“নিউজিল্যান্ডকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল মুম্বাই থেকে”

0
7712

ই-মেইলে প্রাণনাশের হুমকি পেয়ে পাকিস্তান ত্যাগ করে নিউজিল্যান্ড। তাদের দেখে ইংল্যান্ডও বাতিল করেছে পাকিস্তান সফর। পাকিস্তানের তদন্তে বের হয়ে এসেছে, সেই সব ই-মেইল করা হয়েছে ভারতের মহারাষ্ট্র থেকে।

নিউজিল্যান্ডকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল মহারাষ্ট্র থেকে
গাপটিলের স্ত্রীকে পাঠানো মেইল

দেশে ফেরার পরে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছিল যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাদের খেলোয়াড়দেরকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছিল। তারা সেসব বার্তা আমলে না নিয়েই পাকিস্তানে যান। কিন্তু লাগাতার হুমকিস্বরূপ বার্তা আসতে থাকায় নিউজিল্যান্ড সফর বাতিল করে দেশে ফিরে যায়। পাকিস্তান আগেই দাবি করেছিল যে এসব ভারতের চক্রান্ত

Advertisment

নিউজিল্যান্ড দলকে পাঠানো সেসব ই-মেইল প্রকাশ করা হয়েছে। ফেডারেল তদন্ত এজেন্সির সাইবার অপরাধ বিভাগ সেসব ই-মেইল হাতে পাওয়ার পরে তদন্ত করেছে। তদন্তে বের হয়ে এসেছে যে, ই-মেইলগুলো পাঠানো হয়েছে ভারতের মহারাষ্ট্র থেকে। তবে ভার্চুয়াল পারসোনাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ব্যবহার করা হয়েছে সিঙ্গাপুরের অবস্থান।

প্রকাশ পাওয়া ই-মেইলের মধ্যে একটি ই-মেইল পাঠানো হয়েছে তেহরিক-ই-লাব্বাইক নাম নিয়ে এবং তালেবানের বরাত দিয়ে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যান মার্টিন গাপটিলকে হুমকি দেওয়া হয়েছে। গত ২৪ আগস্ট সেই ই-মেইলটি পাঠানো হয়েছিল গাপটিলের স্ত্রীকে। সেখানে লেখা হয়েছে,

“মার্টিন গাপটিল পাকিস্তান থেকে কফিনে করে দেশে ফিরবে। শেষকৃত্যের জন্য প্রস্তুত হও। তালেবান, তেহরিক-ই-লাব্বাইক ও পাকিস্তান দীর্ঘজীবী হোক।”

 

নিউজিল্যান্ডকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল মহারাষ্ট্র থেকে
নিউজিল্যান্ড পুলিশকে পাঠানো মেইল

তবুও এই ই-মেইলকে আমলে না নিয়েই পাকিস্তান সফরে যায় নিউজিল্যান্ড দল। বাংলাদেশে অবস্থানরত ক্রিকেটাররা পাকিস্তানে যান ১১ সেপ্টেম্বর এবং বাকিরা যান ১২ সেপ্টেম্বর। ১৩, ১৪ ও ১৬ সেপ্টেম্বর রাওয়ালপিন্ডি স্টেডিয়ামে তারা অনুশীলন করেন। ১৭ তারিখ দুপুরে শুরু হওয়ার কথা ছিল প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ। তার আগেই কিউইরা আবার নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ভুগতে থাকেন এবং তখনই সিরিজ বাতিলের ঘোষণা দেন।

সিরিজ বাতিলের ঘোষণা দেওয়ার পরও সেদিন পাকিস্তানের ছিলেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা। তারা হোটেলে থাকাকালীন নিউজিল্যান্ড পুলিশের কাছে হুমকিস্বরূপ একটি ই-মেইল পাঠানো হয়। সেই ই-মেইলটি পাঠানো হয় হামজা আফ্রিদি নামের খোলা একটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট থেকে। এই ই-মেইলে লেখা ছিল, সিরিজ না খেলে পাকিস্তান ত্যাগ করলে নিউজিল্যান্ড দলের হোটেল ও বিমানবন্দরে যাওয়ার রাস্তায় বোমা হামলা করা হবে।

তদন্তে দেখা যায়, ই-মেইলটি পাঠানোর ১৫ মিনিট আগে হামজা আফ্রিদি নামের ভুয়া অ্যাকাউন্টটি খোলা হয়েছিল। সাইবার অপরাধ তদন্ত কমিটি আরও বের করে যে উক্ত ই-মেইলটি কোন ডিভাইসে খোলা হয়েছে। ডিভাইসটি ছিল রিয়েলমি আরএমএক্স ১৯৭১ মডেলের মুঠোফোন। উক্ত ডিভাইসে আরও ১২টি ই-মেইল অ্যাকাউন্ট চালানো হয় যেখানে হামজা আফ্রিদি ব্যতীত বাকি সবগুলোই অ্যাকাউন্টই হিন্দি কিংবা ভারতীয় নামে ছিল।

নিউজিল্যান্ডকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল মহারাষ্ট্র থেকে
মুঠোফোনে ব্যবহৃত আরও মেইলের নাম ও মালিক ওমপ্রকাশ মিশ্র

তদন্তে আরও বের হয় ডিভাইসটির অবস্থান ভারতের মহারাষ্ট্রের মুম্বাইয়ে। ২০১৯ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে ওই মুঠোফোন একটি সিমই ব্যবহার করা হচ্ছে। মুঠোফোনটিতে ব্যবহৃত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও অন্য ই-মেইল দেখে ধারণা করা হচ্ছে সেটির মালিকের নাম ওমপ্রকাশ মিশ্র। তেহরিক-ই-লাব্বাইক নামের ভুয়া অ্যাকাউন্টটির সাথেও এই চক্রই জড়িত আছে বলে নিশ্চিত হয়েছে তদন্ত কমিটি।

তদন্ত শেষে সাইবার অপরাধের মামলা দায়ের করা হয়েছে। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরি বলেন, “নিউজিল্যান্ডকে হুমকি দিয়ে যেই ডিভাইস থেকে মেইল পাঠানো হয়েছে সেই ডিভাইসটির অবস্থান ভারতে। মহারাষ্ট্র থেকে ই-মেইলগুলো পাঠানো হয়েছে ভুয়া অ্যাকাউন্ট তৈরি করে।”

দেশে ফিরে যাওয়ার আগে নিউজিল্যান্ড পাকিস্তানের কাছে থেকে এসব গোপন রেখেছিল। তবে দেশে ফেরার পরে তারা জানিয়েছিল পাকিস্তানে অবস্থান করার মতো পরিস্থিতি ছিল না এবং তাদের খেলোয়াড়দের প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছিল।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।