SCORE

সর্বশেষ

তাসকিন-সৌম্যদের জন্য মাশরাফির প্যাশন টোটকা

ধারাবাহিকভাবে খারাপ খেলার ফল যা হওয়ার তাই হয়েছে। কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়েছেন জাতীয় দলের ৬ ক্রিকেটার। বাদ পড়াদের নাম দেখলেই বুঝা যায় কেন তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে। যদিও কারও কারও বাদ পড়াটা অনেকের কাছে প্রশ্নের উদ্রেক করেছে। তবে বাদ পড়া মানেই যে সব শেষ হয়ে যাওয়া তা কিন্তু নয়। বরং আরও ভাল করে ফিরে আসার অনুপ্রেরণাও আছে। যেমন ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা তাদের জন্য একটি টোটকা বাতলে দিয়েছেন। আর তা হলো প্যাশন। ক্রিকেটের প্রতি জোর প্যাশন থাকলে চুক্তিতে থাকা না থাকা কোন বিষয় নয় তার কাছে।

বিসিবির চুক্তি থেকে একইসাথে এতো ক্রিকেটার বাদ পড়ার এমন ব্যতিক্রমী ঘটনায় বিসিবির দেওয়া ব্যাখ্যা আদতে সবাই ভালভাবেই গ্রহণ করেছেন। এমনকি তাদের আবারও ফিরে আসার জন্য সবরকম সহায়তা দেওয়ার কথা বলেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। এই বিষয়ে তার প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেছেন, ‘প্রথমত, যত দিন ধরে খেলছি, বেতনের ভেতর আছি কি নেই, এসব নিয়ে ভাবিনি। আমার কাছে এটা কখনোই পরিষ্কার নয়। আমার সব সময়ই প্যাশন ছিল ক্রিকেট খেলা। ওই প্যাশন নিয়ে ক্রিকেট খেলছি।’ এটাই বাদ পড়াদের জন্য তার টোটকা। যারা বাদ পড়েছেন তাদের মনোবল ঠিক রাখতে ক্রিকেটের প্রতি ভালবাসা কিংবা প্যাশন থাকাটাই জরুরী। বেতন পাওয়াটা যে গুরুত্বপূর্ণ সেটাও মাশরাফি মনে করিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু ক্রিকেটের প্রতি সেই ভালবাসা আর নিবেদন থাকলে তারা আবার ঠিকই ফিরে আসবেন। তিনি মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, বাংলাদেশে খুব বেশী বিকল্প ক্রিকেটার নেই। ফলে তাদের সামনে ফিরে আসার ভাল সুযোগ থাকছে। খারাপ খেললে সমালোচনার মাত্রা নিয়েও তিনি বলেছেন। তবে তিনি সবচেয়ে বড় যে কথাটি বলেছেন তা হলো পেশাদারিত্ব। ঠিক এই জায়গাতেই অনেকের সমস্যা দেখা গেছে। পেশাদারিত্বের বড় উদাহরণ তো মাশরাফি নিজেই।

Also Read - মাশরাফিকে পাশে পাচ্ছেন সাব্বির-তাসকিনরা

 

কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়লেন ছয়জন, বাড়ছে না বেতন

বিসিবির পরিচালনা পর্ষদের সভা শেষে কাল জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এবারের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়ছেন তাসকিন আহমেদ, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, ইমরুল কায়েস, মোসাদ্দেক হোসেন ও কামরুল ইসলাম। সাব্বিরের বাদ পড়ার পিছনে অবশ্য শৃঙ্খলাজনিত বিষয়ও জড়িত। বাকিদের ক্ষেত্রে সেটা শুধুই পারফরম্যান্স। এবার কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকাদের সংখ্যা কমিয়ে আনার ইঙ্গিত আগেই দিয়ে রেখেছিলেন বিসিবি পরিচালনা কমিটির প্রধান আকরাম খান। সেই মোতাবেকই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান কাল জানিয়ে দিলেন আগের চুক্তি থেকে থাকছেন ১০ জন আর নতুনদের মধ্যে থেকে রাখা হচ্ছে ৩ জনকে। গত বছরের তুলনায় এবার চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটারের সংখ্যা ৩ জন কম। যারা বাদ পড়েছেন তাদের মধ্যে তাসকিন আহমেদ ও সৌম্য সরকার দীর্ঘদিন ধরেই ফর্মের সাথে যুদ্ধ করছেন। ঘরোয়া লিগেও তাদের পারফরম্যান্স আশাব্যাঞ্জক নয়। অনেকবারই তাদের ফর্মে ফেরার সুযোগ দেওয়া হলেও তারা সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেন নি। অথচ বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ ধরা হতো এই দুজনকে।

Image result for Soumya sarkar

সৌম্য তবু নিদাহাস ট্রফিতে কিছুটা ঝলক দেখিয়েছিলেন, কিন্তু সেটা মোটেও যথেষ্ট ছিল না। নিদাহাস ট্রফিতে তার রান ছিল ম্যাচ অনুযায়ী যথাক্রমে ১৪, ২৪, ১, ১০, ১। দলের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যানের এমন হালের পরও চুক্তিতে রাখার কোন কারণ আদৌ আছে কি? তাসকিনের অবস্থাও তথৈবচ। রান দেওয়ার ক্ষেত্রে তিনি দলের অদ্বিতীয় বোলার। উইকেট পেয়েছেন যথাক্রমে ২৮/১, ৪০/১। মাত্র দুই ম্যাচে সুযোগ পেয়ে তার রান দেওয়ার এই অকাতর অবস্থাই তাকে চুক্তি থেকে বাদ দিতে সহায়তা করেছে। সাব্বিরের কথা নাহয় বাদই দিলাম। এতো দুর্দান্ত একজন ব্যাটসম্যানের এতো বাজে অবস্থার জন্য দায়ী তিনি নিজেই। অপরদিকে ইমরুল কায়েস অনেকদিন থেকেই দলে অনিয়মিত। আর সুযোগ পেয়েও আহামরি কিছুই দেখাতে পারেন নি। মোসাদ্দেক হোসেনকে বাদ দেওয়া নিয়ে অনেকের দ্বিমত থাকতে পারে। যথেষ্ট সুযোগ তিনি পেয়েছেন কি না সেই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। তবে কামরুল ইসলাম রাব্বির বাদ পড়ার পিছনে কারণ তিনি দলেই অনিয়মিত। তাকে খেলতে দেখা গেছে মাত্র ৫টি টেস্ট ম্যাচে। বল হাতে ৭টি উইকেট তিনি পেয়েছেন। ভারতের মাটিতে বাংলাদেশের প্রথম টেস্টের দলে তিনি সর্বশেষ খেলেছেন। ফলে তার বাদ পড়া অনুমিতই ছিল।

বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়া তেমন কোন বিষয় নয়, দীর্ঘদিন খারাপ খেলার বাজে ফল আসতেই পারে। সেখান থেকে ফিরে আসতে হলে নিজের চেষ্টা, সতীর্থ ও ভক্তদের সমর্থন যেমন দরকার, তেমনই দরকার ক্রিকেটের প্রতি প্যাশন। মন্দ সময় কাটিয়ে উঠতে এই প্যাশন দারুণ কাজ করে। মাশরাফি নিজেও এই প্যাশনের কারণেই শত ঝঞ্ঝা সত্ত্বেও মাথা উঁচু করে খেলে যাচ্ছেন। আর চুক্তির বাইরে থেকেও আন্তর্জাতিক খেলায় অংশ নেওয়ার সুযোগ আছে। ভুল শুধরে, প্যাশনের সাথে ভাল খেলে আবারও কেন্দ্রীয় চুক্তিতে ফিরবেন তাসকিন-সৌম্য, এমনটাই প্রত্যাশা।

আরও পড়ুনঃ মাশরাফিকে পাশে পাচ্ছেন সাব্বির-তাসকিনরা

Related Articles

টেস্ট ক্রিকেটের কাঠিন্য মানতে নারাজ ইমরুল

‘সমর্থন দিন, গালি দিয়েন না’

যে কারণে বাদ তাসকিন-ইমরুল-সোহান

বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে লিটন!

রাজ্জাকের স্পিন ঘূর্ণিতে চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণাঞ্চল