Scores

মাশরাফির চোখে অভিষেকই বিশ্বকাপের অঘোষিত নায়ক

নড়াইল এক্সপ্রেস হিসাবে পরিচিত মাশরাফি বিন মুর্তজা বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্যতম সেরা অধিনায়ক হিসাবে জায়গা করে নিয়েছেন ইতিহাসের পাতায়। তারই শহর থেকে উঠে এসেছেন আরেক পেস অলরাউন্ডার অভিষেক দাস। অনেকটা ভাগ্যবশত, বিশ্বকাপের ফাইনালে একাদশে সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করা অভিষেককে নিয়ে মাশরাফি স্বপ্ন দেখছেন বড় কিছুর।

বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে যেয়েই প্রথম বল হাতে নেয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন অভিষেক। তার আগে আরও একটা ম্যাচে একাদশে ছিলেন বটে কিন্তু পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়ায় বল করার সুযোগ পাননি এই পেসার। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনাল ম্যাচে আর সুযোগ পাননি। ফাইনালে স্পিনার হাসান মুরাদকে বাদ দিয়ে একজন বেশি পেসার খেলাতে অভিষেককে নেয়া হয় দলে। হয়তো মৃত্যুঞ্জয়ের চোটের কারণেই সুযোগটা মিলেছিল অভিষেকের!

Also Read - ২০২৩ বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে আকবরদের


এই এক সুযোগেই জাতীয় দলের অধিনায়কের মন জয় করে নিয়েছেন অভিষেক। ৯ ওভার বোলিং করে ৪০ রানের বিনিময়ে ৩ উইকেট শিকার করে ভারতকে ১৭৭ রানে গুটিয়ে দিতে বড় ভূমিকা রাখেন তিনি। বিশ্বকাপ জয় করে ফেরা এই বোলার শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) যশোর বিমানবন্দর থেকে সরাসরি মাশরাফির বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। নড়াইলে তাকে সাদরে বরণ করে নেন মাশরাফির বাবা গোলাম মর্তুজা স্বপন ও মা হামিদা মর্তুজা।

এই বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটারদের নিয়ে নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে মাশরাফি লিখেন, ‘এই আকবর, তামিম, ইমন, রকিবুল, শরিফুল, অভিষেকদেরকে তৈরি করতে তাদের পরিবারকে অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। তারাও অনেক পরিশ্রম করেছে।’

অভিষেককে নিয়ে মাশরাফির উচ্ছ্বাসও প্রকাশ পেয়েছ। অভিষেকের ছোটবেলার কোচদেরকেও অভিনন্দন জানান তিনি। নিজ শহরের এই তরুণকে বিশ্বকাপের অঘোষিত নায়ক বলেছেন মাশরাফি,

‘অভিষেক দেশে ফিরেছে (বিশ্বকাপ জয় করে) বাংলাদেশের মানুষকে গর্ববোধ করাতে, নড়াইলের মানুষকে গর্ববোধ করাতে। তুহিন চাচা, সঞ্জীব বিশ্বাস সাজু এবং ইমরুল এবং যারা এই দিনটির স্বপ্ন বুনেছিল তাদের সবাইকে ধন্যবাদ। আমার চোখে তুমি বিশ্বকাপের অঘোষিত নায়ক। বিশ্বাস করো, আমি এটা মন থেকেই বলছি।’

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

নড়াইলের অভিষেকের পেসে কুপোকাত ভারত, সম্ভাবনা পেস অলরাউন্ডার পাওয়ার