Scores

দুবের ওভারে ৩৪ নিয়েও হারল নিউজিল্যান্ড

পাঁচ ম্যাচের টি-২০ সিরিজের ট্রফিটা আগেই নিশ্চিত করেছিল সফরকারী দল ভারত। সিরিজের পঞ্চম টি-২০ তে তাই ভারত ছিল নির্ভার। অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে বিশ্রাম দেওয়া হলেও জয়ের ধারা অব্যহত রেখে নিউজিল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করেছে ভারত।

দুবের ওভারে ৩৪ নিয়েও হারল নিউজিল্যান্ড

রোহিত শর্মা টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন। তবে ব্যাট হাতে সূচনাটা ভালো হয়নি ভারতের। দ্বিতীয় ওভারেই ওপেনার সঞ্জু স্যামসন বিদায় নেন। সিরিজে এর আগে দুইটি ম্যাচ মিলিয়ে দশ রান করা স্যামসন এ ম্যাচে করেন মাত্র ২। স্কট কাগেলজেনের বলে বিদায় নেন স্যামসন।

Also Read - টি-টোয়েন্টি মেজাজে রিয়াদের সেঞ্চুরি


অধিনায়ক রোহিত শর্মা ও ওপেনার লোকেশ রাহুল মিলে ৭৮ রানের জুটি গড়েন। প্রাথমিক বিপর্যয় সামাল দেয় এ জুটি। ৫ রানের জন্য অর্ধশতক পাননি রাহুল। ৩৩ বলে ৪৫ রান করে হন হামিশ বেনেটের শিকার। অধিনায়ক রোহিতের দুর্দান্ত ব্যাটিং চলতে থাকে। তাকে সঙ্গ দেন শ্রেয়াস আইয়ার।

রিটায়ার্ড হার্ট হলে ইনিংস লম্বা করতে পারেননি রোহিত। ৪১ বলে ৬০ রান করে মাঠ ছাড়েন তিনি। তার ইনিংসে ছিল ৩ চার আর ৩ ছক্কা। কাফ ইনজুরির কারণে মাঠ ছাড়তে হয় রোহিতকে। শিভাম দুবে ৬ বলে ৫ রান করে ফেরত যান সাজঘরে। রোহিত ফেরার পর রানের গতি কিছুটা কমে আসে। শেষ ওভারে মনিশ পান্ডের এক চার আর এক ছয়ে ভর করে ১৬৩ রান করে ভারত। মনিশ ৪ বলে ১১ এবং আইয়ার ৩৩ বলে ৩৩ রান করে অপরাজিত ছিলেন।

ভারতের মতো নিউজিল্যান্ডও দ্বিতীয় ওভারেই প্রথম উইকেট হারায়। মার্টিন গাপটিলকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন তিনি। ২ রান করে বিদায় নেন গাপটিল। পরের ওভারে ঝড়ের আভাস দেয়া কলিন মানরো বোল্ড হন ওয়াশিংটন সুন্দরের বলে। ৬ বলে ১৫ রান করেন এ ওপেনার। পরের ওভারে টম ব্রুস রান আউট হলে বিপর্যয়ে পড়ে তারা। ১৭ রানে ৩ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড।

সেখান থেকে হাল ধরেন টিম সেইফার্ট আর রস টেলর। নিজের শততম আন্তর্জাতিক টি-২০ খেলতে নামা টেলরকে সাথে সেইফার্ট গড়েন ৯৯ রানের জুটি। এ জুটি শিভাম দুবের একটি ওভারে ৩৪ রান নেন। সেইফার্টে ২ ছক্কা ও ১ চার এবং টেলরেরও ২ ছক্কা ও ১ চারে (চার হয়েছিল নো-বলে) ইনিংসের দশম ওভারটিতে দলের রান ৬৪ থেকে চলে যায় ৯৮ রানে।

শেষ ৬০ বলে দরকার ছিল ৬৬ রান। দলকে খেলায় ফেরান নবদ্বীপ সাইনি। সেইফার্টের উইকেট নেন তিনি। ৫০ রান করেন সেইফার্ট। পরের ওভারে জাসপ্রিত বুমরাহ বোল্ড করেন ড্যারিল মিচেলকে। রানের লাগামটাও টেনে ধরে ভারত। দশম ওভারে ৩৪ রানের পর ৫ ওভারে রান হয় মাত্র ২৪। নিউজিল্যান্ডকে ম্যাচ থেকে ছিটকে দেয় শার্দুল ঠাকুকরের করা ১৭ তম ওভার। মিচেল সান্টনার ও স্কট কাগেলজেনের উইকেট তুলে নেন ঠাকুর। পরের ওভারে আক্রমণে এসে স্বাগতিকদের শেষ আশা রস টেলরের উইকেট নেন সাইনি। ৫৩ রান করে ফিরেন টেলর। ১৯ তম ওভারে বুমরাহ বোল্ড করে দেন টিম সাউদিকে।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার ছিল ২১ রান। ঠাকুরের করা শেষ ওভারের দ্বিতীয় আর চতুর্থ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচে রোমাঞ্চ আনেন ইশ সোধি। টানা তৃতীয়বারের মতো ম্যাচের নিস্পত্তির জন্য সুপার ওভারে যাওয়ার সম্ভাবনাও জেগেছিল। তবে তা আর হয়নি। শেষ দুই বলে রান হয় মাত্র এক। ৭ রানে ম্যাচ জিতে ৫-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নেয় ভারত।

৪ ওভারে ১২ রান দিয়ে ৩ উইকেট শিকার করে বুমরাহ হন ম্যাচসেরা। ম্যান অব দ্যা সিরিজ হন ভারতের লোকেশ রাহুল

সংক্ষিপ্ত স্কোর
ভারত ১৬৩/৩, ২০ ওভার
রোহিত ৬৩, রাহুল ৪৫, আইয়ার ৩৩*
কাগেলজেন ২/২৫, বেনেট ১/২১

নিউজিল্যান্ড ১৫৬/৯, ২০ ওভার
টেলর ৫৩, সেইফার্ট ৫০,  সোধি ১৬*
বুমরাহ ৩/১২, সাইনি ২/২৩, ঠাকুর ২/৩৮

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের দুঃসংবাদ দিল পিসিবি

করোনায় থমকে যেতে নারাজ অ্যান্ডারসন

ক্রিকেট ভক্তদের দুঃসংবাদ দিল আইসিসি

করোনা প্রতিরোধে ৫ মিলিয়ন রুপি দিচ্ছেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা

চিকিৎসা সেবায় ইডেন গার্ডেন্স ব্যবহারের প্রস্তাব সৌরভের