Scores

ডিপিএলে টানা দ্বিতীয় জয় শেখ জামালের

টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিধান্ত নিয়েছিলেন আবাহনীর অধিনায়ক তামিম ইকবাল। দলের শুরুটা ভালভাবেই করেছিলেন তামিম, দলীয় ৪৪ রানের মাথায় ওপেনার আভিশেক মিত্রকে (২১) হারায় আবাহনী। তবে একপ্রান্ত থেকে দলকে ভালভাবেই সামলেনিয়েছেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। বাজে ফর্মের বৃত্ত থেকে এখনো বের হতে পারেননি লিটন দাস, ১৫ বলে ৫ রান করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান লিটন দাস। তৃতীয়উইকেটে তামিম ইকবালের সাথে ৮০ রানের পার্টনারশিপ যোগ করেন  ইন্ডিয়ান ব্যাটসম্যান উদয় কাউল।

13081895_10205915434315923_1593353938_n

১০ রানের জন্য নিজের সেঞ্চুরি মিস করেন তামিম ইকবাল। ব্যক্তিগত ৯০ রান করে মাহমুদউল্লাহ এর বলে ক্যাচ আউটের শিকার হন তিনি। তবে একপেশে থেকে দলকে বড় স্কোরের স্বপ্ন দেখান উদয় কাউল, নাজমুল হাসান শান্তর সাথে ৫৫ রানের জুটি গড়েন। ব্যক্তিগত ৬৩ রান করেই সাজঘরে ফিরে যান উদয় কাউল, ইনিংসে ছিল ৫ টি চার ও ১ টি ছয়ের মার। দলের হয়ে বাকি কাজটা করে দেন দুই তরুণ ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন  সৈকত ও নাজমুল হাসান শান্ত। ৫ম উইকেটে ৮৩ রানের জুটি গড়ে তুলেন, ৫০ বল খেলে “লিস্ট এ” ক্রিকেটে নিজের প্রথম অর্ধশতক তুলে নেন নাজমুল হোসেন শান্ত, অন্যদিকে ২৯ বলে  রানের জড় ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

Also Read - মুস্তাফিজকে নিয়ে আইসিসির আলোচনা

২৮৮ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে শুরুটা দারুন ভাবে করেন শেখ জামালের দুই ওপেনার জয়রাজ শেখ ও মাহবুবুল করিম। দলীয় ৬৭ রানের মাথায় আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান জয়রাজ শেখ (২৬)। দ্বিতীয় উইকেট পার্টনারশিপে ১২৫ রান যোগ করেন মার্শাল আইয়ুব ও ওপেনার মাহবুবুল করিম। ব্যক্তিগত ৪৭ রান করে সাকলাইন সজিবের বলে বোল্ড আউট হন মার্শাল আইয়ুব, অন্যদিকে নিজের ব্যাটের রানের চাকা সচল রাখেন মাহবুবুল, ৮১ বলে ‘লিস্ট এ” ক্রিকেটে নিজের দ্বিতীয় শতক তুলে নেন তিনি। ব্যক্তিগত ১৩০ রান করে নাজমুল হাসান শান্তর বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান তিনি, ইনিংসে ছিল ১৫ টি চার ও ৫ টি ছয়।

নাজমুস সাদাতের সাথে ৩১ রানের পার্টনারশিপ করে দলকে জয়ের আশ্বাস দেখান দুই ব্যাটসম্যান রিয়াদ ও সাদাত। ২৭ রান করে তাসকিন আহমেদের বলে আউট হয়ে যান অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বাকি কাজটা করে দেন নাজমুস সাদাত, ৩৩ বলে ৩০ রান ক্করে আউট হয়ে গেলে ম্যাচটি হাত থেকে ছিটকে যাওয়ার শঙ্কায় পরে যায় শেখ জামালের প্লেয়াররা। তবে শেষ বলে নাটকীয় ভাবে জয়লাভ করে শেখ জামাল, তাসকিন আহমেদকে ছয় মেরে শেখ জামালের জয় নিশ্চিত করেন মুক্তার আলী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

আবাহনী লিমিটেডঃ ২৮৭/৪ (ওভার ৫০)

তামিম ৯০, কাউল ৬৩; মনিরুজ্জামান ১-২৬

শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবঃ ২৮৯/৬ (ওভার ৫০)

মাহবুবুল করিম ১৩০, মার্শাল আইয়ুব ৪৭; নাজমুল হাসান শান্ত ৩৯-২

ফলাফলঃ ৪ উইকেটে জয়ী শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব

ম্যান অফ দ্যা মাচঃ মাহবুব করিম (শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব)

-মুশফিকুর রিফাত,প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটিম ডট কম

Related Articles

কালবৈশাখী ঝড়ে সিলেট স্টেডিয়ামের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

প্রিমিয়ার লিগে এবারও ভালো করার প্রত্যাশা রাব্বির

ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন লিগ শুরু ৭ এপ্রিল

রাজশাহীর সামনে আজ বরিশাল

২০ জুলাই থেকে শুরু বোলিং অ্যাকশন সংশোধনের কাজ