে কারো নাম আসলে তা হবে ১৪ ম্যাচে ২১ উইকেট পাওয়া ঢাকার রুবেল হোসেন ও ১২ ম্যাচে ১৮ উইকেট পাওয়া কুমিল্লার তরুন বোলার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের। তবে সাকিব বা রুশোকে পিছে ফেলে বাকিদের পুরস্কারটা জেতা বেশ কঠিনই হবে মনে হচ্ছে।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

আইপিএলের মত লাভের ভাগ চায় ফ্র্যাঞ্চাইজিরা

বিপিএলে হেলস-রুশোর কীর্তি আইপিএলে মনে করালেন বেয়ারস্টো-ওয়ার্নার

চোট নিয়েও খেলছেন আবাহনীর সাইফউদ্দিন

বিপিএলকে ‘প্রস্তুতির বাধা’ মনে করেন না রিয়াদ

বিপিএলের চোট কাটিয়ে ওয়ার্নারের রাজসিক প্রত্যাবর্তন