ডি ককের করা বিতর্কিত রান আউট নিয়ে যা বললো এমসিসি

0
430

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে ডাবল সেঞ্চুরির হাঁকানোর সুযোগ এসেছিল ফখর জামানের সামনে। তবে বিতর্কিত এক রান আউটে ডাবল শতক থেকে সাত রান দূরে থেকে আউট হন ফখর। তবে ককের এমন কাণ্ড প্রতারণা কি না সেটি আম্পায়ারের উপরই ছেড়ে দিয়েছে মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি)।

ডি কককে নয়, নিজেকেই দুষছেন ফখর

Advertisment

প্রোটিয়া দলে উইকেটরক্ষক ডি কক এমন লঙ্কাকাণ্ড ঘটাবেন সেটি হয়তো আশাই করেননি পাকিস্তানের সমর্থকরা। দ্বিতীয় ওয়ানডে হারলেও ডি ককের কাণ্ড ভুলতে পারছেন না পাকিস্তান দলের সমর্থকরা। ফখর জামানকে ভুল পথে পরিচালিত করা নিয়ে ক্রিকেট বিশ্বে ব্যাপক সমলোচনা হচ্ছে। এবার এই ইস্যু নিয়ে মুখ খুলেছে মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব বা এমসিসি।

তারাও বিষয়টি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানায়নি। উল্টো ক্রিকেটের ধারা দেখিয়ে এটি আউট হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে কি না সেটি আম্পায়ারের উপরই ছেড়ে দিয়েছে তারা। তবে ব্যাটসম্যানকে ভুল পথে পরিচালিত করার জন্য ৪১.৫.১ ধারায় কেমন শাস্তি হতে পারে সেটি উল্লেখ করে এমসিসি।

“এক্ষেত্রে নিয়ম স্পষ্ট। প্রতারণা করার বদলে প্রতারণার চেষ্টার ক্ষেত্রে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তই শেষ কথা। আম্পায়াররা সিদ্ধান্ত নেবেন প্রতারণার চেষ্টা করা হয়েছিল কি না। তাই যদি হয়, তবে ব্যাটসম্যানকে নট-আউট ঘোষণা করা হবে এবং ৫ রান পেনাল্টি দেওয়া হবে। ব্যাটসম্যান যে দুই রান নিয়েছেন, সেটিও যোগ হবে। সেই সঙ্গে ব্যাটসম্যানরা স্থির করবেন, পরের বলটি কে মোকাবিলা করবেন।”

এই ঘটনার সূত্রপাত হয় পাকিস্তানের ইনিংসের শেষ ওভারে। তখনো জয়ের জন্য পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ৩১ রান। প্রোটিয়া অধিনায়ক শেষ ওভারটি করতে বল তুলে দেন লুঙ্গি এনগিডির হাতে। প্রথম বল করার আগে ফখরের সঙ্গে নন-স্ট্রাইকে ছিলেন হ্যারিস রউফ। প্রথম বলটিতে লং অফে ঠেলে দিয়ে প্রথম রান কমপ্লিট করার পর দ্বিতীয় রানের উদ্দেশে যখন দৌড়াচ্ছিলেন তখন মার্কারামের করা থ্রো’ টি নন-স্ট্রাইকে করার জন্য আঙুল দিয়ে ইশারা দেন স্ট্যাম্পের পেছনে থাকা ডি কক।

ফলে স্ট্রাইকার প্রান্তে দৌড় দিতে থাকা ফখর মনে করেন নন-স্ট্রাইকের দিকেই বল দিতে ইশারা দেন ডি কক। যে কারণে দৌড়ানোর গতি কমিয়ে দিলে রান আউটের শিকার হন ফখর! জোহানাসবার্গে ফখর একাই ১৯৩ রান করলেও সেই ম্যাচটিতে ১৭ রানে পরাজিত হয় পাকিস্তান।

ব্যাটসম্যানকে ভুল পথে পরিচালিত করার জন্য ম্যাচ ফির ৭৫ শতাংশ টাকা জরিমানা করা হয় ডি কককে। সেই সাথে স্লো ওভার রেটের কারণে ম্যাচ ২০ শতাংশ জরিমানা করা হয় প্রোটিয়া অধিনায়ক বাভুমাকে।