Scores

তিনে খেলা নিয়ে ইমরুলের ‘ধোঁয়াশা’

সংবাদ সম্মেলনে ইমরুল কায়েস

বহুল প্রত্যাশিত অস্ট্রেলিয়া সিরিজ শুরু হতে আর বাকি মাত্র কয়েকদিন। ইতোমধ্যে ঘোষিত হয়েছে দুই দলের স্কোয়াড, চলছে ক্রিকেটারদের শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি। অন্য সবার মতো নিজেকে প্রস্তুত করে তুলছেন দেশের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসও। মঙ্গলবার দীর্ঘ সংবাদ সম্মেলনে ইমরুলের কথায় উঠে আসে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের নানা ভাবনা।

মূলত একজন ওপেনার হলেও দলের প্রয়োজনে ওয়ান ডাউনে খেলার অভিজ্ঞতাও আছে ইমরুলের। যদিও অতীতে বেশ কয়েকবার জানিয়েছেন, ওপেনিং ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেই স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন। তবে অস্ট্রেলিয়া সিরিজে তামিমের সাথে ওপেনার হিসেবে দেখা যেতে পারে সৌম্য সরকারকে। সেক্ষেত্রে ইমরুল বিবেচনায় আসতে পারেন তিন নম্বরে। কিন্তু দ্বিতীয় দফায় দলে সুযোগ পাওয়া মুমিনুলকে একাদশে জায়গা দিলে সেই তিন নম্বর পজিশনটা নিয়েও শুরু হয় টানাটানি। এমন পরিস্থিতিতে ইমরুল নিজেও রয়েছেন এই পজিশন নিয়ে ধোঁয়াশায়।

Also Read - 'ঘরের মাটিতে অপরাজেয় দল বাংলাদেশ'


সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে, তাকে তিন নম্বরে খেলিয়ে সৌম্যকে ওপেনিংয়ে নামানো হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ইমরুল বলেন, ‘হয়তো বা। কারণ সৌম্য ভালো করছে। এ কারণেই কোচ ভেবেছেন তাকে ওপেনিংয়ে রাখতে। এটাই পরিকল্পনা- কোচ ভেবেছেন সৌম্যই ভালো হবে। এটা নির্ভর করছে আমার পারফর্মের ওপর। পারফর্ম করলে তিনে থাকব। সেটা না পারলে হয়তো দলেই থাকব না।’

টপ অর্ডারে চলমান প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ভালো পারফর্ম করেই সাম্প্রতিককালে দলের বাইরে থাকতে হয়েছে ইমরুলকে। এমনকি বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকে একই নিয়তি বরণ করে নিতে হতে পারে আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সিরিজেও। তবে এসব নিয়ে ভাবেন না বলেই মন্তব্য তার, ‘আট বছর খেলে ফেলার পর ইন-আউট হয়েছি। খারাপ খেললে জায়গা থেকে সরে যেতে হয়। আসার পর আবার নতুন করে শুরু করতে হয়। কী হতো বা কী হতো না, সেসব নিয়ে চিন্তা করে লাভ নেই। এখন সামনে যে দিন আছে, এগুলোতে ফোকাস করাই ভালো বলে মনে করি।’

প্রথমে দলে ডাক না পেলেও বোর্ড সভাপতি হস্তক্ষেপে অবশেষে দলে ঢুকেছেন মুমিনুল হক। এতে ইমরুলের প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেড়ে গেলেও দলীয় স্বার্থে এটিকে দারুণ ইতিবাচকভাবে দেখছেন তিনি, ‘এটা পজেটিভ দিক। টিমে লড়াই থাকলে সেটা ভালো। প্রতিযোগিতা বেশি থাকলে ম্যানেজমেন্ট সবচেয়ে ভালো কাউকে খেলানোর জন্য বেছে নিতে পারে। আমি বলব- এটা একটা ভালো দিক দলের জন্য। এবং তারা পারফর্মও করবে।’

ঢাকা ও চট্টগ্রামে স্পিন-নির্ভর উইকেট হলেও ম্যাচে ছড়ি ঘোরাতে পারেন পেসাররাও, কেননা বিশ্বের সেরা সেরা পেসারদের নিয়েই বাংলাদেশ সফরে এসেছে অস্ট্রেলিয়া। তবে এতে ভয় পাচ্ছেন না ইমরুল। অজি ‘পেস-ব্যাটারিকে’ খেলতে সমস্যা হবে না বলেই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি, ‘ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেটে সাত-আট বছর হয়ে গেলো। দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ডের মতো দলের বিপক্ষেও খেলেছি। তাদেরও সেরা পেস অ্যাটাক থাকে। তাদের বিপক্ষে যেহেতু খেলতে পেরেছি, আমার মনে হয় সামনে আর সমস্যা হবে না। তাদেরকে যেহেতু খেলতে পেরেছি, এদেরকেও পারবো।’

তবে পেস-বান্ধব দল হলেও উইকেট বিবেচনায় স্পিন আক্রমণও ধারালো করে মাঠে নামবে অস্ট্রেলিয়া। সেক্ষেত্রে নাথান লিওন হতে পারেন টাইগারদের হুমকি, এমনটাই ধারণা ইমরুলের, ‘আমার মনে হয়, লিওন বিশ্বের অন্যতম সেরা স্পিনার। আমরা তাকে খেলতে প্রস্তুত। শুধু আমি নই, দলের সবাই প্রস্তুত। উপমহাদেশের উইকেট সব সময়ই স্পিন সহায়ক হয়। আমরা এটা জানি এবং তাকে খেলতেও প্রস্তুত। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আমরা ভালো খেলেছি। আশা করি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও আমরা ভালো কিছু পারবো।’

অনুশীলনে নিয়মিত স্পিন খেললেও মাঠের খেলা এর চেয়ে ভিন্ন হবে বলে অভিমত তার। ইমরুল বলেন, ‘নেটে তো সবাইকে খেলতে হয়। লেগ স্পিনার আছে। চায়নাম্যান বোলারও আছে। সব বোলারের বলই ফেস করতে হয়। তবে নেটে ব্যাট করা এক জিনিস। আর মাঠে নেমে ম্যাচ খেলা আরেক জিনিস। আমার মনে হয় টেস্ট ক্রিকেটে মানসিক প্রস্তুতিটাই বড়।’

টেস্টে ভালো করতে হলে টপ অর্ডারদের ভালো শুরু করা উচিত বলে মনে করেন ইমরুল, ‘ভালো খেলার ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জন্য টপ অর্ডারের চ্যালেঞ্জ অনেক বেশি। প্রথম সেশনে যারা ব্যটিং করবে, তারা যদি নতুন বলটা খেলে দিতে পারে, তাহলে পরের ব্যাটসম্যানদের জন্য কাজটা সহজ হয়ে যায়। আমি মনে করি এক থেকে চার পর্যন্ত খেলা ব্যাটসম্যানদের অনেক দায়িত্ব।’

পরিশেষে জানালেন, টাইগাররা মাঠে নামবে অজিদের বিপক্ষে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ার লক্ষ্য নিয়েই, ‘আমরা টেস্ট ক্রিকেটটা ভালো খেলছি। অবশ্যই চাইবো ম্যাচ জেতার জন্য। আগেও আমরা এটাই চেয়েছি। এখনো চাই ম্যাচ জিততে।’

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম
নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ভোরে শুরু হচ্ছে ‘অ্যাশেজ সিরিজ’

মুশফিকের চোখে রিয়াদই সাকিবের বিকল্প

‘এই সময়টায় ফেইসবুকে কম যাওয়ার চেষ্টা করি’

মুশফিককে নিয়ে বোর্ড সভাপতির উল্টো দাবি!

বোলিংয়েই সব মনোযোগ তাইজুলের