দেশীয় কোচদের নিয়ে তৈরি হচ্ছে শ্যাডো টিম ‘বাংলাদেশ টাইগার’

জাতীয় দলের বাইরে থাকা শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটারদের নিয়ে শ্যাডো টিম তৈরি করতে চলেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিসিবির সর্বশেষ বোর্ড সভায় বিষয়টি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

'পারফরম্যান্স' এবং 'ভবিষ্যৎ' বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় চুক্তি

Advertisment

বাংলাদেশে ক্রিকেট এখনও ঢাকাকেন্দ্রিক। হোম সিরিজে যখন টাইগাররা কোনো দলের বিপক্ষে লড়ে, দলে জায়গা না পাওয়া জাতীয় ক্রিকেটাররা তখন নিজেদের অনুশীলনের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা পান না। এ নিয়ে কয়েক মাস ধরেই আলোচনা চলছিল ক্রিকেট অঙ্গনে।

সেই ধারাবাহিকতায় শ্যাডো টিম তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে বিসিবি, যার নাম হবে ‘বাংলাদেশ টাইগার’। দেশি কোচদের দায়িত্ব দেওয়ার বিষয়ে যে জোরালো দাবি দীর্ঘদিনের, তাও দেখতে পারে বাস্তবায়নের মুখ। কারণ শ্যাডো টিমের কোচ হিসেবে থাকবেন দেশি কোচরা।

এ বিষয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘কিছু দিন আগে আমরা একটা শ্যাডো ন্যাশনাল টিমের কথা বলেছিলাম আপনাদেরকে। সেটাও আজকে বোর্ডে এপ্রুভ হল। বাংলাদেশ টাইগার নামে একটা শ্যাডো ন্যাশনাল টিম আমরা তৈরি করতে যাচ্ছি।’

এই দলের কার্যকারিতার কথা জানিয়ে পাপন বলেন, ‘জাতীয় দলে যারা খেলে তারা যদি কোনো সিরিজে ডাক না পায়… উদাহরণস্বরূপ ধরুন ইমরুল বা সৌম্য দলে ডাক পায়নি, ওরা নাকি তখন প্র্যাকটিস করার সুযোগ পায় না, আমাদের সুবিধাদি ব্যবহার করতে পারে না। এটা তো একটা বড় সমস্যা। ওরা কোথায় প্র্যাকটিস করবে? ওদের কারও যদি কোনো ঘাটতি থাকে কেউ যদি দল থেকে বাদ পড়ে তাহলে ও শিখবে কোথায়?’

সমাধানের পথটাও বাতলে দিয়েছেন বোর্ড সভাপতি। তিনি বলেন, ‘আমরা ঠিক করেছি, সারা বছর আমাদের এখানে ট্রেনিং চলছে। এখন পর্যন্ত আমাদের ইচ্ছা হচ্ছে লোকাল কোচিং স্টাফ থাকবে। এক্ষেত্রে হেড কোচের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা থাকবে।’

‘এখন যেটা হয়, ধরুন ওপেনিংয়ে একটা খেলোয়াড় নেই। খেলবে না অথবা ইঞ্জুরিতে বা কোনো কারণে নেই। তখন আমরা ট্রায়ালের মত একেকদিন একেকজনকে ট্রাই করি। আজকে একে করি, কালকে ওকে করি। আমাদের যদি প্রস্তুত থাকত, যদি জাতীয় দলে দরকার হয় কে যাবে… এভাবে এক নম্বর, তিন নম্বর, সাত নম্বর- পজিশন অনুযায়ী কোচ চাহিদার কথা বলে দিবে ঐ অনুযায়ী আমরা খেলোয়াড়দের সারা বছর ট্রেনিং দিব। যাতে জাতীয় দলের প্রয়োজনে সাথে সাথে বিকল্প হিসেবে চলে যেতে পারে।’– বলেন তিনি।