ধ্রুব-ফ্রাঙ্কলিন নৈপুণ্যে ৬ উইকেটের জয় রাজশাহী কিংসের

 

255890.3

Advertisment

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের চতুর্থ আসরে টুর্নামেন্টে ঠিকে থাকার লড়াইয়ে চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল রাজশাহী কিংস। অভিষেক ম্যাচেই বাজিমাত করেন কিংসের বোলার আফিফ হোসেন ধ্রুব। প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচেই ৫ উইকেট লাভ করেন তিনি। তার বোলিং ম্যাজিক ও ব্যাটিংয়ে জেমস ফ্রাঙ্কলিনের অপরাজিত ২৭ বলে ৬৩ রানের উপর ভর করে ৬ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় রাজশাহী কিংস।

এর আগে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিধান্ত নিয়েছিল রাজশাহীর অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। ইনিংসের প্রথম বলেই উইলিয়ামসের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরে যান তামিম (০)। বড় ইনিংসের দেখা পাননি উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান এনামুল হক বিজয়ও। ২ চারের সাহায্যে ৮ বলে ৮ রান করে মিরাজের বলে আউট হন বিজয়। দলীয় ১৫ রান যোগ করতে জহুরুলকে হারায় ভাইকিংস। অভিষিক্ত আফিফের বলে এল্বিডাব্লিউর ফাঁদে পড়েন জহুরুল। রান পাননি ফর্মে থাকা মোহাম্মদ নবীও। অন্য ব্যাটসম্যানরা যখন আসা যাওয়ার মিছিলে তখন এক প্রান্ত থেকে দলকে আগলে রাখেন শোয়েব মালিক।

একেক করে ভাইকিংসের উইকেট তুলে নেন অভিষিক্ত আফিফ হোসেন ধ্রুব। শোয়েব মালিকের অপরাজিত ৫৪ বলে ৬৭ রানের উপর ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১১১ রান করেন চিটাগং ভাইকিংস। রাজশাহী কিংসের হয়ে একাই পাঁচ উইকেট নেন আফিফ ধ্রুব। উইলিয়ামস ২টি ও ১টি করে উইকেট নেন মেহেদী মিরাজ এবং নাজমুল অপু।

১১২ রানের সহজ টার্গেট খেলতে নেমে শুরুটা দারুনভাবে করেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান ও মমিনুল হক। দুইজনে মিলে ৩২ রানের জুটি গড়েন। ষষ্ঠ ওভারের মাথায় সাকলাইন সজিবের বলে ১২ রান করে বোল্ড আউট হন নুরুল হাসান। দলীয় ৫ রান যোগ করতেই আউট হন মমিনুল হক। ২৮ বলে ২২ রান নিয়ে সাজঘরে ফিরে যান মমিনুল। মাত্র ৮ রান নিয়ে ইমরান খানের বলে এল্বিডাব্লিউর ফাঁদে পড়েন সাব্বির রহমান।

দলের হয়ে বাকি কাজটা করে দেন জেমস ফ্রাঙ্কলিন। তবে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে থাকার জন্য ১৩ ওভারে ম্যাচ শেষ করার কথা থাকলেও ব্যর্থ হন রাজশাহী কিংস। শেষ পর্যন্ত জেমস ফ্রাঙ্কলিনের অপরাজিত ৬৩ রানে সহজ জয় পায় কিংস ফলে শেষ চারের লড়াইয়ে এখনো টিকে রয়েছে রাজশাহী কিংস। ভাইকিংসের হয়ে ২টি করে উইকেট লাভ করেন ইমরান খান জুনিয়র ও সাকলাইন সজীব।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

চিটাগং ভাইকিংস   ১১১-৯ (ওভার ২০)

শোয়েব মালিক ৬৭*, জহুরুল ১৩ঃ ধ্রুবঃ ৫-২১ (৪)

রাজশাহী কিংস    ১১২-৪ (ওভার ১৩.৫)

ফ্রাঙ্কলিন  ৬৩*, মমিনুল ২১ঃ সাকলাইন ২-৯ (৩)

ফলাফলঃ ৬ উইকেটে জয়ী রাজশাহী কিংস

ম্যাচ সেরাঃ আফিফ হাসান ধ্রুব (রাজশাহী কিংস)

-আফরিদ মাহমুদ রিফাত, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটিম ডট কম