Scores

মাশরাফির লক্ষ্য ছিল ২৫০ রান

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দ্বিধায় ছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা- এটি পুরনো খবর। এও জানিয়েছেন, মন্থর উইকেটে ব্যাট করতে নেমেও দলের ব্যাটিং লাইনআপে বিশ্বাস রেখে প্রত্যাশা করছিলেন লড়াকু সংগ্রহের।

বলেছি-হৃদয়-উজাড়-করে-খেলতে-দেশের-জন্য-খেলতে-মাশরাফি

তবে মাশরাফি যে প্রত্যাশা করেছিলেন, বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা করেছেন তার চেয়েও বেশি রান। শুরুতেই এনামুল হক বিজয়কে হারানোর পর তামিম ইকবাল সাকিব আল হাসান যখন ধীরে-স্থিরে গড়ে তুলেছেন বড় এক জুটি, তখন মাশরাফির লক্ষ্য ছিল যেভাবেই হোক অন্তত ২৫০ রানের সংগ্রহ দাঁড় করান।

Also Read - অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সাথে তাসকিনের অনুশীলন


স্মরণীয় এক জয় শেষে এমনটি জানান মাশরাফি নিজেই। সেই সাথে তিনি প্রশংসার সাগরে ভাসান তামিম ও সাকিবকে, যাদের ব্যাট থেকে আসে যথাক্রমে ১৩০ ও ৯৭ রানের ঝলমলে দুটি ইনিংস।

মাশরাফি বলেন, ‘তামিম এবং সাকিব এভাবে ব্যাট না করলে এই টার্নিং উইকেটে আমাদের ২২০ রানের মত সংগ্রহ হত। আমরা চাচ্ছিলাম ২৫০ রান অন্তত করতে। তারা ভাবছিল, ২৫০ রান এই উইকেটে কঠিন লক্ষ্য হত।’

শুরুতে তামিম এবং সাকিবের মন্থর ইনিংস গড়ে তোলায় অনেকেই সমালোচনা করেছিলেন। তবে মাশরাফির ভাষ্য, ‘তারা অহেতুক সময় ক্ষেপণ করেনি। তারা যেভাবে ব্যাট করেছে দল তাদের কাছ থেকে এমন প্রত্যাশাই করেছিল।’

এ সময় হুমকি হয়ে উঠতে পারতেন উইন্ডিজ স্পিনাররা, যাদের খেলতে বেশ শক্ত হাতে মোকাবেলা করতে হয়েছে সাকিব-তামিমকে। মাশরাফি বলেন, ‘যদি তাদের স্পিনাররা একটি বা দু’টি উইকেট শিকার করত, আমরা বিপদে পড়ে যেতে পারতাম। আমি মনে করি সাকিব এবং তামিম আসলেই দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছে।’

আরও পড়ুন:“গায়ানার কন্ডিশন কীভাবে যেন মানিয়ে গেছে”

[‘কন্ডিশন’- উইন্ডিজ সফরে বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পেছনে এই কন্ডিশনকেই দোষারোপ করেছিলেন বেশিরভাগ ক্রিকেটবোদ্ধা। তবে গায়ানায় অনুষ্ঠিত তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ঠিক উল্টো ব্যাপার। সফরকারী দল হয়েও কন্ডিশন…বিস্তারিত]

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

পেস বোলিংয়ে ‘অনাগ্রহ’; ওয়ালশের আক্ষেপ নেই

মাশরাফিই ছিলেন নেপথ্যের কারিগর

সিদ্ধান্ত সাকিবের উপরেই ছেড়ে দিল বিসিবি

নিজেদের ব্যর্থতার দায় বোর্ডের উপর চাপাচ্ছেন না রাব্বি

উইন্ডিজে কোচের নজর কেড়েছেন যারা