Scores

তৃণমূলে নিয়মিত টুর্নামেন্ট আয়োজনের পেছনে মাশরাফির মহৎ উদ্দেশ্য

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়কের সাথেসাথে মাশরাফি বিন মুর্তজার আরেকটি পরিচয় হলো তিনি বাংলাদেশের একজন সম্মানিত সংসদ সদস্যও। সেই দায়বদ্ধতা থেকেই নিজ এলাকায় তৃণমূল পর্যায়ে ক্রিকেটসহ অ্যাথলেটিকস, ব্যাডমিন্টন, ভলিবল ইত্যাদি টুর্নামেন্ট আয়োজন ও তা তরুণদের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

তৃণমূলে নিয়মিত টুর্নামেন্ট আয়োজনের পেছনে মাশরাফির মহৎ উদ্দেশ্য

নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি নিজ এলাকায় বিভিন্ন সময়েই বিভিন্ন খেলার টুর্নামেন্ট আয়োজন করে আসছেন। এই করোনা মহামারী আঘাত হানার পরেও তিনি ক্রিকেট, অ্যাথলেটিকস, ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছেন। সম্প্রতি তার আয়োজিত সেই ক্রিকেট টুর্নামেন্টে তো জাতীয় দলের একাধিক খেলোয়াড়ও খেলেছিলেন।

Also Read - ক্রিকেটে ফেরার পরিকল্পনা নিয়ে মুখ খুললেন মাশরাফি


বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলা তরুণ প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার পেছনে খেলাধুলায় উন্নতির বাইরেও মাশরাফির আরও উদ্দেশ্য রয়েছে। ক্রীড়ামোদী তরুণরা মাদক থেকে দূরে থাকে বলেই বিশ্বাস করেন তিনি। তাই যারা খেলাধুলা করবে তাদেরকে মাদক থেকে দূরে রাখা যাবে এই মহৎ উদ্দেশ্যও রয়েছে মাশরাফির বিভিন্ন টুর্নামেন্ট আয়োজনের পেছনে।

তিনি বলেন, ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন আমার যেটা আছে, সেটা কয়েকদিন আগে র‍্যাকেট (ব্যাডমিন্টন) টুর্নামেন্ট করেছি, সম্প্রতি অ্যাথলেটিকস টুর্নামেন্ট করেছি তিনটা উপজেলায়, স্কুলে, স্কুল যেহেতু বন্ধ, যতটুকু করা যায়। এখন ভলিবল টুর্নামেন্ট হচ্ছে। বাংলাদেশ ন্যাশনাল টিমের যারা খেলোয়াড় আছে, এমনকি ক্লাব লেভেলের আছে তারা, কিছু দিনের মধ্যে ভলিবল টুর্নামেন্ট শুরু হচ্ছে আমাদের ফাউন্ডেশন থেকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি যেটা চাচ্ছি খেলার একটা পরিবেশ তৈরি করতে, তৃণমূলে। আশা করি এটা সারা বাংলাদেশেই ইনশাআল্লাহ ছড়িয়ে পড়বে। সবাই তো খেলোয়াড় হবে না, তবে যেই ক্রীড়ামোদী মনোভাব তৈরি হবে, মাদক থেকে দূরে থাকার, মাদকের যে প্রবণতা বেড়েছে ওইখান থেকে যদি আপনি দশটা ছেলেকেও বের করে আনতে পারেন, ওটাই অর্জন।’

মাশরাফি মনে করেন তাই এই ক্ষুদ্র উদ্যোগই একদিন বৃহৎ আকারে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়বে এবং তরুণ প্রজন্মকে গঠনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে। মাশরাফির ভাষ্যমতে,

‘এরকম সব জায়গায় যদি অল্প অল্প করে শুরু হয়, তাহলে আমি মনে করি, একটা বৃহৎ, বড় একটা প্রভাব পড়বে। তাই এই ধরণের টুর্নামেন্ট খালি চোখে হয়ত মনে হবে কিছু না, কিন্তু আমরা কিন্তু এই ধরণের টুর্নামেন্ট খেলে খেলেই একটা পর্যায়ে এসেছি। তাই আমি মনে করি যে এগুলো খুবই প্রয়োজনীয়, যে এগুলো প্রত্যেক তৃণমূল পর্যায়ে, গ্রাম পর্যায়ে, ইউনিয়ন পর্যায়ে, শহর পর্যায়ে হওয়া উচিত। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তো হচ্ছেই। আরও বড় আকারে হওয়া উচিত আমি করি। এটা হলে হবে কি, কঠিন সময়গুলোয় সবাই স্পোর্টিং মনোভাব নিয়ে তৈরি হবে, সবাই তো খেলোয়াড় হওয়ার জন্য খেলবে না। তো আমার মনে হয় এগুলা খুব প্রয়োজন এখন।’

Related Articles

রিয়াদ-সৌম্যদের নিয়ে দুশ্চিন্তা ডমিঙ্গোর

ফ্লাডলাইট না জ্বালিয়ে খেলা বন্ধ রাখায় অবাক ডমিঙ্গো

খেলতে যাওয়ায় মুমিনুলের ব্যাট পুড়িয়ে ফেলেন বাবা

সাদমানকে রেখে সাইফকে নেওয়ার কারণ জানালেন ডমিঙ্গো

‘৫২০’ রান করলেই সন্তুষ্ট ডমিঙ্গো