Scores

“দর্শক যত বেশি থাকবে খেলতে তত ভালো লাগবে”

ঢাকার ক্রিকেটে তো বটেই, পুরো বাংলাদেশ জুড়েই একসময় আলোড়ন ফেলত আবাহনী-মোহামেডান লড়াই। সেই লড়াই এখন এতটাই জৌলুস হারিয়েছে যে সোমবার (২৫ মার্চ) প্রিমিয়ার লিগের মহারণ দেখতে এলেন মাত্র গুটিকয়েক দর্শক!

“দর্শক যত বেশি থাকবে খেলতে তত ভালো লাগবে”

রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচে দলকে জেতানো ক্রিকেটার জহুরুল ইসলাম ম্যাচ শেষে জানালেন দর্শকশূন্যতার আক্ষেপ।

Also Read - শেষ ওভারে সাকিবকে দেখে অবাক কলকাতাও!


ম্যাচে জহুরুলের দারুণ ইনিংস দেখার মত দর্শকও ছিলেন না বলতে গেলে। ৪ রানের জন্য শতক হাতছাড়ার আক্ষেপের চেয়েও যেন বেশি আক্ষেপ দর্শক না থাকায়। এর আগে আবাহনীর হয়ে খেলা এই ক্রিকেটার জানালেন, চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের লড়াইয়ে গ্যালারিতে এমন খেলা চোখে পড়েনি আগে।

জহুরু বলেন, ‘আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচে এর আগেও খেলেছি। আবাহনীতে তিন বছর খেলেছি আগেও। তখন এর চেয়ে আরও বেশি দর্শক থাকত। এমনকি সমর্থক গোষ্ঠীরও প্রায় ৫০-৬০ জন থাকত আবাহনীর। দিন দিন তা কমে আসছে।’

দর্শক বেশি আসলে খেলোয়াড়রাও পান আরও বেশি ভালো খেলার উৎসাহ। গুটিকয়েক দর্শকের সমর্থনই এদিন কেড়ে নিয়েছে জহুরুলের নজর। তার ভাষ্য, ‘আসলে দর্শক যত বেশি থাকবে খেলতে তত ভালো লাগবে। তারপরও আজ কিছু সমর্থক ছিল আবাহনীর। তারা বেশ কিছু সময় চিৎকার করেছে। খুব ভালো লাগছিল ভেতর থেকে।’

তাই বড় ম্যাচে আরও বেশি দর্শক প্রত্যাশা তার, ‘আমি চাইব আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ বা যে বড় ম্যাচ হবে আমাদের, এসব ম্যাচে দর্শক আরও বেশি আসুক।’

মোহামেডানের ছুঁড়ে দেওয়া ২৪৯ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে এদিন ১৫ বল ও ৪ উইকেট হাতে রেখেই জয় পায় আবাহনী। যদিও জহুরুল জানালেন, সহজ ছিল না লক্ষ্যের পেছনে ছোটা- ‘এই উইকেটে আড়াইশ রান তাড়া করে জয় পাওয়া সহজ ছিল না। কারণ বল উঁচু-নিচু হচ্ছিল। আমাদের বোলাররা ভালো বল করেছে। আড়াইশ’র মধ্যে আটকে রাখতে পেরেছে।’

‘শুরুতে সৌম্য ও আমার পার্টনারশিপ, তারপর ওয়াসিম জাফর, শান্তর ব্যাটিং কাজে দিয়েছে। আমরা ব্যাক টু ব্যাক উইকেট হারাইনি। ছোট ছোট জুটিতেই ম্যাচটা সহজ হয়েছে আমাদের জন্য।’– বলেন তিনি।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

‘লোভের বশে’, ‘লুকিয়ে’ ডিপিএল খেলেছেন সাইফউদ্দিন!

সৌম্যকে যেভাবে সাহায্য করেছেন জাফর

ওয়াসিম জাফরের পরামর্শ কাজে লাগানোর প্রত্যাশা

তাণ্ডবের আগে ‘নার্ভাস’ ছিলেন সৌম্য

গর্বিত ‘অধিনায়ক মোসাদ্দেক’, কৃতিত্ব মাশরাফিকে