ধানির মধ্যে নতুন শোয়েব আখতারকে দেখছেন আজহার

0
1052

সদ্য সমাপ্ত পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে মাত্র ২২ বছর বয়সী শাহনেওয়াজ ধানি। ধানিতে মুগ্ধ মুলতান সুলতান্সের বোলিং কোচ আজহার মাহমুদ এই তরুণ পেসার মধ্যে কিংবদন্তি শোয়েব আখতারের ছায়া খুঁজে পেয়েছেন।

Advertisment
পিএসএলে বল হাতে রীতিমত তাণ্ডব ছড়িয়েছেন ধানি।
পিএসএলে বল হাতে রীতিমত তাণ্ডব ছড়িয়েছেন ধানি।

 

পিএসএলের চলতি মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন মুলতান সুলতান্সের হয়ে খেলেছেন ধানি। মাত্র ১১ ম্যাচে ২০ উইকেট তুলে নিয়ে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী ধানি মুলতানের প্রথম শিরোপা জয়ের পেছনে রেখেছেন বড় অবদান।

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশ থেকে ঠে আসা এই পেসারের বোলিং মুগ্ধ করেছে মুলতানের বোলিং কোচ আজহার মাহমুদকে। ধানির সঙ্গে তিনি মিল খুঁজে পেয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক কিংবদন্তি পেসার শোয়েব আখতারের।

শোয়েবের মতোই হাস্যোজ্জল ধানি। ব্যাটসম্যানের কাছে মার খেলেও শোয়েবের মতোই খুব একটা পাত্তা দেন না এই ডানহাতি পেসার। ধানির এমন গুনগুলোর কারণে তার মধ্যে পাকিস্তানের নতুন শোয়েবকে দেখছেন আজহার।

আজহার বলেন, “ধানি সবসময় হাসিখুশি থাকে। বল হাতে মার খেলো কিনা এটা তার কাছে তেমন কোন ব্যাপার না। ফলে দলের সবাই উজ্জীবিত থাকে। এটা এমন যে, আমরা যেন নতুন আরেকটি শোয়েব আখতার পেয়েছি।”

তবে সহসাই যে শোয়েবের সমপর্যায়ে যাওয়া যাবে না সেটি স্বরণ করিয়ে দিয়েছেন মুলতানের এই বোলিং কোচ৷ এখনও অনেক কাজ বাকি ধানির। বিশেষ করে ইন সুইং ও আউট সুইং নিয়ে ধানিকে কাজ করতে হবে বলে মনে করছেন তিনি।

“এটা তার জন্য কেবল একটি শুরু মাত্র। ইন সুইং ও আউট সুইং নিয়ে তাকে কাজ করতে হবে। তার বোলিংয়ের কোন জায়গাগুলোতে কাজ করতে হবে সে বিষয়ে আমি একটি রিপোর্ট লিখে পাকিস্তানের বোলিং কোচকে পাঠাবো।” যোগ করেন আজহার।

এদিকে পিএসএল চলাকালীন লাহোর কালান্দার্সের বিপক্ষে ক্যারিয়ার সেরা মাত্র ৫ রানে ৪ উইকেট তুলে নেওয়ার পর ধানিকে নিয়ে মুগ্ধতার কথা জানিয়েছিলপন তার পূর্বসূরি শোয়েব আখতার। সেই সময় নিজের ইউটিউব চ্যানেলে শেয়ার করা ভিডিওতে ধানির বোলিং ও মনোভাবের প্রশংসা করে তাকে ‘পাকিস্তানের ভবিষ্যত’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন তিনি।

ঐ ভিডিওটিতে শোয়েব বলেন, “আমি খুব খুশি যে তার (ধানি) মতো ক্রিকেটাররা উঠে আসছে। পিএসএল এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে খেলোয়াড়রা নিজেদের প্রতিভা দেখানোর সুযোগ পায়। আমি আজহার মাহমুদকে অভিনন্দন জানাতে চাই যারা তার সাথে অনেক কাজ করেছেন এবং অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারও তাই করেছেন। একজন ফাস্ট বোলারকে দৌঁড়াতে এবং তার বাউন্সার দেখা সবসময় আনন্দের। সে বাউন্সার দিয়ে তাদের (ব্যাটসম্যানদের) আঘাত করে এবং পরবর্তীতে ক্ষমাও চান। সে অসাধারণ মানুষ। আমি মনে করি সে পাকিস্তানের ভবিষ্যত।”