Scores

টেস্টের পর ওয়ানডে সিরিজে যে বিশ্বরেকর্ডের অপেক্ষায় সাকিব

উইন্ডিজ সিরিজের আগেও নিশ্চিত ছিলো না এবছর সাকিব আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে পারবেন কিনা। সবকিছু নির্ভর করছিলো কত দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন তার উপর।

সাকিবের বিকল্প নিয়ে এখনই ভাবছেন না নান্নু

তবে সাকিব ফিরলেন ও রাজকীয়ভাবেই ফিরলেন। অধিনায়ক হিসেবে উইন্ডিজকে টেস্টে হোয়াইটওয়াশ করার পাশাপাশি অলরাউন্ড নৈপুণ্যে সিরিজ সেরার পুরস্কারও জিতে নেন তিনি। টেস্টের পর এক সপ্তাহ বিরতি দিয়ে ৯ই ডিসেম্বর থেকে মাঠে গড়াচ্ছে বাংলাদেশ উইন্ডিজ ওয়ানডে সিরিজ।

চোট কাটিয়ে এশিয়া কাপের পর ওয়ানডে দলে আবারো ফিরেছেন সাকিব। আর এই সিরিজে আরও একটি বিশ্বরেকর্ড গড়ার হাতছানি তার সামনে।

Also Read - কর্পোরেট টি২০তে জিতলো বেক্সিমকো ও এসপিজেড


টেস্ট সিরিজে দ্রুততম ৩০০০ রান ও ২০০ উইকেট পাওয়ার রেকর্ড গড়েন সাকিব। ৫৪ টেস্টে এই রেকর্ড অর্জন করার পথে লিজেন্ডারি অলরাউন্ডার ইয়ান বোথামকে পিছে ফেলেন সাকিব। এবার ওয়ানডে সিরিজেও এমন এক অর্জনের দুয়ারে অপেক্ষমান সময়ের অন্যতম সেরা এ অলরাউন্ডার।

ওয়ানডেতে ৫০০০ রান ও ২৫০ উইকেট আছে মাত্র ৪ জন খেলোয়াড়ের। তারা হচ্ছেন জ্যাক ক্যালিস, শহীদ আফ্রিদি, সনাথ জয়সুরিয়া ও আব্দুল রাজ্জাক। সাকিবের ওয়ানডেতে ৫০০০ রান হয়েছে অনেক আগেই। তবে ২৫০ উইকেট পূরণ হতে এখনো ৬টি উইকেট দরকার।

৬টি উইকেট পেলেই এই ক্লাবে পঞ্চম সদস্য হিসেবে প্রবেশ করবেন সাকিব। তবে শুধু প্রবেশই নয়, প্রায় নিশ্চিতভাবে বলা যায় দ্রুততম সদস্য হিসেবেই নাম লেখাতে যাচ্ছে এ অর্জনে। দক্ষিণ আফ্রিকান কিংবদন্তী ক্রিকেটার জ্যাক ক্যালিসের দরকার পড়েছিল ২৫৯ ম্যাচ এই ক্লাবে প্রবেশের জন্য। মাতারা হ্যারিকেন খ্যাত শ্রীলঙ্কান অলরাউন্ডার সনাথ জসুরিয়া এতালিকায় নাম লিখিয়েছিলেন ২৬৫ ম্যাচ। আর পাকিস্তানি তারকা শহীদ আফ্রিদি ২৪৯ ম্যাচ ও তারই সতীর্থ আব্দুল রাজ্জাক এই ক্লাবে প্রবেশ করেন ২৫৮ ম্যাচে।

এশিয়াডে ক্রিকেট না থাকার আক্ষেপ

তাদের তুলনায় সাকিব ওয়ানডে খেলেছেন অনেক কম। তারকা এই অলরাউন্ডার এই পযর্ন্ত ১৯২টি ওয়ানডে খেলেছেন। অর্থাৎ তার দ্রুততম খেলোয়াড় হিসেবে এই ক্লাবে প্রবেশ করতে ৫৭ ওয়ানডেতে ৬টি উইকেট লাগবে। উইন্ডিজ সিরিজে ৩ ওয়ানডেতে ৬টি উইকেট পেয়ে গেলে দেশের মাটিতেই এই রেকর্ড গড়তে পারবেন সাকিব।

আসন্ন এ সিরিজে সাকিবের নিশ্চিতভাবে লক্ষ্য থাকবে আরও একটি। রেকর্ডের পাশাপাশি ওয়ানডে অলরাউন্ডার তালিকায় নিজের শীর্ষস্থানও ফিরে পেতে চাইবেন বাঁহাতি এ ক্রিকেটার। ইঞ্জুরির কারণে এশিয়া কাপের দুই ম্যাচ ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে খেলা হয়নি তার। এর আগেও বছরের শুরুতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যেই ম্যাচে ইনজুরিতে পড়েন সেই ম্যাচ ও ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচও হাতছাড়া করেন তিনি।

একের পর এক ম্যাচে দলের বাইরে থাকার মহড়ায় তাকে টপকে শীর্ষ ২ স্থান দখল করে নেয় আফগান দুই তারকা রশিদ খান ও মোহাম্মদ নবী।

বর্তমানে ৩৫৩ পয়েন্ট নিয়ে রশিদ খান অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানে ও নবী ৩৩৭ পয়েন্ট নিয়ে দবিতীয় অবস্থানে রয়েছেন। তাদের পরবর্তী স্থানে থাকা সাকিবের পয়েন্ট ৩৩২। ওয়ানডে সিরিজে ভালো করলে তাই তিনি সুযোগ পাচ্ছেন হারানো স্থান পুনরুদ্ধার করার।

নিশ্চিতভাবে বিশ্বরেকর্ডের পাশাপাশি ক্যারিবীয়ানদের বিপক্ষে এ অর্জনেও নজর থাকবে এই অলরাউন্ডারের

-লিখেছেন সাফায়েত ইসলাম

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

বাংলাদেশকে হারিয়ে আফগানিস্তানের বিশ্বরেকর্ড

মুশফিক-রিয়াদ-সৌম্যর অবস্থান পরিবর্তন যে কারণে

নো বল আর অতিরিক্ত রান দেওয়াকে দুষছেন সাকিব

“বাংলাদেশ-আফগানিস্তানে বড় পার্থক্য, আমরা ম্যাচ দিয়ে এসেছি”

এবারো আফগানদের হারাতে পারল না বাংলাদেশ