Scores

‘দলগতভাবে খেলতে পারলে অর্জনটা আরো দ্বিগুণ হবে’

Mushfiqur-Rahim-Test

২০০৫ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ডের মতো দলের বিপক্ষে সাদা পোশাকে অভিষেক ঘটে মুশফিকুর রহিমের, গড়েছেন নতুন রেকর্ডও। মাত্র ১৭ বছর বয়সে লর্ডসে অভিষেক হওয়া সবচেয়ে তরুণ ক্রিকেটারের অভিষেকের রেকর্ডটা এখনো মুশফিকের নামেই লেখা। তবে বাংলাদেশ দলে পারফর্ম করেই দলে জায়গা করে নিয়েছেন ১৭ বছর বয়সী মুশফিক।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট দলে ডাক পাওয়ার আগে প্রস্তুতি ম্যাচে সাক্সেসের বিপক্ষে ৬৩ রানের ইনিংস এবং নটিংহ্যাম্পশায়ারের বিপক্ষে করা অপরাজিত ১১৫ রান করেই নির্বাচকদের নজর কেড়েছিলেন মুশফিক। গতকাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের এক যুগে পা রেখেছেন মুশফিক। এই এক যুগে পথসাথী ছিলেন বাংলাদেশের জয়-পরাজয়ে। বাংলাদেশের দলের উন্নতিটাও দেখেছেন নিজের চোখে।

Also Read - সমর্থকদের 'ঈদ উপহার' দিতে চান সরফরাজ


লর্ডস টেস্টে ডাক পাওয়ার পর আবারো দলে জায়গা হারান মুশফিক। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে ডাক পেয়ে আর পেছনে তাকাতে হয়নি মুশফিককে। দীর্ঘ এই ১২ বছরে মুশফিকের রয়েছে অনেক সুখ-সৃতির। ১২ বছর ফুর্তি উপলক্ষে এনটিভির বর্ষণ কবিরকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তুলে ধরেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের সেই সুখ-সৃতিগুলো।

“শ্রীলঙ্কা,ইংল্যান্ডদের মতো দলকে হারিয়েছে। টি-টোয়েন্টি এশিয়া কাপ খেলেছি। তাছাড়াও পাকিস্তান, ভারতের মতো দলকে হারিয়েছি আমরা। অনেক অর্জনই রয়েছে আমাদের। তারপরেও বলবো অপ্রাপ্তি অনেক কিছু রয়েছে, তার মধ্যে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে খুব কাছে গিয়ে হেরেছি যা কিনা অতৃপ্তি ছিল আমাদের জন্য। এইটা বাদেও রয়েছে ২০১২ এশিয়া কাপের ফাইনালে খুব কাছে গিয়ে হেরেছি। এটা যদি জিততাম তাহলে আমার অধীনে অনেক বড় অর্জন হতো।”

অভিষেকের পর বাংলাদেশের ক্রিকেটের উত্থুন-পতনের সাক্ষী ছিলেন বাংলাদেশ টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। তবে গত কয়েক বছরে বিশ্ব ক্রিকেটে অনেক বড় হুমকির নাম হয়েছে বাংলাদেশ। টেস্ট কাপ্তানের মতে গত এক যুগ ধরে বাংলাদেশ যা কিছু অর্জন করেছে, নিজেদের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে আগামী ২ বছরে অর্জনের সংখ্যা আরো দ্বিগুণ হবে।

“গত দুই বছর বাংলাদেশ যেভাবে ক্রিকেট খেলছে, সেটার চেয়ে বড় অর্জন আর হতে পারে না। ইনশাহ আল্লাহ্‌ আমরা যদি ব্যক্তিগতভাবে কিংবা দল হিসেবে বর্তমানে যেভাবে খেলছি  সেটার ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে শেষ ১২ বছরে যা কিছু অর্জন করেছি, আগামী দুই বছরে অর্জনগুলো তার দ্বিগুণ হবে।”

গত কয়েক মাসে টিম ম্যানেজমেন্টের অদ্ভুত সিদ্ধান্তের শিকার হয়েছেন দলের বেশ কিছু সিনিয়র ক্রিকেটাররা। টিম ম্যানেজমেন্টের চাহিদা অনুযায়ী বর্তমানে দলে নিজেদের উজাড় করে দিচ্ছেন। টিম ম্যানেজমেন্টের চাহিদা অনুযায়ী ছেড়েছেন নিজের কিপিংয়ের দায়িত্বটাও। তবে সেইগুলো বর্তমানে কোন প্রভাব ফেলে না টেস্ট অধিনায়কের উপর।

“আপাতত ভালোই চলছে। আসলে আমি সবসময় চেষ্টা করি নিজের সাথে সংগ্রাম করতে কারণ আমি  মনে করি যে আমি যদি নিজের সাথে নিজে সংগ্রাম করতে পারি তাহলে কাউকে ঐভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামতে হবে না।”

-আফরিদ মাহমুদ রিফাত, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম ডট কম

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ইমার্জিং এশিয়া কাপের জন্য নারী দল ঘোষণা

দ্রুত মাঠে ফিরতে মরিয়া তাসকিন

নিজেকে জেলখানার কয়েদির মত মনে হচ্ছে সাইফউদ্দিনের

ডাবল সেঞ্চুরি করেও নিশ্চিত নন কায়েস!

সিপিএল শেষে দেশে ফিরেছেন সাকিব