তামিমকে বিশ্রাম নেয়ার পরামর্শ দিলেন সাকিব

0
1245

২০১৯ সালে ব্যর্থতা যেন ঘিরে ধরেছে তামিম ইকবালকে। বছরের শুরু থেকেই এখনো ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বের হতে পারছেন না।। তামিমের এমন দুঃসময়ে সাকিব আল হাসান তাকে বিশ্রাম নেয়ার পরামর্শ দিলেন। তার মতে, কিছুদিন বিশ্রাম নিয়ে সতেজ হয়ে আবারো স্বরূপে ফিরবেন দেশসেরা ওপেনার।

Advertisment

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওডিআই সিরিজ দিয়ে চলতি বছরে বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মিশন শুরু হয়। সেই সিরিজে তিন ম্যাচে তামিমের সংগ্রহ ছিল মাত্র ১০ রান। বিশ্বকাপ শুরুর আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে দুইটি অর্ধশতক ইনিংস খেলে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। কিন্তু তারপরেই যেন আবার থমকে গেছেন।

বিশ্বমঞ্চে ৮ ম্যাচে মাত্র ২৯.৩৮ গড়ে করেছেন ২৩৫ রান। তারপর উপমহাদেশের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৩ ম্যাচে তার সংগ্রহ মাত্র ২১ রান। সবমিলিয়ে এই বছর ম্যাচে ২৪.৫৬ গড়ে তার সংগ্রহ ৪৪২ রান। এই সময়ে স্ট্রাইকরেটটাও ভালো ছিল না। ওপেনার বড় ইনিংস খেলতে না পারায় পুরো সিরিজই ভুগেছে বাংলাদেশ।

কিন্তু বিপরীত চিত্র সাকিব আল হাসানের ব্যাটে। শুধু বিশ্বকাপের ৮ ম্যাচেই তার সংগ্রহ ৬০৬ রান। তামিমের এমন দুরাবস্থায় পাশে দাঁড়িয়ে সাকিব বললেন, সবার ক্যারিয়ারেই খারাপ সময় আসতে পারে। তামিম বিশ্রাম নিয়ে স্বরূপ ফিরবেন বলেই আশা করছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

সাকিব বলেন, ‘একজন ক্রিকেটারের এমন সময় আসতেই পারে। এখন আমার মনে হয় যে ওর জন্য যেটা দরকার, খুব ভালো একটা বিশ্রাম নেয়া। ওর নিজেকে রিকভার করা, সতেজ হয়ে এবং আগের চেয়ে ভালোভাবে ফিরে আসা দরকার। আমি নিশ্চিত ও এটা করবে।’

সাকিবের মতে সম্পূর্ণরূপে ফিট না হয়ে কোনো ক্রিকেটারের মাঠে নামা উচিত না। তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমি একটা জিনিস মনে করি, যখন কোনো খেলোয়াড় শারীরিক বা মানসিকভাবে ফিট না থাকে তখন তার খেলা ঠিক না। কারণ এতে কাজটা কঠিন হয়ে যায়। আমি মনে করি পারফরম্যান্সের ক্ষেত্রেও এ জিনিসটা অনেক প্রভাব ফেলে।’

সাকিব তামিম বন্ধু

শ্রীলঙ্কায় যখন বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ, তখন বারবারই উচ্চারিত হয়েছে সাকিবের নাম। আর হবেই বা না কেন, বিশ্বকাপে তার চোখ ধাঁধাঁন পারফর্ম আছে যে! তবে এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার নিজে মনে করেন তিনি থাকলেই সব সমাধান নাও হতে পারত।

তার ভাষায়, ‘দেখুন সেটা বলা যায় না। ক্রিকেট ভালো একটা বলের খেলা। হয়ত তিনটা ভালো বলে তিনদিন আমি আউট হয়ে যেতে পারতাম। তখন আমার পক্ষ থেকে কোনো অবদান রাখা হত না।’