দুর্ভাগ্যবশত আমি ক্রিকেটার হয়ে গিয়েছি : সাব্বির

0
783

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অনেক সম্ভাবনা নিয়ে অভিষেক হয় সাব্বির রহমানের। ওয়ানডে সংস্করণের অভিষেকেই দারুণ ইনিংসও খেলেছিলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শুরু গল্প জানানোর সময় বিডিক্রিকটাইমের সরাসরি আড্ডায় সাব্বির বলেন, তিনি দুর্ভাগ্যবশত ক্রিকেটার হয়ে গিয়েছেন।

দুর্ভাগ্যবশত আমি ক্রিকেটার হয়ে গিয়েছি  সাব্বির

Advertisment

 

ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শুরুতে পরিবারের সমর্থন পাননি সাব্বির। বাংলাদেশের আর দশজন বাবা-মায়ের মতোই তার বাবা-মাও চেয়েছিলেন ভালো করে পড়াশোনা করে ছেলে বড় হয়ে চিকিৎসক বা প্রকৌশলী হবেন। কিন্তু সাব্বির সে ধারায় যায়নি। বৃত্ত ভেঙে বের হয়ে এসে হয়েছেন ক্রিকেটার।

সাব্বিরের ভাষ্যমতে, ‘স্বাভাবিকভাবে বাবা-মায়েরা যেটা চায় যে পড়াশোনা করবে, ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার হবে; আমার বাবা-মাও সেটাই চেয়েছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত আমি ক্রিকেটার হয়ে গিয়েছি। এটা আমার একটা জেদ ছিল, ইচ্ছা ছিল। খেলার জন্য আমি বাসা থেকেও পালিয়ে যেতাম। ক্রিকেট তো খেলতামই, ফুটবল খেলতাম, হকি খেলতাম; সবই খেলতাম। খেলার প্রতি আমার নেশা ছিল। সে কারণেই আমার ক্রিকেট জীবনে আসা।’

বয়সভিত্তিক দলের পক্ষে ইংল্যান্ড সফরের জন্য সাব্বির যখন প্রথম ডাক পান তখন তার বাবা-মা ক্রিকেট ক্যারিয়ারের প্রতিও বিশ্বাসী হন এবং সাব্বিরকে সহযোগিতা করা শুরু করেন।

সাব্বির বলেন, ‘২০০৮ সালে যখন আমি প্রথম অনূর্ধ্ব ১৯ দলের হয়ে ইংল্যান্ড সফরে গিয়েছিলাম তখন আব্বু-আম্মু বলেছিল যে, ছেলেটা আসলেই কষ্ট করছে; ইংল্যান্ড যাচ্ছে। বড় কিছু যদি হতে পারে তাই সুযোগ দেওয়া যায়। তখন তারা সুযোগ করে দিলেন।’

‘তারপর অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ, এশিয়ান গেমস খেললাম। দেশে ফিরে জাতীয় লিগ খেললাম। যখন তারা দেখেছিলেন আসলেই আমার দ্বারা কিছু একটা হবে, আমি কিছু করতে পারব তখনই অনেক সমর্থন দিয়েছেন। এ দলসহ বিভিন্ন খেলায় ভালো করার পরে আমাকে জাতীয় দলে ডাকে,’ তিনি আরও যোগ করেন।

সাব্বির রহমানের সম্পূর্ণ সাক্ষাৎকারটি দেখুন এখানে :