Scores

নাফীসদের হারিয়ে মোহামেডানের বড় জয়

খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে আজ নিয়মরক্ষার ম্যাচে লিজেন্ডস রূপগঞ্জের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের অধিনায়ক রকিবুল হাসান। ৩০ রানের জয় পেয়ে ঐতিহ্যবাহী ক্লাব মোহামেডান।

 

সজীব

Also Read - দক্ষিণ আফ্রিকাকে বিদায় বললেন অলিভিয়ার


 

পাওয়ার প্লেতেই চার উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে মোহামেডান। ওপেনার আব্দুল মজিদ ফিরে যান দলীয় ৫ রানে। ক্রিজে এসেই আবার ফিরে যান আশরাফুলও। কোনো রান সংগ্রহের আগেই গোল্ডেন ডাক পান তিনি। আগের ম্যাচে মিডল অর্ডার ঝড়ো ফিফটি তোলা ইরফান শুক্কুর আজ টপ অর্ডারে ব্যাট করার সুযোগ পেলেও তা কাজে লাগাতে পারেননি।

 

আরেক ওপেনার অভিষেক মিত্রও থিতু হয়ে আউট হয়ে যান মিনহাজুর ১৩ বলে ২২ রান করেন তিনি। সোহাগ গাজী ও নাদিফ চৌধুরী ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করলেও ২১ রানে ফিরে যান সোহাগ।নাদিফের ৩৪ বলে ৪১ ও আলাউদ্দিন বাবুর ২৩ বলে ৩০ রানে চড়ে ১৪৩ রানের মাঝারি মানের সংগ্রহ পায় মোহামেডান।

 

অনূর্ধ্ব-১৯ দলের স্পিনার মিনহাজুর রহমান রূপগঞ্জের পক্ষে ৪ ওভারে ২০ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ২ উইকেট। পেসার শহীদ ৪০ রানে নিয়েছেন ৩ উইকেট।

 

মাঝারি টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনারকে হারায় রূপগঞ্জ। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৮ রান (২৩ বল) করেন দলীয় অধিনায়ক নাইম ইসলাম। আগের দিন ঝড়ো ইনিংস খেলা শাহরিয়ার নাফীস আজ মন্থর গতিতে ১৫ রান করেন। শেষের দিকে আসিফ হাসান ১৪ ছাড়া আর কেউ বলার মতো রান করতে পারেননি।

 

মোহামেডানের পক্ষে শাহাদাত হোসেন রাজীব, সাকলাইন সজীব ও নিহাদুজ্জামান দুইটি করে উইকেট পেয়েছেন। ছোট সংগ্রহেও নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ৩০ রানের জয় পেয়েছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

মোহামেডান: ১৪৩/৯ (অভিষেক ২২, আশরাফুল ০, সোহাগ গাজী ২১ , নাদিফ চৌধুরী ৪১, আলাউদ্দিন বাবু ৩০; শহীদ ৩/৪০ , মিনহাজুর ২/২০)

 

রূপগঞ্জ: ১১৩/৮ (আজমির ১৮, নাইম ইসলাম ২৮, শাহরিয়ার নাফীস ১৫, মুক্তার আলী ১০, আসিফ হাসান ১৪; সাকলাইন সজীব ২/১৫, নিহাদুজ্জামান ২/১৯, শাহাদাত হোসেন ২/১৮)

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজনে বিসিবিকে নাফীসের ধন্যবাদ

হাইলাইটসঃ ডিপিএল টি-টোয়েন্টি লিগের ফাইনাল

ভিডিওঃ ফাইনালে নাসির-সোহানদের বিজয়ের মুহূর্ত

ডিপিএল টি-টোয়েন্টির শিরোপা জিতল শেখ জামাল

লাইভঃ ৩০ বলে দোলেশ্বরের চাই ৭০ রান