Scores

“তিনটা সেঞ্চুরি হলে ভালো লাগত”

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জাতীয় দলে ধারাবাহিক নন ইমরুল কায়েস। কিন্তু দলের যখন দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার মতো অবস্থা হয় ঠিক তখনই দেখা মেলে তার। যার জলজ্যান্ত প্রমাণ সম্প্রতি শেষ হওয়া এশিয়া কাপ। সাকিবের আঙুলে চোট পেয়ে দল থেকে ছিটকে যাওয়ায় তখন সিরিজের মাঝ পথেই দুবাই পাড়ি জমিয়েছিলেন তিনি।

সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে ব্যাট করছেন ইমরুল কায়েস। ছবি-বিডিক্রিকটাইম
সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে ব্যাট করছেন ইমরুল কায়েস। ছবি-বিডিক্রিকটাইম

সুযোগ পেয়ে ফেরার সেই ম্যাচেই নিজেকে চেনাতে আর ভুল করেননি। অসাধারণ ইনিংসে অর্ধশতক তুলে নেন কায়েস। এরপর থেকেই আবার ধারাবাহিকতায় ফেরেন। জিম্বাবুয়ে তাকে দলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়ে এবার আর নির্বাচকদের হতাশ হতে দেননি তিনি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচে দুই শতক তুলে নিয়ে ফর্মে ফেরেন এ ওপেনার। এছাড়া চলতি সিরিজে সর্বাধিক ৩৪৯ রান করে তিন ম্যাচ ওডিআই সিরিজের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের অধিকারী হিসেবেও নাম লেখান তিনি। জিতে নেন চলতি সিরিজে ম্যান অব দ্যা সিরিজের খেতাবও।

শুক্রবার ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমকর্মীদের মুখোমুখি হন ইমরুল কায়েস।  এসময় তিনি বলেন, “আসলে আজকের ম্যাচে রেকর্ড হয়েছে কিনা, এই ব্যাপারে ভাবি না।”

Also Read - “বাংলাদেশ দলে সৌম্যর আত্মবিশ্বাসটা একটু বেশি”

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ইমরুল বলেন, “ভাই এতো ভালো খেলোয়াড় এখনো হয়নি। মাত্রতো তিনটি ওয়ানডে খেলেছি। আমাকে খেলতে দেন।  আমি শূন্য রানে আউট হতে পারতাম। রান করেছি তিনটা ম্যাচে এটা অবশ্যই ভালো লাগছে। তিনটা সেঞ্চুরি হলে ভালো লাগত, যেহেতু এটা কেউ কখনো করেনি বাংলাদেশের হয়ে। বাংলাদেশি হিসেবে আমি প্রথম করতাম, আমার একটা সুযোগ ছিল। আমারও খারাপ লাগছে সেদিন রুমে গিয়ে। ওটাই চিন্তা করছিলাম আবার ৯০-এর ঘরে গেলে আর ভুলো করব না। ”

 “সৌম্যের সঙ্গে যখন ব্যাট করি নিজের খুব ভাল লাগে। কারণ ওর সঙ্গে ব্যাট করলে চাপ জিনিসটা থাকে না। ও অনেক স্ট্রোক খেলে। যার জন্য আমি এক পাশ থেকে যদি রান নাও করতে পারি, তারপর দেখা যায় ও আরেক পাশ থেকে পুষিয়ে দেয়। তো যেটা তামিমের সঙ্গে হতো আমার, তামিম অনেক স্ট্রোক খেলত। এ জন্য ভালো হয়েছে, আমাদের জুটি ভালো হয়েছে। রানরেট ভাল ছিল। যদিও ব্যাটসম্যানদের জন্য রান করা সহজ ছিল। সব মিলিয়ে এনজয় করেছি। ”

ধারাবাহিক না হলেও সেরাদের তালিকায় ঠিকই অবস্থান ধরে রেখেছেন ইমরুল কায়েস। স্ট্রাইকরেট একশর কাছে রেখে রানের দৌড়ে ছুটেছেন পরিশ্রমী এই ক্রিকেটার। তবুও ধারাবাহিক না হওয়ার সমালোচনা যেন পিছু ছাড়তে নারাজ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, “খুব ভালো লাগছে কারণ ম্যাচটা জেতাতে পেরেছি বিশেষ করে। এটা অবশ্য আমার ক্রিকেট জীবনে বড় প্রাপ্তি। চেষ্টা করব এটা ধরে রাখতে। আসলে অনেক কথাই বলে লোকে যে ধারাবাহিকতা নেই। জানি আমি কোথায় রান করি বা করি না। এটা নিয়ে আমি আতঙ্কিত না। ”

উল্লেখ্য, তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শেষে আগামী ৩ নভেম্বর প্রথম টেস্ট খেলতে সিলেটে টাইগারদের মুখোমুখি হবে জিম্বাবুয়ে।

Related Articles

অন্তত তিন সপ্তাহ মাঠের বাইরে ইমরুল

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টাইগারদের সেরা ৩ ওয়ানডে ইনিংস

কুমিল্লার শক্তি একঝাঁক অলরাউন্ডার

নিজেদেরকেই এগিয়ে রাখছেন ইমরুল

ফাইনালেও শামসুর ভালো করবেন, বিশ্বাস অধিনায়কের