টেস্টে আদৌ কী তামিম ইকবালের কোনো বিকল্প আছে?

0
1867

বাংলাদেশ দল যখন মাঠে লড়ছে পাকিস্তানের বিপক্ষে তখন ইঞ্জুরির সাথে লড়ছেন দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল খান। আর বাংলাদেশ দলে তার প্রভাব ঠিক কতটুকু তা প্রকট হয়ে উঠছে তামিমের অনুপস্থিতিতে জায়গা পাওয়া ওপেনারদের হতাশাজনক পারফরম্যান্সে৷

Advertisment
জয় গুরুত্বপূর্ণ মানলেও স্পোর্টিং উইকেটের পক্ষে তামিম
তামিম ইকবাল। ফাইল ছবি

 

ইঞ্জুরির কারণে দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে আছেন বাংলাদেশ দলের নিয়মিত ওপেনার তামিম ইকবাল৷ বাংলাদেশ দলের জিম্বাবুয়ে সফরের পর থেকেই দলের বাইরে আছেন তিনি৷ অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড সিরিজের সাথে মিস করেছেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরও৷ আর তার অনুপস্থিতিতে তেমন আলো ছড়াতে পারেননি ইনিংস শুরু করতে নামা কোনো ব্যাটারই৷

ক্ষুদ্রতম ফরম্যাটের ক্রিকেটে নাঈম শেখ তাও কিছুটা ধারাবাহিক থাকলেও লাল বলের ক্রিকেটে তামিম ইকবাল কতটা প্রয়োজনীয় তা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে পাকিস্তানের বিপক্ষের প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে৷ দুই ইনিংসের কোনোটিতেই যে ২০ রানের গন্ডিই পেরোতে পারেননি বাংলাদেশের দুই ওপেনার সাইফ হাসান ও সাদমান ইসলাম৷ দুই ইনিংসে জুটি গড়ে তারা করেছেন যথাক্রমে ১৯ ও ১৪ রান!

ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সেও নিষ্প্রভ ছিলেন তারা৷ দুই ইনিংসে সাইফ হাসানের ব্যাট থেকে এসেছে ৩২ রান৷ সাদমান ইসলাম করেছেন মাত্র ১৫ রান৷ দুই ওপেনারের এমন অসহায় আত্মসমর্পণে ভুগতে হয়েছে পুরো বাংলাদেশ দলকে৷ প্রথম ইনিংসে মুশফিকুর রহিম আর লিটন দাসের ব্যাটে ভর করে লিড আসলেও দ্বিতীয় ইনিংসেও নির্ভার ক্রিকেট খেলতে ব্যর্থ হয়েছেন তারা৷ তারই ফলশ্রুতিতে আরো একবার চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন মুশফিকুর রহিমরা৷

সাদমান ইসলাম ও সাইফ হাসান
বাংলাদেশের দুই উদ্বোধনী ব্যাটার সাদমান ইসলাম ও সাইফ হাসান।

অবশ্য, তামিমের সাথে ওপেনিং জুটিতে থিতু হওয়ার যুদ্ধটা চলছে অনেকদিন ধরেই৷ মাঝে মধ্যে কেউ কেউ একটু আলো ছড়ালেও দীর্ঘমেয়াদে কেউই ধারাবাহিকতা দেখাতে পারেননি৷ চলমান ২০২১ সালে খেলা ৪ টেস্টে তিন জন ভিন্ন ভিন্ন ক্রিকেটারের সাথে ইনিংস শুরু করেছিলেন তামিম ইকবাল খান। সাইফ হাসান সর্বোচ্চ দুই ইনিংসে ওপেন করেছেন তামিমের সাথে৷ একটি করে ম্যাচে সুযোগ পেয়েছিলেন সাদমান ইসলাম ও সৌম্য সরকার৷

২০২১ সালে তামিম ইকবাল ৪ ম্যাচে ব্যাট করে করেছেন ৩৮৩ রান৷ ক্যারিয়ার গড় ৩৯.৫৭ এর বিপরীতে এবছর দেশসেরা এই ওপেনারের গড় ছিল ৫৪.৭১৷ অন্যদিকে ৮ ইনিংসে সাইফ হাসানের রান সংখ্যা মাত্র ১৩৫৷ পঞ্চাশ রানের গন্ডি পেরোতে পারেননি এক ম্যাচেও৷ এক ইনিংসে তার সর্বোচ্চ রান ৪৩ এবং গড় মাত্র ১৬.৮৭।

আরেক ওপেনার সাদমান ইসলাম ৪৩.৪০ গড়ে ৬ ইনিংসে করেছেন ২১৭ রান৷ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আছে অপরাজিত ১১৫ রানের ইনিংস। কিন্তু, এই এক ইনিংস বাদ দিলে বাকি পাঁচ ইনিংসে যা (২০.৪ গড়ে ১০২ রান) থাকে তাতে খুব একটা তৃপ্ত হওয়ার সুযোগ নেই টাইগার ভক্তদের৷ আর ওপেনার হিসাবে সুযোগ পাওয়া একমাত্র ম্যাচের দুই ইনিংসে সৌম্য সরকারের রান সংখ্যা যথাক্রমে ০ ও ১৩।

ওপেনারদের এমন বাজে অবস্থায় পাকিস্তান সিরিজেও তামিম ইকবাল প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠছেন বারবার৷ বিশেষ করে তার সর্বশেষ পাঁচ টেস্ট ইনিংসের (২৪,৯২,৭৪*,৯০,৫০) দিকে তাকালে তার অনুপস্থিতিতে নিয়ে আরো বেশি মন খারাপ হওয়ার কথা বাংলাদেশ ক্রিকেট ভক্তদের৷ সাথে সাথে প্রকট হয়ে উঠছে সেই চিরাচরিত প্রশ্ন! আসলেই কি টেস্ট ওপেনিংয়ে কোনো বিকল্প আছে ইকবাল খানের?

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনের চ্যাটে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime Crickey সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।