Scores

তরুণদের নিয়ে আরও ধৈর্য ধরার পক্ষে ডমিঙ্গো

ব্যাটসম্যানদের মধ্যে এখনো সিনিয়রদের উপরেই নির্ভর করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। তরুণরা সুযোগ পেয়েও ব্যর্থ হলেও তাঁদের নিয়ে ধৈর্য হারাচ্ছেন না বাংলাদেশ দলের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

কেমন হবে টাইগারদের ব্যাটিং অর্ডার, জানালেন ডমিঙ্গো.jpg

রাসেল ডমিঙ্গো বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই বরাবরই তরুণদের উপর একটু বেশিই আস্থা রাখতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। বিভিন্ন সময় সাক্ষাতকারে তিনি তামিম, মুশফিক, সাকিব, মাহমুদউল্লাহর চেয়ে তরুণদের নিয়ে কথাট বেশি বলেছেন ডমিঙ্গো। তবে সেই তরুণরা এখনো ব্যাট হাতে নিয়মিত পারফর্ম করতে ব্যর্থ।

Also Read - লুইসে অনাগ্রহ, নতুন কোচ চূড়ান্তের দ্বারপ্রান্তে বিসিবি

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রায় ছয় বছর হতে চলল লিটনের। ফর্মের কারণে লঙ্কানদের বিপক্ষে শেষ ওয়ানডেতে বাদ পড়েছেন তিনি। নিউজিল্যান্ড সফরে ব্যর্থ হওয়ায় সৌম্য তো পুরো সিরিজেই সুযোগ পাননি। অন্যদিকে শান্ত নিয়মিত ব্যর্থ। লঙ্কানদের বিপক্ষে তিন ওয়ানডেতেই ব্যাট হাতে ভালো করার সুযোগ এসেছিল আফিফের। সেটিও লুফে নিতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি।

লঙ্কানদের বিপক্ষে যে সিরিজটা জিতেছে সেটিও দুই সিনিয়র ক্রিকেটার মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে চড়েই। আফিফের মতো তরুণরা নিয়মিত পারফর্ম না করাকে হতাশাজনক বলে তাঁদের উপর আরও আস্থা রাখার কথা জানিয়েছেন তিনি। ক্রিকইনফোকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন,

“তরুণরা ইতোমধ্যে ইতিবাচক ঝলক দেখিয়েছে কিন্তু তাঁরা ধারাবাহিক হলে আরও ভালো লাগত। আফিফের মতো একজন ক্রিকেটার মাত্র তিনটি (আসলে চারটি) ওয়ানডে খেলেছে। অল্প কয়েকটি ম্যাচ দিয়ে ওকে বিচার করা খুবই কঠিন। তাঁদেরকে নিয়ে আরও ধৈর্য ধরতে হবে। তাঁরা সিনিয়রদের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারবে। তাঁদেরকে চাপে রাখার পক্ষে নই আমি।”

দলে সিনিয়রদের অবদান প্রসঙ্গ উঠতেই ডমিঙ্গো টেনে আনলেন রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, জো রুট, বেন স্টোকসদের কথা। তাঁর মতে বিশ্বের সব দলই সিনিয়র ক্রিকেটারদের উপর নির্ভর।

“হ্যাঁ, তাঁরা যদি প্রত্যেকটি ম্যাচে রান করতে পারত তাহলে দারুণ হতো। তবে পারফরম্যান্সের জন্য সিনিয়র খেলোয়াড়দের ওপর সব দলই নির্ভর করে। ভারতের রোহিত শর্মা, শিখর ধাওয়ান ও বিরাট কোহলি আছে। ইংল্যান্ডের আছে রুট, বাটলার ও স্টোকস। এরা সবাই বড় খেলোয়াড়। দলের দায়িত্বটা সিনিয়রদের উপরেই বেশি থাকে।”

লিটন-সৌম্যদের বর্তমান ফর্ম প্রসঙ্গে টেনে আনলেন তরুণ তামিম-সাকিবদের। ডমিঙ্গোর মতে সাকিব-মুশফিকদেরও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সময় নিয়েছে।

যদি তামিম, মুশফিক ও সাকিবের মতো বড় খেলোয়াড়ের উদাহরণ নেই তাহলে দেখবো যে তাঁদের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে স্থির হতে সময় লেগেছে। ঢাকার উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য সহজ নয়। নিজেদের কন্ডিশনে কীভাবে খেলতে হবে সেটা খুঁজে পেতে সাকিব-মুশফিকরা কিছুটা সময় নিয়েছেন।”

Related Articles

প্রাইম দোলেশ্বরের বিপক্ষে আবাহনীর শোচনীয় হার

“টানা উইকেট না হারালে রান তাড়া করতে পারতাম”

টি-টেন লিগ: ফিক্সিংয়ের কালো হাত থেকে বাঁচার দায়িত্ব ক্রিকেটারদেরই

টি-১০ খেলার অনাপত্তিপত্র পেলেন আফিফ-মেহেদী

টি-টেন লিগ: ড্রাফট শেষে যেমন হল দলগুলো