Scores

দ্রুত নিজেদের সামলে নেবেন টাইগাররা!

চোখের সামনে মানুষ হত্যার যজ্ঞ দেখেছেন। নিজেরাই হতে পারতেন হামলার শিকার। ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালের আল নূর মসজিদে হামলার পর বাতিল হয়েছে সিরিজের শেষ টেস্ট। নিউজিল্যান্ড সফরে আকস্মিক যতি টেনে টাইগাররা ফিরেছেন দেশে।

দ্রুত নিজেদের সামলে নেবেন টাইগাররা, সুজনের বিশ্বাস

তবে সেই মানসিক ধাক্কা কাটিয়ে উঠা চাট্টিখানি কথা নয়। পুরো দেশই যেখানে ট্রমার মধ্যে আটকে আছে, সেখান কাছ থেকে বিপদ চেখে আসা ক্রিকেটারদের মানসিক অবস্থা এখন কতটা দুর্বিষহ সেটি তো সহজেই অনুমেয়।

Also Read - কাল সারা রাত আমরা ঘুমাতে পারিনি: রিয়াদ


সামনে বিশ্বকাপ বলেই দুশ্চিন্তাটা বেশি। এত বড় ক্রিকেট আসরে মন বসবে তো টাইগারদের? নাকি আল নু মসজিদে চলা নৃশংসতা চোখে ভাসবে তখনও!

বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবি পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজনের বিশ্বাস, ক্রিকেটাররা দ্রুতই নিজেদের সামলে নিতে পারবেন। দীর্ঘ সময় তিনি ছিলেন দলের ম্যানেজার, ক্রিকেটারদের তাই ভালো করেই জানেন তিনি। সেই বিশ্বাস থেকেই তার প্রত্যাশা, মানসিক ধাক্কা কাটাতে সময় নেবেন না ক্রিকেটাররা।

সুজন বলেন, ‘আমার মনে হয় ছেলেরা যথেষ্ট পরিণত। সবাই আসলে বড় হয়ে গিয়েছে। আর এটি তো এমন না যে বিশ্বে প্রথম ঘটলো। এমন কিন্তু অহরহ ঘটছে। বাংলাদেশেও ঘটেছে। আমরা হলি আর্টিজানের ঘটনা জানি কতটা নৃশংস হয়েছিলো। অবশ্যই একটা শক তো পেয়েছে ছেলেরা। তবে আমার কাছে মনে হয় এখান থেকে তারা দ্রুত ফিরে আসবে।’

দ্রুত খেলোয়াড়রা ট্রমা কাটিয়ে উঠতে পারবেন এমন প্রত্যাশায় সুজনের ভাষ্য, ‘এত চিন্তা করার কিছু নেই। তারা সবাই পরিণত হয়েছে। বুঝেছে যে এমন ঘটনা হতেই পারে, হয়েছে। সুতরাং দুই একদিনের মধ্যে ওরা নিজেরাই ঠিক হয়ে যাবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

তবে এমন দৃশ্য বা পরিস্থিতি হজম করাও যে সহজ ব্যাপার নয় সুজন জানেন সেটিও। তিনি বলেন, ‘স্বাভাবিকভাবেই আপনি যদি চোখের সামনে এমন কিছু দেখেন এবং আপনি জানেন যে যদি এক মিনিট পরে ঘটনাটি ঘটতো তাহলে কিছু হতে পারতো। স্বাভাবিকভাবেই ভীতবিহ্বল থাকার কথা। খেলতে গিয়ে এমন একটি ঘটনা দেখা- অবশ্যই ভালো কিছু না।’

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ক্রাইস্টচার্চের সেই মসজিদেই বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের নামাজ আদায়

“যখন স্বাভাবিক জীবনে ফেরার চেষ্টা করছি, তখনই অগ্নিকান্ড”

নিউজিল্যান্ডকে নিরাপদ ভাববে বাংলাদেশ, বিশ্বাস দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রীর

“দল কিসের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন”

সফরের আগে নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণে পর্যবেক্ষক দল?